আজ সোমবার, ০১ জুন ২০২০ ইং

বর্ষাকাল না আসতেই বৃষ্টির আগমন

সিলেটভিউ টুয়েন্টিফোর ডটকম, ২০১৯-০৪-০৭ ১৭:৩৮:৫৪

রুবাইয়াত-ই-জান্নাত :: বাংলাদেশে ছয়টি ঋতু থাকলেও বর্ষাকালের বৈশিষ্ট্য সবচেয়ে আলাদা। কিন্তু বর্ষাকালের আগেই যখন বৃষ্টির আগমনি বার্তা আসে তখন তা আনন্দের সাথে বেশ কিছু দুর্ভোগ বয়ে আনে।

এবার সারা দেশেই বর্ষাকাল আসার আগেই মেঘলা আকাশ আর বৃষ্টির উপস্থিতি দেখা যাচ্ছে। তবে সিলেটে যেন এদের উপস্থিতি সবচেয়ে বেশি।

সিলেটে দিনের শুরু রোদেলা আকাশ দিয়ে হলেও মূহুর্তের মধ্যে মেঘের ভয়ংকর গর্জন আর কালো আকাশ সম্পুর্ণ পরিবেশকে অন্যরকম করে তোলে। আর তার কিছুক্ষণ পর যখন বৃষ্টি পড়া শুরু হয় ঘরের বাইরে থাকা মানুষগুলো ছুটাছুটি শুরু করে বৃষ্টি থেকে নিজেকে একটু বাঁচার জন্য। এ সময় যাদের কাছে ছাতা থাকে তারা নিজেকে অনেক ভাগ্যবান মনে করে।

এই হঠাৎ বৃষ্টি দুষ্টু ছেলেমেয়েদের জন্য অনেক মিষ্টি সময় বয়ে নিয়ে আসে। কারণ তারা বৃষ্টিতে ভিজে, কাদাতে খেলে অনেক মজা পায়। একই সময় আবার অনেকে ঘরে বসে থাকে মেঘের গর্জনের শব্দ শুনে।

সিলেটে এই অসময়ের বৃষ্টিতে ভাঙ্গা রাস্তাগুলো পানিতে ভরে যায়। রাস্তায় যানবাহন চলাচলে অসুবিধা সহ মানুষের চলাচলও বেশ দুর্বিষহ হয়ে যায়। আবার দিনমজুরদের জন্যেও এই ধরণের দিন কাম্য নয়। দোকানিদের বিক্রি এসময় কমে যায় বলে তারাও বেশ চিন্তিত থাকে। বিদ্যুৎ বিভ্রাটও এই সময়ের নিত্য ঘটনা হয়ে যায়।

সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম বর্ষের ছাত্রী আশানূর আলতাফ জেরিন বলেন, সিলেটের এমন আবহাওয়া আর বিদ্যুৎ বিভ্রাট এর বেপারে আগে জানতাম না। তাই মোমবাতি আর চার্জার সাথে রাখি নি। এই কারণে কারেন্ট চলে গেলে পড়তে অনেক সমস্যা হয়। আর পরীক্ষার আগের দিনের রাতে অবস্থা আরো খারাপ হয়ে যায়।

তবে এই দিন এ সিলেটের ছাতা, মোমবাতি, চার্জার এসব জিনিসের বিক্রি বেড়ে যায়। আর আবহাওয়া একটু ভালো হলে ঝালমুড়ি এর ভ্যানের সামনে মানুষের ভিড় দেখা যায়। হোটেলগুলোতে খিচুড়ির ক্রেতার সংখ্যাও বাড়ে সমান হারে। বর্ষার সিক্ততা এসব খাবারের প্রতি যেন মানুষের আকর্ষণকে বাড়িয়ে দেয়।

সিলেটের বালুচর এলাকার এক অধিবাসী ফরিদ মিয়া সাথে কথা বলে জানতে পারি- সিলেটে এই সময় বাড়ি থেকে টাকা নিয়ে না বের হলেও ছাতা নিয়ে বের হতে হয়। ছাতা ছাড়া এই দিনে চলা যায় না।

সারা দেশের মধ্যে সিলেটে তুলনামুলক বৃষ্টি বেশি হয়। সিলেটে বসবাসকারী মানুষের ধারণা সিলেটে বৃষ্টিপাতের হার দিন দিন আরো বাড়বে।


লেখক- রুবাইয়াত-ই-জান্নাত, সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়।

@

শেয়ার করুন

আপনার মতামত দিন