আজ বৃহস্পতিবার, ২৯ অক্টোবর ২০২০ ইং

আদার বেপারীর জাহাজের খবর!

সিলেটভিউ টুয়েন্টিফোর ডটকম, ২০১৯-১২-২৯ ২১:৪৬:১৪

লীনু ফারজানা :: গ্রেগেরিয়ান বর্ষপঞ্জির পাতা থেকে আরেকটা বছর বিদায় নিবে মাত্র দুইদিন পরে। বিদায়ী সূর্যের ম্লান আলো জানান দিয়ে যায়, বছর শেষ হয়ে এসেছে। বছরান্তেই বিগত দিনের প্রতিটা মুহূর্ত হয়ে যায় স্মৃতি। ঘুরেফিরে পটে ভাসে পুরনো বছরের হারিয়ে যাওয়া অম্লমধুর ক্ষণ।

আদার বেপারীর জাহাজে খবর নিতান্ত কম নয়। দেশের খবর, দশের খবর, ঘরের খবর-সব মিলিয়ে খবরের বিরাট ভান্ডার। কোনটা রেখে কোনটা ধরি করতে করতেই দ্বিধা দ্বন্দ্বে কেটে যায় আরো এক প্রহর।

২০১৮ সালের ৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচন পরবর্তী সহিংসতার খবর দিয়ে নতুন বছর শুরু হয়। বিরোধী দলের নির্বাচনী এজেন্ট হওয়ার অপরাধে সুবর্ণচরে তিন সন্তানের জননীকে ধর্ষণ করে ‘বীরত্বের অনন্য দৃষ্টান্ত’ স্থাপন করেন সরকার দলীয় এক নেতা।
মানবাধিকারের লঙ্ঘন ঠেকাতে ন্যায়বিচারের ন্যূনতম নিশ্চয়তা না থাকায় মানুষ আইন হাতে তুলে নেয় যত্রতত্র।

সাংবিধানিক নিয়মে নির্বাচিত এমপিদের শপথ গ্রহণ ও সরকারের নতুন মন্ত্রিসভা গঠিত হয়। মন্ত্রিসভায় প্রবীণ ও অর্বাচীনদের সংযুক্তিতে কোথাও স্বস্তি, কোথাও অস্বস্তি ছিলো যথারীতি।

বিরোধীদলের নির্বাচন বর্জন, ব্যাপক কারচুপি ও অনিয়মের মধ্যে দিয়ে উপজেলা নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। ন্যাড়া একবার বেল তলায় যায়; তাই জাতীয় নির্বাচনের ভরাডুবিতে বিরোধী দলের আর সাহস হয়নি নির্বাচনে যাওয়ার।

রাজনৈতিক উষ্ণতাকে পাশ কাটিয়ে একদিন ময়ুরপঙ্খী উড়োজাহাজ ছিনতাই করে নিয়ে যায় এক বেরসিক ছিনতাইকারী। রুদ্ধশ্বাস কমান্ডো অভিযানে ছিনতাইকারী নিহত হলে উদ্ধারকৃত খেলনা পিস্তল নিয়ে এই ছিনতাই রহস্যের জট খুলেনি।

বিজিএমইএর সাবেক সভাপতি, ব্যবসায়ী নেতা আতিকুল ইসলাম ঢাকা উত্তরের স্বল্পকালীন সময়ের মেয়র হিসেবে জননন্দিত মেয়র আনিসুল হকের স্থলাভিষিক্ত হন। পরিষ্কার রাস্তায় ময়লা ফেলে পরিচ্ছন্নতা অভিযান পরিচালনা করতে বেকায়দায় পড়েন তিনি। হাস্যকর নির্বুদ্ধিতার জন্য প্রাপ্ত তাচ্ছিল্যকে উপেক্ষা করে নগরবাসীর নিরন্তর সেবায় মনোনিবেশ অব্যাহত। 

ডেঙ্গু দমন করতে গিয়ে শেওলা পড়া উঠানে পিছলে পড়ে মেয়র মহোদয় এইবার চিপটাং। তাতে কি! এডিশ মশা নির্বংশ করতে ভাঙা ঠ্যাং নিয়েও অহর্নিশ কাজ করেছেন।

বনানীর এফ আর টাওয়ার জ্বলছে দাউ দাউ। আগুনে আটকে পড়াদের বাঁচার আকুতি ও অপেক্ষমাণ স্বজনদের আর্তনাদে আকাশ বাতাস ভারী। জ্বলন্ত আগুনের সামনে দাঁড়িয়ে উৎসুক জনতার সেলফিবাজিতে ফায়ার সার্ভিস কর্মীদের আগুন নিয়ন্ত্রণ ও উদ্ধারকাজ ব্যাহত হয়। নাঈম নামের এক পথশিশু ফুটো হওয়া পানির পাইপ পলিথিন দিয়ে চেপে ধরে আগুন নিয়ন্ত্রণে সহায়তা করে। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমের কল্যাণে ভাইরাল হওয়া এই খবর ব্যাপক সাড়া ফেলে। অনেকেই শিশু নাঈমের সহায়তায় এগিয়ে আসেন।
আমরা হুজুগে জাতি। নাঈমকে নিয়ে মিডিয়ায় বেশি ঘাটাঘাটি করতে গিয়ে বেশকিছু হাস্যকর ঘটনার জন্ম দেয়া হয়েছে। আদৌ নাঈমের ভাগ্য পরিবর্তন কতটুকু হয়েছে তা জাতির কাছে অজ্ঞাত।

নিজ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের পিতৃসম অধ্যক্ষের লালসার শিকার নুসরাত জাহান রাফি। লম্পট অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে শ্লীলতাহানির অভিযোগ করায় নির্মমভাবে পুড়িয়ে হত্যা করা হয় রাফিকে। দেশব্যাপী প্রতিবাদ ও নিন্দার চাপে অতি দ্রুত বিচারকার্য সম্পন্ন হয়। ১৬ আসামীর মৃত্যুদন্ডের রায়ে আইনের শাসনের প্রতি মানুষের আস্থা ফিরেছে অনেকটা। এখন সেই রায় কার্যকর হলেই স্বস্তি।

চাঁদ দেখা কমিটির আয়েশি চন্দ্রদর্শন বিড়ম্বনায় ঈদ আনন্দও লাটে উঠে আমাদের। যদিও সবাইকে অবাক করে মধ্যরাত্রিতে বাংলার আকাশে উদিত হয় শাওয়ালের চাঁদ।

সাবেক প্রেসিডেন্ট হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ ক্ষমতায় থাকাকালীন দুর্নীতি ও অনিয়মের কারণে ব্যাপক নিন্দিত হলেও নন্দিত হওয়ার মতো তার মহৎকর্মকেও অস্বীকার করার উপায় নেই। বিতর্কিত ভূমিকা পালনকারী এই রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বের মৃত্যুতে দলীয় নেতাকর্মীদের পাশাপাশি জনগণও ব্যথিত।

ব্যর্থপ্রেমের হিংস্রতার শিকার বরগুনার রিফাত শরীফ। স্ত্রীর সাবেক প্রেমিক, কিংবা পাণিপ্রার্থী এক নেশাগ্রস্ত বিকৃত তরুণের চাপাতির কোপে স্ত্রীর সামনেই নির্মমভাবে প্রাণ হারায় রিফাত। আলোড়ন সৃষ্টিকারী এই হত্যাকাণ্ডের সাথে তার স্ত্রী মিন্নির সম্পৃক্ততা নিয়েও সারা দেশবাসী দ্বিধাবিভক্ত। কারো মতে বউয়ের ষড়যন্ত্রেই খুন করা হয়েছে রিফাত শরীফকে। স্বামীর হত্যাকারী হিসেবে বিচারের কাঠগড়ায় মিন্নি। ক্রসফায়ারে দিয়ে মূল হত্যাকারীকে হত্যা করলে কেমনে হত্যার জট খুলবে?

পদ্মাসেতুতে মাথা লাগবে, এমন গুজবে শিশুর কল্লা কাটার ধুম না পড়লেও ছেলেধরা সন্দেহে প্রাণ যায় বেশ কয়েকজনের। হাজারও শিশুর কল্লা বাঁচাতে গণপিটুনি দিয়ে দুই সন্তানের এক জননীকেও হত্যা করা হয় কেবল সন্দেহের বশে।

গুজবের রেশ চলাকালীন আরেক নেশাগ্রস্ত যুবকের লোভের শিকার এক অভাগা শিশু। কল্লার বিনিময়ে লাখ টাকা! নিষ্পাপ এক শিশুর কল্লা কেটে পালানোর সময় ধরা পড়ে কল্লাকাটা। গণরোষের বলি হয়ে তার আর লাখপতি হওয়া হলো না।

এবারের বিশ্বকাপে বড় রানের টার্গেট তাড়া করে ঘাগু দলগুলোকে হারানোর হিম্মত দেখিয়ে ফেভারিটদের তালিকায় উঠে আসে বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। জুয়াড়িদের সাথে ফোনালাপ গোপন করায় বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিবের উপর আইসিসির নিষেধাজ্ঞায় বিশ্বকাপের অর্জন ম্লান হয়ে যায়। তাও ভক্তদের আশা সব প্রতিকূলতা ছাপিয়ে সাকিব আবার ফিরে আসবেন বীরের বেশে।

পেঁয়াজ ছাড়া বাঙালির রান্না চুলায় বসে না। আঠারো টাকা কেজির পেঁয়াজ দুর্দান্ত সব সেঞ্চুরি হাঁকিয়ে অদম্য গতিতে অপরাজিত ছিলো দীর্ঘ সময়। পেঁয়াজ নিয়ে কেচ্চাকাহিনীর মাঝখানে ক্যাসিনোতে অভিযান চলে জোরেশোরে। কিন্তু রাঘব বোয়াল জালে আটকানোর আগেই শুদ্ধি অভিযান বন্ধ।

সহপাঠী, বন্ধু ও সতীর্থের পৈশাচিকতায় আবরার ফাহাদ নামে ধ্রুবতারার মৃত্যু। পিঠ দেয়ালে ঠেকলে তো ঘুরে দাঁড়াতেই হবে। সাধারণ ছাত্রছাত্রীদের দাবীর কাছে নতি স্বীকার করে পিশাচদের ছাত্রত্ব বাতিল, শিক্ষার হৃতগৌরব পুনরুদ্ধারে বুয়েটে রাজনীতি নিষিদ্ধ।

দেশের সর্বোচ্চ বিদ্যাপীঠগুলোতে দুর্বৃত্তায়ন লালনের কারণে অরাজকতা থেমে নেই মোটেও। মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের নামে ন্যক্কারজনক হামলায় ডাকসু ভিপিসহ ত্রিশ জন রক্তাক্ত।

ব্র্যাকের কর্ণধার, মহান ব্যক্তিত্ব ফজলে হাসান আবেদের মৃত্যু জাতির জন্য অপূরণীয় এক ক্ষতি।

চাঁদ সূর্যকে সামনে ঢেকে ফেললে সূর্যকে রক্তাক্ত আংটির মতো দেখায়, বছরের শেষ প্রান্তে ‘রিং অব ফায়ার’ নামের বলয়গ্রাস সূর্যগ্রহণ দেখা যায় দেশের বেশিরভাগ এলাকায়।

হতাশা, ব্যর্থতা আর কষ্টের গল্প ছাপিয়ে আমাদের প্রাপ্তিগুলোও আশাজাগানিয়া। মধ্যম আয়ের দেশে নারীর ক্ষমতায়ন, জীবনযাত্রার মানোন্নয়নে সূচকের অগ্রগতি অভাবনীয়। লিঙ্গ সমতায় প্রতিবেশি দেশগুলোর চাইতেও এগিয়ে আমরা। বিশ্বের সাথে তাল মিলিয়ে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির বিস্তারে আমাদের জীবনযাত্রা হয়েছে সহজতর। রান্না, চিকিৎসা, ঘর সাজানো, অনলাইন শপিং, বিনোদন, রাইড শেয়ারিং সব কিছুতেই প্রযুক্তির ছোঁয়া। যাই হোক, নতুন বছরে আরো ভালো, আরো উন্নত কিছুর আশায় আজ এই পর্যন্তই।

‘আপনারে লয়ে বিব্রত রহিতে আসে নাই কেহ অবনী পরে’.....খালি দেশের খবরে নিজেকে কেমন স্বার্থপর লাগে। দশের খবর নিয়ে আবার আসিব ফিরে।

শেয়ার করুন

আপনার মতামত দিন