আজ রবিবার, ০১ নভেম্বর ২০২০ ইং

বিপন্ন জাফলংয়ে অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের উৎসব

সিলেটভিউ টুয়েন্টিফোর ডটকম, ২০২০-০৭-০৪ ১১:৫৯:০১

নিজস্ব প্রতিবেদক :: ধ্বংসের হাত থেকে রক্ষায় সিলেটের অন্যতম পর্যটনকেন্দ্র জাফলংকে ‘পরিবেশ সংকটাপন্ন এলাকা (ইসিএ)’ ঘোষণা করা হয় ২০১২ সালে। আর ২০১৭ সালে জাফলংকে ভূতাত্ত্বিক ঐতিহ্য ঘোষণা করে গেজেট প্রকাশ করে বিদ্যুৎ জ্বালানী ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়। কিন্তু এসব ঘোষণা বা উদ্যোগ রক্ষা করতে পারছে না প্রকৃতিকন্যা জাফলংকে। ইসিএভূক্ত এলাকা থেকে পাথর উত্তোলন বন্ধ থাকলেও এখন রাতদিন যন্ত্র বসিয়ে চলছে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন। এনিয়ে পরিবেশবাদীদের মধ্যে ক্ষোভ বিরাজ করছে। পরিবেশ বিধ্বংসী এসব কর্মকান্ডের সাথে জড়িতদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নিয়ে জাফলংকে রক্ষার দাবি জানাচ্ছেন তারা।

স্থানীয় সূত্র জানায়, ইসিএভূক্ত এলাকায় বালু ও পাথর উত্তোলনে নিষেধাজ্ঞা থাকলেও প্রায় একমাস ধরে গোয়াইনঘাটের জাফলংয় নদীতে মেশিন বসিয়ে বিচ্ছিন্নভাবে বালু উত্তোলন চলছিল। গত একসপ্তাহ ধরে জাফলং নদীর কয়েকটি স্থানে প্রকাশ্যে রাতদিন চলছে বালু উত্তোলনের মচ্ছব। উত্তোলিত বালু সড়ক ও নদী পথে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে দেশের বিভিন্ন জেলায়। পরিবেশ বিপন্ন করে যন্ত্রের মাধ্যমে ইসিএভূক্ত এলাকা থেকে বালু উত্তোলন হলেও রহস্যজনক কারণে স্থানীয় প্রশাসন নিরব রয়েছে।

এলাকার লোকজন জানান, এই বালু উত্তোলনের সাথে জড়িত রয়েছে স্থানীয় একটি প্রভাবশালী মহল। রয়েছে কতিপয় রাজনৈতিক নেতার ছত্রচ্ছায়া। শ্রমিক আর ঠিকাদার লাগিয়ে বালু উত্তোলন করলেও প্রভাবশালীরা থেকে যান আড়ালে। একসময় এরাই জাফলংয়ে অবৈধভাবে পাথর উত্তোলনের সিন্ডিকেট নিয়ন্ত্রণ করতো।

পরিবেশবাদীদের অভিযোগ, প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্যরে কারণে জাফলংকে একসময় বলা হতো ‘প্রকৃতি কন্যা’। কিন্তু অতিলোভী পাথর ও বালুখেকোদের কারণে জাফলংয়ের পরিবেশ এখন ধ্বংসপ্রায়। স্থানীয় প্রভাবশালী মহল, কতিপয় রাজনৈতিক নেতা ও প্রশাসনের দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তার কারণে এই চক্রটি দিন দিন বেপেরোয়া হয়ে ওঠেছে। গত প্রায় একবছর ধরে জেলা প্রশাসনের কড়াকড়ির কারণে প্রকাশ্যে পাথর উত্তোলন বন্ধ থাকলেও ফের বালু উত্তোলনে বেপরোয়া হয়ে ওঠেছে পরিবেশ বিধ্বংসী চক্রটি।

এ ব্যাপারে গোয়াইনঘাট থানার ওসি আবদুল আহাদ জানান, জাফলং থেকে বালু উত্তোলনের বিষয়টি তিনি জেনেছেন। উত্তোলনের সাথে জড়িতরা বালু পরিবহনের অনুমতি দেখাতে পারলেও উত্তোলনের কোন কাগজ দেখাতে পারেননি। বালু উত্তোলন বন্ধে কয়েকদিনের মধ্যে বড় অভিযান হবে বলে জানান তিনি।

এদিকে, বালু পরিবহনের অনুমতি থাকার কথা ওসি বললেও বাংলাদেশ পরিবেশ আইনবীদ সমিতি (বেলা) সিলেটের সমন্বয়ক এডভোকেট শাহ শাহিদা আকতার বলছেন, ইসিএভূক্ত এলাকা থেকে বালু-পাথর উত্তোলন ও পরিবহনের কোন সুযোগ নেই। এরকম কোন অনুমতি কেউ দিলে সেটা আদালত অবমাননার শামিল হবে।

সিলেটের জেলা প্রশাসক এম. কাজী এমদাদুল ইসলাম জানান, জাফলং থেকে বালু-পাথর উত্তোলন বন্ধে প্রশাসন কঠোর রয়েছে। প্রশাসনের কঠোর অবস্থানের কারণে জাফলংয়ের পরিবেশ আগের চেয়ে অনেক ভালো হয়েছে। বালু উত্তোলনের বিষয়টি তার জানা নেই। এ ব্যাপারে তিনি খোঁজ নিয়ে ব্যবস্থা নেবেন।

সিলেটভিউ২৪ডটকম/ ০৪ জুলাই ২০২০/ শাদিআচৌ

শেয়ার করুন

আপনার মতামত দিন