আজ মঙ্গলবার, ২২ অক্টোবর ২০১৯ ইং

রাখাইনে ৬ লাখ রোহিঙ্গা গণহত্যার চরম ঝুঁকিতে : জাতিসংঘ

সিলেটভিউ টুয়েন্টিফোর ডটকম, ২০১৯-০৯-১৭ ২২:৪৮:০৩

সিলেটভিউ ডেস্ক :: মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে এখনো ছয় লাখের মতো রোহিঙ্গা মুসলিম গণহত্যার চরম ঝুঁকিতে বলে আশঙ্কা করছে জাতিসংঘ। সংস্থাটির তদন্তকারী একটি মিশন গতকাল সোমবার এক প্রতিবেদনে তাদের এ আশঙ্কার কথা জানিয়েছেন।

জাতিসংঘের তদন্তকারী দল বলছে, বর্তমানে মিয়ানমারের যে পরিস্থিতি, তাতে বিতাড়িত হওয়া ১০ লাখের বেশি রোহিঙ্গার প্রত্যাবাসনের বিষয়টি অসম্ভবই হয়ে আছে। জাতিসংঘের ওই ফ্যাক্ট-ফাইন্ডিং মিশন যে চূড়ান্ত প্রতিবেদনে তৈরি করেছে তা মঙ্গলবার জেনেভায় উপস্থাপন করার কথা রয়েছে।

রোহিঙ্গা নিধন অভিযান নিয়ে জাতিসংঘের মানবাধিকার কাউন্সিল গত বছর একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করে। তাতে ২০১৭ সালে রাখাইনে পরিচালিত দেশটির সেনাবাহিনীর নিধন অভিযানকে গণহত্যা বলে উল্লেখ করে সেনাপ্রধানসহ দেশটির সামরিক কর্মকর্তাদের বিচারের আহ্বান জানায়।

জাতিসংঘের ওই তিন সদস্যের ফ্যাক্ট-ফাইন্ডিং মিশনের চেয়ারম্যান মারজুকি দারুশম্যান গত বছরের প্রতিবেদনের কথা উল্লেখ করেন। যেখানে মিয়ানমার সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে মানবতাবিরোধী অপরাধ এবং যুদ্ধাপরাধের প্রমাণ পাওয়ার কথা জানানো হয়।

মিশনের চেয়ারম্যান মারজুকি দারুশম্যান বলেন, রাখাইনে দেশটির সেনাবাহিনীর একই রকম অপরাধী কর্মকাণ্ড অব্যাহত রয়েছে। ২০১৭ সালের আগস্টে রাখাইনে রোহিঙ্গাদের নিধন অভিযান শুরু করে সেনাবাহিনী। তারপর প্রাণ বাঁচাতে পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে ৭ লাখ ৪০ হাজারের বেশি রোহিঙ্গা।

মারজুকি দারুশম্যান বলেন, ‘আমরা মিয়ানমার সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর ওপর গণহত্যা ও গণহত্যা চালানোর মতো সব অভিপ্রায়ের প্রমাণ পেয়েছি। যুগ যুগ ধরে তারা (মিয়ানমারের নিরাপত্তাবাহিনী) পাশবিক এই অপরাধ করে এলেও তাদের কোনো বিচার হচ্ছে না।’

মিয়ানমার সেনাবাহিনী ও তাদের সহযোগী হিসেবে স্থানীয় উগ্রপন্থী রাখাইন বৌদ্ধরা রোহিঙ্গাদের ওপর ব্যাপক হত্যাকাণ্ড, ধর্ষণ, নির্যাতন, তাদের বাড়িঘর পুড়িয়ে দেয়। বাংলাদেশে এখন মোট রোহিঙ্গা শরণার্থীর সংখ্যা ১১ লাখ ৫০ হাজারেরও বেশি।


সৌজন্যে : জাগোনিউজ২৪
সিলেটভিউ২৪ডটকম/১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯/জিএসি

শেয়ার করুন

আপনার মতামত দিন

সর্বশেষ খবর

  •   জগন্নাথপুর-বিশ্বনাথ সড়কে আবারও ধর্মঘট, এলাকায় মাইকিং
  •   সিলেট বিল্ডিং নির্মাণ শ্রমিক কল্যাণ সংস্থার নির্বাচনী পরামর্শ সভা অনুষ্ঠিত
  •   গুজব হলেও সত্য, পাঁঠার দুধে রোগমুক্তির জাদু
  •   সুনামগঞ্জে নিরাপদ সড়ক চাই দিবসে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত
  •   জগন্নাথপুরে ফাঁদে পড়ে খাঁচায় বন্দি মেছোবাঘ, বন বিভাগে হস্তান্তর
  •   কমলগঞ্জে বিশ্ব হাত ধোয়া দিবস পালিত
  •   মার্কিন রাষ্ট্রদূত আর্ল মিলারের সাথে সিলেট চেম্বার নেতৃবৃন্দের মতবিনিময়
  •   সড়ক দুর্ঘটনার জন্য পথচারীদেরও দায় আছে: প্রধানমন্ত্রী
  •   পরিবারের ২১ জনের মধ্যে পাঁচজন চার পায়ে ভর দিয়ে চলেন
  •   ক্রিকেটাঙ্গনের অস্থিতিশীলতা নিরসনে প্রধানমন্ত্রীর শরণাপন্ন পাপন!
  •   আইয়ুব বাচ্চুর স্মরণে সিলেটের স্টুডিও বেতাল
  •   বড়লেখায় ছাত্র মজলিসের বার্ষিক সহযোগী সদস্য সমাবেশ অনুষ্ঠিত
  •   ক্রিকেটারদের ধর্মঘটে কলকাঠি নাড়ছে কে, খুঁজছে বিসিবি
  •   ছাতকে ভ্রাম্যমাণ আদালতে মাদকসেবীকে কারাদণ্ড
  •   অবশেষে অভিনেতা সিদ্দিকুর রহমানকে ডিভোর্স দিলেন মিম
  • সাম্প্রতিক আন্তর্জাতিক খবর

  •   পরিবারের ২১ জনের মধ্যে পাঁচজন চার পায়ে ভর দিয়ে চলেন
  •   টাকা লুট না করে উল্টো ‘চুমু’ ডাকাতের! ভিডিও ভাইরাল
  •   হেলমেট পরে মোটরসাইকেলে কুকুর!
  •   ২০ ডলার নিয়ে ভারত-পাকিস্তানের বিরোধ
  •   ট্রাম্পকে মাটিতে ফেলে মুখে পা দিয়ে চেপে ধরলেন তিনি!
  •   মসজিদে পুলিশের জলকামান হামলা
  •   সৌদিতে নিহত ওমরাহযাত্রীদের ১২ জন বাংলাদেশি
  •   সীমান্ত শহর থেকে সরে তুরস্কের হাতে নিয়ন্ত্রণ তুলে দিল কুর্দিরা
  •   জম্মু-কাশ্মীরের নেতা ফারুক আবদুল্লার পাশে থাকার আশ্বাস মমতার
  •   ভারতে গরুর পেটে ৫২ কেজি প্লাস্টিক
  •   অ্যাম্বুলেন্স ও কাভার্ড ভ্যানের সংঘর্ষে একই পরিবারের ৯ জন নিহত
  •   এরদোগানের মন্তব্যে ক্ষুব্ধ হয়ে তুরস্ক সফর বাতিল করলেন মোদি
  •   পাল্টাপাল্টি হামলায় ভারতের ৯, পাকিস্তানে ৭ জন নিহত
  •   এলাকা না ছাড়লে কুর্দি গেরিলাদের মাথা গুঁড়িয়ে ফেলব: এরদোগান
  •   আদালতের কাঠগড়ায় ১৩টি টিয়াপাখি