আজ বুধবার, ১২ অগাস্ট ২০২০ ইং

ইসরায়েল-ফিলিস্তিনের সমাধানের পক্ষে যুক্তরাষ্ট্রে প্রস্তাব পাস

সিলেটভিউ টুয়েন্টিফোর ডটকম, ২০১৯-১২-০৮ ১৪:৩৪:৪৭

সিলেটভিউ ডেস্ক :: ইসরায়েল-ফিলিস্তিন সংকট নিরসনে ‘দুই রাষ্ট্র সমাধানের’ পক্ষে যুক্তরাষ্ট্রের কংগ্রেসে নতুন একটি প্রস্তাব পাস হয়েছে। এ ছাড়া পশ্চিম তীরে নতুন কোনো এলাকা দখলের ক্ষেত্রেও ইসরায়েলকে সতর্ক করা হয়েছে ওই প্রস্তাবে।

বিশ্লেষকরা বলছেন, এই প্রস্তাব ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহুয়ার পাশাপাশি মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের জন্যও বড় এক ধাক্কা। কারণ ফিলিস্তিন ইস্যুতে ট্রাম্প বরাবরই ইসরায়েলের চাওয়া-পাওয়াকে প্রাধান্য দিয়ে আসছেন।

গত শুক্রবার কংগ্রেসের নিম্নকক্ষে এই প্রস্তাব পাস হয়। পশ্চিত তীর নিয়ে মার্কিন কংগ্রেসে পাস হওয়া এটিই প্রথম প্রস্তাব। এর পক্ষে ভোট পড়ে ২২৬টি, বিপক্ষে ১৮৮টি। প্রস্তাবে বলা হয়েছে, ‘দুই রাষ্ট্রের ভিত্তিতে সমাধান হলে ইহুদি ও গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র হিসেবে ইসরায়েলের টিকে থাকা নিশ্চিত হবে। অন্যদিকে স্বাধীন রাষ্ট্র গঠনের স্বপ্নও পূরণ হবে ফিলিস্তিনিদের।’

প্রস্তাবে আরো বলা হয়, ‘শান্তিপূর্ণ সমাধানের প্রক্রিয়াকে নষ্ট করে উভয় পক্ষের এমন যেকোনো পদক্ষেপের বিপক্ষে যুক্তরাষ্ট্রের অবস্থান নেওয়া উচিত।’

কংগ্রেসের পররাষ্ট্রনীতি বিষয়ক কমিটির প্রধান ও ডেমোক্র্যাট নেতা ইলিয়ট ইংগেল একজন ইসরায়েল সমর্থক। এই ইস্যুতে ট্রাম্পের সব সিদ্ধান্তেই তাঁর সমর্থন ছিল। তিনি জানান, এই প্রস্তাব পাস হলেও যুক্তরাষ্ট্রের কাছ থেকে প্রতিবছর সামরিক সহায়তা পাবে ইসরায়েল। তবে নিজেদের রাজনৈতিক স্বার্থে যুক্তরাষ্ট্র যেকোনো সময় সিদ্ধান্ত বদলাতে পারবে।

ট্রাম্পের পূর্বসূরিরাও বরাবরই দুই রাষ্ট্রের সমাধানের পক্ষেই ছিলেন। এবং মার্কিন কংগ্রেস এখন পর্যন্ত এই নীতির খুব একটা বিরোধিতা করেনি। তবে রিপাবলিকানদের অভিযোগ, ডেমোক্র্যাটরা প্রায়ই ইসরায়েলের সিদ্ধান্তে হস্তক্ষেপ করেন এবং ফিলিস্তিনিদের উসকানিমূলক কর্মকাণ্ডের ব্যাপারে নীরব থাকেন।

কংগ্রেসে ভোটাভুটির আগে প্রস্তাবটি নিয়ে পার্লামেন্ট বিতর্ক হয়। কেউ প্রস্তাবের পক্ষে অবস্থান নেন, কেউ বিপক্ষে। ডেমোক্র্যাট আইন প্রণেতা জ্যামি রাসকিন বলেন, ‘২০ বছর ধরে যুক্তরাষ্ট্রের সব প্রেসিডেন্ট এবং রাজনৈতিক দলগুলো দ্বি-রাষ্ট্রের ভিত্তিতে সংকট নিরসনের কথা বলছে। মধ্যপ্রাচ্যের শান্তি আলোচনাও দুই রাষ্ট্রের সমাধানের পক্ষে।’

প্রস্তাবের সমালোচনা করেছেন কংগ্রেস সদস্য রশিদা তৈয়ব। ফিলিস্তিনি বংশোদ্ভূত এই আইন প্রণেতা বলেন, ‘এই প্রস্তাব শুধু অবাস্তব একটি সমাধানের পক্ষেই অবস্থান নেয়নি, সেই সঙ্গে বৈষম্যকেও স্বীকৃতি দিয়েছে।’ তিনি আরো বলেন, বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু এবং লিকুদ পার্টি দুই রাষ্ট্র সমাধানের বিপক্ষে তৎপর রয়েছে এবং এটি ধূলিস্যাৎ করতে বিভিন্ন পদক্ষেপ নিচ্ছে।
 
সৌজন্যে :: এএফপি, আলজাজিরা,কালের কণ্ঠ

সিলেটভিউ২৪ডটকম/৮ ডিসেম্বর ২০১৯/মিআচৌ

শেয়ার করুন

আপনার মতামত দিন