আজ বৃহস্পতিবার, ২৩ জানুয়ারী ২০২০ ইং

একসঙ্গে চার বোনের জন্ম, বিয়েও একই দিনে

সিলেটভিউ টুয়েন্টিফোর ডটকম, ২০১৯-১২-১৪ ১৫:৫০:১১

সিলেটভিউ ডেস্ক :: দক্ষিণ ভারতের কেরালা রাজ্যের চার বোন একই দিনে জন্মগ্রহণ করেছিলেন, একই ছাদের নীচে জীবন কাটিয়েছেন। একই রকম পোশাক পরা ছাড়াও ১৫ বছর বয়স পর্যন্ত এক স্কুলে একই সারিতে বসতেন তারা। অবশেষে এই চার বোন একই দিনে বিয়ে করতে যাচ্ছেন।

তবে এই চার বোনের একটি ভাইও রয়েছে। তারা এই পাঁচ ভাইবোন একই সঙ্গে পৃথিবীর মুখ দেখেন। একসঙ্গে জন্ম নেয়া পাঁচ শিশুকে চিকিৎসা শাস্ত্রের ভাষায় বলা হয় কুইন্টুপ্লেটস। জন্মের দিন থেকেই সবার আলাদা নজরে থেকে অভ্যস্ত তারা। স্থানীয় গণমাধ্যমগুলোও তাদের কষ্ট ও দুর্দশাগ্রস্ত জীবনের গল্প নিয়ে নিয়মিত লেখালেখি করতো।বিবিসিকে নিজেদের জীবনের গল্প শুনিয়েছেন উথ্রাজা, উথারা, উথামা, উথ্রা এবং তাদের ভাই উথ্রাজন। তারা পাঁচ ভাইবোন জন্মগ্রহণ করেছিলেন ১৯৯৫ সালের ১৮ই নভেম্বর। আগামী বছরের ২রা এপ্রিল চার বোনের একসঙ্গে একইদিনে বিয়ের পরিকল্পনা করছেন।

উথারা বলেন, ‘আমাদের বাড়িতে বেশিরভাগ কথাবার্তাই এখন বিয়ের বিষয় নিয়ে হয়। আমরা এখনও আমাদের সেই বিশেষ দিনটির জন্য সিল্কের শাড়ি কিনতে পারিনি। তবে আমরা একই নকশা এবং একই রঙের শাড়ি কিনবো।’ তিনি নিজে একজন সাংবাদিক এবং তার হবুও স্বামীও তাই।

বিয়ের পুরো অনুষ্ঠান হবে স্থানীয় রীতি ও ঐতিহ্য অনুসারে। সে হিসেবে এখানে বর-কনে নিজেরা নিজেদের বেছে নেয়ার পরিবর্তে পরিবারের প্রবীণ সদস্যরা এখানে ঘটকের ভূমিকা পালন করেন। এক্ষেত্রে তাদের মা রেমা দেবী বিবাহ ‘ম্যাচমেকিং’ ওয়েবসাইটের মাধ্যমে মেয়েদেরকে নিজেদের স্বামী বাছাইয়ে সাহায্য করেন।

এই ধরনের বিয়ে সাধারণত একই বর্ণ এবং একই অর্থনৈতিক ও শিক্ষাগত যোগ্যতাসম্পন্ন সদস্যদের মেলবন্ধন করে। জ্যোতিষীরা নববধূ এবং কনের রাশিফলগুলো পরীক্ষা করে এবং তাদের পরিবারকে জানায় যে সত্যিই তাদেরকে একে অপরের জন্য তৈরি করা হয়েছে কি-না।

তবে এসব কোনো জোরপূর্বক বিয়ে নয়। বর ও কনেদের নিজেদের মতামত দেয়ার সুযোগ রয়েছে। গত সেপ্টেম্বরে তাদের বাগদান সম্পন্ন হয়, তবে মধ্যপ্রাচ্যে কাজ করার কারণে চারজন বরের মধ্যে তিনজন বাগদানে উপস্থিত থাকতে পারেননি।

দেখতে আলাদা এই চার বোন এখন চেষ্টা করছেন যে তাদের বিয়ের সমস্ত আয়োজন যেন দেখতে একরকম হয়। তারা জন্ম থেকেই সবকিছু একসঙ্গে করে আসছেন, যদিও তারা একে অপরের সঙ্গে প্রতিযোগিতা করতেন এবং এ কারণেই তাদের প্রত্যেকের ব্যক্তিত্ব একজনের থেকে আরেকজনেরটা আলাদা।

উথ্রা, পড়াশোনায় পারদর্শী। উথামার আগ্রহ সংগীতে এবং তিনি বেহালা শিখতে শুরু করেছিলেন, তাদের ভাই উথ্রাজন তবলায় আগ্রহী। উথ্রা ফ্যাশন ডিজাইনিং নিয়ে পড়াশোনা করেছেন। উথ্রাজা আর উথামা অ্যানেসথেশিয়া টেকনিশিয়ান হয়ে উঠেছেন।

যখন তারা নিজেদের জন্য স্বামী খুঁজতে করতে শুরু করেন, উথ্রাজা প্রথমে তার জন্য একজন সঙ্গী খুঁজে পান, তাও সেটা প্রায় এক বছর আগে। তবে তিনি তাড়াহুড়ো না করার সিদ্ধান্ত নেন। উথ্রাজ বিবিসিকে বলেন, ‘আমাদের মায়ের ইচ্ছা যে আমাদের বিয়ে যেন একই দিনে হয়। তাই আমরা অপেক্ষা করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি।’

ভারতীয় হিন্দু রীতিতে বিয়ের আয়োজনে প্রচুর অর্থ ব্যয় হয় এবং অনেক পরিবার এই ব্যয় কমাতে চাচাত ভাই-বোন বা আপন ভাই-বোনদের একই দিনে, একই অনুষ্ঠানে বিয়ের আয়োজন করে। এই মেয়েদের জন্য চারটি আলাদা বিয়ের অনুষ্ঠানের আয়োজন করা তাদের মায়ের পক্ষে আর্থিকভাবে অনেক বড় বোঝা হবে।

তবে বোনরা বলছেন যে, এই যৌথ বিয়ের অনুষ্ঠান আয়োজনের পেছনে তাদের মায়ের জেদ যেমন রয়েছে তেমনি রয়েছে এক রকম সংবেদনশীল অনুভূতি। ভাগ্যক্রমে উথ্রারাজার ক্ষেত্রে, তার হবু স্বামী তাড়াতাড়ি বিয়ের জন্য কোন চাপ দেননি।

তিনি আকাশ কুমারের সঙ্গে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন, যিনি নিজেও একজন অ্যানেসথেশিয়া টেকনিশিয়ান। তবে তিনি কাজ করেন মধ্যপ্রাচ্যে। উথ্রাজা বলেন, ‘আকাশ কুয়েতে যাওয়ার আগে আমরা একই হাসপাতালে কাজ করতাম। আমরা একে অপরকে চিনতাম। পরে তার পরিবার আমার মায়ের কাছে খুশি মনে প্রস্তাব নিয়ে আসে।’

তিনি দেশ ছাড়ার আগে তার বর্তমান চাকরিতে দুই বছরের কাজের অভিজ্ঞতা নিতে চান। তার মানে তিনি তার বিয়ের কয়েক মাস পরে তার স্বামীর সাথে বিদেশে পাড়ি দেবেন। বলেন, ‘এটি কিছুটা কঠিন এবং দুঃখজনক। সাধারণ কিছু ভয় কাজ করে। আমি কখনও বিদেশে যাইনি। আবার একই সঙ্গে বিয়ের কথা ভেবে আমি খুব আনন্দিত।’

উথ্রাজা আশা করেন যে তার পক্ষে কুয়েতে চাকরি পাওয়া সহজ হবে কারণ মধ্যপ্রাচ্যে কর্মরত পুরুষদের সঙ্গে উথ্রা এবং উথামারও বিয়ে হচ্ছে। জীবনের নতুন এক অধ্যায়ে পা রাখা নিয়ে উচ্ছ্বসিত বাকি বোনরা এবং ভাই উথ্রাজনও খুশি।

তবে বিয়ের জন্য এই চারবোনের একমাত্র ভাইয়ের কোনও তাড়াহুড়ো নেই। পারিবারিক জীবন শুরু করার আগে তিনি কয়েক বছর বিদেশে গিয়ে কাজ করতে আগ্রহী। বিয়ের এই পরিকল্পনা পরিবারটিকে তাদের অতীতের বেদনা থেকে বেরিয়ে আসতেও সহায়তা করছে।

তাদের বাবা-মা পৃথিবীর বুকে এমন পাঁচটি শিশু জন্ম দিতে পেরে আনন্দিত ছিলেন। বাড়িতে তারা এই সন্তানের নাম রেখেছিলেন পাঁচরত্ন। বাচ্চারা তাদের পড়াশুনায় ভাল করেছিল তবে তাদের স্বাস্থ্য ঠিক রাখা ছিল এক বিশাল উদ্বেগের কাজ। যাতে শেষ পর্যন্ত সফল হয়েছেন সেই বাবা–মা।

তাদের মা রেমা দেবী অতীতের কথা মনে করে বলেন, ‘তারা প্রত্যেকেই অনেক কম ওজন নিয়ে জন্মগ্রহণ করেছিল। স্বাস্থ্যের অবস্থা খারাপ থাকায় তারা প্রায়শই অসুস্থ হয়ে পড়তো।’ একসঙ্গে পাঁচ সন্তান লালন করতে গিয়ে রীতিমতো সংগ্রাম করতে হয়েছিল তাদের বাবা-মা প্রেমা কুমার এবং রেমা দেবীকে। যার প্রভাব পড়ে রেমা দেবীর স্বাস্থ্যেও।

তাদের সামান্য কিছু জমানো অর্থ ছিল। তারা তাদের সমস্ত শক্তি ও সঞ্চয় ব্যয় করেছেন ছেলেমেয়েদের শিক্ষিত করে তোলার পেছনে। কেননা ভারতীয় উপমহাদেশে ছেলে সন্তানকে বেশি অগ্রাধিকার দেয়ার এক ধরনের প্রোথিত মানসিকতা রয়েছে।

অনেক পরিবারে ছেলেদের বিশেষ অধিকারপ্রাপ্ত সদস্য হিসাবে বিবেচনা করা হয়। তবে বোনরা বলছেন যে তাদের বাবা-মা সবার সঙ্গে সমান আচরণ করেছেন। এমনকি তাদের জন্য একই ধরনের পোশাক কিনতেন। এর ফলে কখনও কখনও বোনেরা তাদের পোশাকগুলো মিলিয়ে ফেলত।

উথারা বলেছেন, ‘এটা কখনই আমাদের মধ্যে কোনও সমস্যা তৈরি করেনি। আমরা একে অপরের পোশাক পরা নিয়ে কিছু মনে করি না।’ এই পরিবারটির এমন সংগ্রাম থেকে স্থানীয় এক চিকিৎসক তাদের থাকার জন্য একটি বাড়ি উপহার দেন যার জন্য তার পরিবারটি আজও গভীরভাবে কৃতজ্ঞ।

রেমা দেবী বলেন, ‘সংকট মানুষের ভেতর থেকে তার সেরা কিছু বের করে আনে। পাঁচজনই স্কুলে অনেক ভাল করেছে এবং তারা নিজেদের বেছে নেয়া বিষয়েই স্নাতক শেষ করেছে। উথারা বলেন, ‘আমাদের মা খুব খুশি। তিনি সব সময় চেয়েছিলেন আমরা যেন আত্মনির্ভরশীল হই।’

প্রয়াত স্বামীর সাথে রেমা দেবী। এক হাতে বাচ্চাদের লালনপালন করতে বেশ কষ্ট করতে হয়েছে তাকে
পরিবারের সদস্যরা হিন্দু ধর্মাবলম্বী। তাই চার বোনের বিয়ে একটি বিখ্যাত মন্দিরে অনুষ্ঠিত হবে। শুধুমাত্র নিকটাত্মীয় এবং বন্ধুদের সেখানে আমন্ত্রণ জানানো হবে। হাতে গোনা কয়েকজন সাংবাদিক আসবেন বলেও আশা করা হচ্ছে। উথারা বলেছেন, ‘সবার নজরে থাকতে পারাটা এক আশীর্বাদ।’

কুইন্টুপ্লেটস (একসঙ্গে পাঁচ সন্তানের জন্মদান) খুব বিরল ঘটনা হওয়ায় গণমাধ্যম এমন ঘটনার ব্যাপারে সাধারণত আগ্রহী হয়ে ওঠে। এই পাঁচ ভাই-বোনের যেদিন জন্ম, যেদিন তারা প্রথম স্কুলে যায় এবং যেদিন তারা স্কুল শেষ করে সব কিছু স্থানীয় গণমাধ্যমের খবরে প্রকাশিত হয়েছিল।

তবে চার বোন জানিয়েছেন, তারা নিজেদের সর্বোচ্চটা দিয়ে মায়ের পাশে থাকবেন। তারা আরও জানায় যে তারা কখনও একে অপরকে ছেড়ে যাবে না। উথ্রা বলেন, ‘আমরা যখন বিভিন্ন স্থানে বসবাস করতে শুরু করবো তখনও আমরা সবসময় আবেগের দিক থেকে একসঙ্গে থাকবো এবং একে অপরের কথা ভাবব।’

সৌজন্যে : বিডি-প্রতিদিন

সিলেটভিউ২৪ডটকম/১৪ ডিসেম্বর ২০১৯/মিআচৌ

শেয়ার করুন

আপনার মতামত দিন

সর্বশেষ খবর

  •   নগরীর টিলাগড়ে সিসি ক্যামেরার অযত্ন
  •   আত্মাহত্যার আগে বউ-শাশুড়িকে উদ্দেশ্য করে হবিগঞ্জের কুদ্দুসের স্ট্যাটাস
  •   জাহাজের পোড়া মবিল বিদেশি সরিষার তেল বলে বিক্রি!
  •   ইসরায়েলের বিরুদ্ধে শক্ত ব্যবস্থা চায় বাংলাদেশ
  •   ‘হতাশা’ থেকেই নিজের বুকে গুলি করলেন পুলিশের নায়েক হবিগঞ্জের কুদ্দুস
  •   সাংবাদিক রুমেল আলীর পিতার মৃত্যুতে ফেঞ্চুগঞ্জ প্রেসক্লাবের শোক
  •   গোয়াইনঘাট সরকারি কলেজের রজতজয়ন্তী অনুষ্ঠানে নেতৃত্ব দিচ্ছেন যারা
  •   ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে নিজের বুকে গুলি করলেন পুলিশ
  •   মনির আহমদ একাডেমিতে বঙ্গবন্ধু-প্রধানমন্ত্রীর চেয়ে বড় চেয়ারম্যান!
  •   সিলেটজুড়ে মানবতার আলোকবর্তিকার মহিমান্বিত নাম
  •   গোয়াইনঘাটে বাকাসের কর্মবিরতি অব্যাহত
  •   দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ৬ ডিগ্রিতে শ্রীমঙ্গল
  •   বিচারক নিয়োগে নারী কোটা বাতিল
  •   করোনা ভাইরাসে মৃত ১৭, ছড়িয়ে পড়ে ৭টি দেশে, বিশ্বজুড়ে শঙ্কা
  •   ফের জেলের জালে ৮ মণ ওজনের ‘পানপাতা’ মাছ
  • সাম্প্রতিক আন্তর্জাতিক খবর

  •   করোনা ভাইরাসে মৃত ১৭, ছড়িয়ে পড়ে ৭টি দেশে, বিশ্বজুড়ে শঙ্কা
  •   মোদির ভারতীয় নাগরিকত্বের নথি দেখতে চেয়ে আবেদন
  •   নাগরিকত্ব আইন সাংবিধানিক বেঞ্চে পাঠাল ভারতীয় সুপ্রিমকোর্ট
  •   সোলাইমানির জানাজায় মার্কিন ষড়যন্ত্র ব্যর্থ হয়েছে: রুহানি
  •   খালি চোখে সূর্যগ্রহণ দেখে আংশিক অন্ধত্বের পথে ১৫ কিশোর-কিশোরী
  •   পারমাণবিক চুক্তি থেকে বেরিয়ে যাওয়ার ইঙ্গিত ইরানের
  •   পৃথিবীকে ঘিরে ফেলেছে অস্ট্রেলিয়ার দাবানলের ধোঁয়া
  •   বিশ্বব্যাপী আতঙ্ক ছড়ানো কি এই করোনা ভাইরাস?
  •   যে দুই অভিযোগে অভিশংসনের মুখে ট্রাম্প
  •   সিরিয়ায় মার্কিন বিমান হামলা, নিহত ৪০
  •   মসজিদে মাইক ব্যবহার চলবে না : ভারতের আদালত
  •   যতই আন্দোলন হোক এক পা পিছু হটব না : অমিত শাহ
  •   বিয়ের আগ মুহূর্তে পাত্রের বাবার সঙ্গে পালিয়ে গেলেন পাত্রীর মা!
  •   চীনে নিষিদ্ধ হচ্ছে প্লাস্টিক
  •   যে ড্রোন শুধু চীনের আছে