আজ বৃহস্পতিবার, ২২ অক্টোবর ২০২০ ইং

আসাম হবে দ্বিতীয় কাশ্মীর!

সিলেটভিউ টুয়েন্টিফোর ডটকম, ২০২০-০৯-২৫ ১১:২৭:২৬

সিলেট ভিউ ডেস্ক : আসামে কংগ্রেস এবং পারফিউম সম্রাট বদরুদ্দীন আজমলের নেতৃত্বাধীন মুসলিম সংগঠন অল ইন্ডিয়া ইউনাইটেড ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট (এআইইউডিএফ) ঐক্যবদ্ধ হয়েছে। আগামী কয়েক দিনের মধ্যেই তারা বিজেপির  বিরুদ্ধে নতুন জোটের ঘোষণা দিচ্ছেন। এই প্রেক্ষাপটে লোকসভায় আসামের বিজেপি সাংসদ দিলীপ শইকীয়া, তার দলের ভাষায়, মঙ্গলবার বোমা ফাটিয়েছেন। এই বোমা হলো, তিনি তথ্য দিয়েছেন, আসামের ৮২ আসনে  মুসলমান জনসংখ্যা বেড়েছে কুড়িহাজার করে বেশি। তার দাবি আসামের মুসলিম জনসংখ্যা যে হারে বেড়েই চলছে, সেটা অত্যন্ত উদ্বেগের।

কয়েক দশক ধরে সেখানে একটি গুরুতর উদ্বেগের বিষয় হল, প্রতিবেশী বাংলাদেশ থেকে আসা অবৈধ অভিবাসন। আসাম, বাংলাদেশের সাথে প্রায় ৯০০ কিলোমিটার (৫৬০ মাইল) দীর্ঘ সীমান্ত ভাগাভাগি করে।  হিন্দু ও মুসলমান উভয়েই এই সীমান্ত অতিক্রম করে যাতায়াত করে থাকে। আসামে মুসলমান জনসংখ্যার হার এখন ৩৪ শতাংশ । মোট জনসংখ্যার ৩৪ শতাংশ মুসলমান । আগামী ২০২১ সালের আদমশুমারিতে এই সংখ্যাটা ৩৫ শতাংশ ছাড়িয়ে যাবে বলে তিনি মন্তব্য করেন । তার কথায়, আসাম হতে চলেছে দ্বিতীয় কাশ্মীর ।

লোকসভায় তিনি বলেছেন, একটি বিশেষ স¤প্রদায়ের সংখ্যা বৃদ্ধি হলে আসাম কাশ্মীরের পর দ্বিতীয় মুসলিম রাজ্যে পরিণত হবে । তাই এখন থেকেই প্রতিরোধমূলক পদক্ষেপ নিতে হবে । তিনি বলেন, জনসংখ্যা নীতি কঠোরভাবে প্রয়োগ না করলে শুধু আসাম নয়, পশ্চিমবঙ্গসহ দেশের অন্যগুলো মুসলিম জনসংখ্যা বৃদ্ধি পাবে । একটি সমীক্ষার তথ্য তুলে ধরে তিনি বলেন, আসামের ১২৬ বিধানসভা আসনের মধ্যে মুসলিম জনসংখ্যা অস্বাভাবিক ভাবে বেড়ে যাচ্ছে।

গত পাঁচ বছরে ১২৬টির মধ্যে ৮২টি আসনের প্রতিটিতে মুসলিম জনসংখ্যা কুড়িহাজার করে বৃদ্ধি পেয়েছে । আসামে জনবিন্যাস পাল্টে যাওয়ার সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে বলেও তিনি মন্তব্য করেন । তার কথায় অতি শীঘ্র জনসংখ্যা নীতি প্রয়োগ না করলে আসামের অবস্থা কাশ্মিরের মত হবে ।  এই অবস্থা থেকে নিস্তার পেতে প্রয়োজনে কঠোরভাবে জনসংখ্যা নীতির প্রয়োগ করতে হবে।

উল্লেখ্য, আসামে এই উত্তেজনার অন্যতম কারণ হল এই রাজ্যটি ভারতের অন্যতম জটিল ও বহু-জাতির রাজ্য। অসমীয়া এবং বাংলাভাষী হিন্দুরা এখানে উপজাতিদের মধ্যে বসবাস করেন। রাজ্যটির এক-তৃতীয়াংশ জনগোষ্ঠী মুসলমান, সংখ্যার হিসাবে যা প্রায় তিন কোটি বিশ লাখ। ভারত নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরের পরে আসামেই দেশটির দ্বিতীয় সর্বোচ্চ সংখ্যক মুসলমান বসবাস করে। এটি ভারতের অন্যতম অস্থিতিশীল এবং গোলযোগপূর্ণ রাজ্যগুলোর মধ্যে একটি। উত্তর-পূর্বাঞ্চলের চারটি রাজ্যকে আসাম থেকে বের করে আনা হয়েছে এবং সেখানে বসবাসকারী তিনটি আদিবাসী গোষ্ঠী আলাদা হয়ে তাদের নিজস্ব রাজ্য গঠন করতে চায়।

আসাম কংগ্রেসের নেতৃত্বে নতুন মুখ এসেছে। সবাই সাজ সাজ রবে আছেন। বিরোধী দল চাঙ্গা হচ্ছে। আজমল সাম্প্রতিক বছরগুলোতে বিরাট ক্যারিশমা দেখিয়েছেন। কিছুদিন আগেই লোকসভার একটি  আসন খালি হয়েছিল। কংগ্রস এবং তার দলের ঐক্যবদ্ধ প্রার্থী জয়ী হয়েছেন।


সিলেট ভিউ ২৪ ডটকম/ ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২০/পিটি

শেয়ার করুন

আপনার মতামত দিন