আজ মঙ্গলবার, ১৫ অক্টোবর ২০১৯ ইং

অজানা গুণবতি দণ্ডকলস

সিলেটভিউ টুয়েন্টিফোর ডটকম, ২০১৯-০৮-০৬ ১৯:২২:৩১

ওমর ফারুক নাঈম, নিজস্ব প্রতিবেদক :: সড়কের ধারে বিভিন্ন ফসলের জমিতে দেখা যায়। প্রাকৃতিকভাবে জন্মে এই উদ্ভিদটি। এর সাদা ফুল মুখে নিলে মিষ্টি স্বাদ অনুভূত হয় আর পাতা তেঁতো স্বাদ যুক্ত। আঞ্চলিক ভাষায় বিভিন্ন নামে ডাকা হয়। এই ছোট গুল্ম জাতীয় গাছটিকে কোনো এলাকায় বলা হয় মধু গাছ আবার কোথাও কানশিকা। তবে এই গাছের আসল নাম দণ্ডকলস।

দিন দিন কমে যাচ্ছে এই উদ্ভিদটি। আগে ব্যাপক হারে সড়কের ধারে পতিত জমিতে বিভিন্ন ফসলের বাগানে দেখা গেলেও এখন তেমন দেখা যায় না। সম্প্রতি মৌলভীবাজারের মুটুকপুর এলাকায় দেখা যায় এই গুল্মজাতীয় উদ্ভিদ দণ্ডকলসের। দণ্ডকলস উদ্ভিদ এ রয়েছে নানা ঔষধি গুণ। এর পাতার রস তেঁতো হলেও ফুলের মধু মিষ্টি স্বাদের।

সর্দি ও কাশি হলে এই গাছের পাঁতা সিদ্ধ করে কালোজিরা দিয়ে খেলে উপশম হয়। কাশি হলে দণ্ডকলসের পাতা ও শিকড় রস করে আদাসহ গরম পানি দিয়ে খেলে কাশি কমে যায়।

ছোট বাচ্চাদের যদি দীর্ঘ সময় সর্দি থাকে তাহলে এই গাছের ফুল তুলে সেই ফুল মায়ের বুকের দুধের সাথে কচলিয়ে সেই দুধ খাওয়ালে সর্দি ভাল হয়ে যায়। পাতা বেটে রস করে মায়ের দুধের সাথে মিশিয়ে মাথার তালুতে দিয়ে রাখলেও সর্দি কমে যায়। বাচ্চাদের কৃমি হলে দণ্ডকলসের পাতা রস করে ১ চামচ করে ৪-৫ দিন খাওয়ালে কৃমি মরে যাবে।

চুলকানি রোগেও কাজ করে দণ্ডকলস। এর পাতার রস কাঁচাহলুদের রস ও নারকেল তেল মিশিয়ে শরীরে মেখে রোদে শুকিয়ে গোসল করলে উপকার পাওয়া যায়।

শিশুদের পাতলা পায়খানা হলে এই পাতার রস করে খাটি মধু মিশিয়ে দুই তিন দিন খাওয়ালে উপকার পাওয়া যায়। চুলকানি হলেও এই পাতার রস কাঁচাহলুদের রসের সাথে নারকেল তেল মিশিয়ে শরীরে মাখিয়ে কিছুক্ষণ রোদে শুকিয়ে গোসল করলে ভাল উপকার পাওয়া যায়। এই ভাবে এক সপ্তাহ পর্যন্ত লাগাতে হবে। দণ্ডকলস গাছের উচ্চতা ১ থেকে দের মিটার উচ্চতা সম্পন্ন হয়। বেশির ভাগ ক্ষেত্রে কয়েকটি গাছ একত্রে জন্মে ঝোপালো ভাবে। গাছের কাণ্ড শাখা প্রশাখা সবুজ ফুলের রঙ সাদা। সারা বছরই এ গাছ দেখতে পাওয়া যায় ফুল ফোঁটার আদর্শ সময় মার্চ ও এপ্রিলে।

উদ্ভিদবিদ্যা বিভাগের শিক্ষক রোকশানা আক্তার বলেন গুল্ম জাতীয় উদ্ভিদ দণ্ডকলস একসময় গ্রামীণ চিকিৎসায় ব্যাপকহারে ব্যবহার হতো এখনও হারবাল ওষুধ তৈরিতে এগুলো ব্যবহার হয়। নতুন প্রজন্মের অনেকেই এই গাছগুলো সম্পর্কে জানে না। ঔষধি গুণ সমৃদ্ধ এই গাছগুলোর  বংশবৃদ্ধি ও রক্ষা করা দরকার বলে জানান তিনি।
মৌলভীবাজার পরিবেশ সাংবাদিক ফোরামের সভাপতি সৈয়দ মহসীন পারভেজ বলেন, “দিন দিন কমে যাচ্ছে এই উদ্ভিদটি। আগে ব্যাপক হারে সড়কের ধারে, মেঠো পথে, পতিত জমিতে আর বিভিন্ন ফসলের বাগানে এই গাছ দেখা যেত। কিন্তু এখন দণ্ডকলস আর তেমন দেখা যায় না।
তিনি বলেন, “দণ্ডকলসের গুণ না জানার কারণে আমাদের কাছে এর কদর নেই। কিন্তু গ্রামীণ জনপদে এখনো এই গুল্ম জাতীয় উদ্ভিদটির ব্যবহার দেখা যায়”।

সিলেটভিউ২৪ডটকম/০৬ আগস্ট ২০১৯/ওএফএন/জিএসি

@

শেয়ার করুন

আপনার মতামত দিন

সর্বশেষ খবর

  •   হবিগঞ্জে পুলিশের সাথে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ ডাকাত সর্দার নিহত
  •   সম্রাট ও আরমানকে আদালতে হাজির করা হবে আজ
  •   হাসপাতালের বিল দেখে চারতলা ভবন থেকে ঝাঁপ দিলেন রোগী
  •   সকলের হাত পরিষ্কার থাক !
  •   বালাগঞ্জের আব্দুল লতিফ (লতিফ ড্রাইভার)’র ইন্তেকাল
  •   হাফিজ সিরাজুল ইসলামকে শামছুল উলামা পরিষদের আর্থিক সহায়তা প্রদান
  •   সিলেটে বাঁশি প্রশিক্ষণ কর্মশালা শুরু বৃহস্পতিবার
  •   কমলগঞ্জে দিনব্যাপী চক্ষু শিবির
  •   বিশ্বনাথে পুষ্টি সমন্বয় কমিটির সভা
  •   বিশ্বনাথে যুক্তরাজ্য যুবলীগ নেতা খছরু মিয়া সংবর্ধিত
  •   সিলেটে লেবু জাতীয় ফসল প্রকল্প বিষয়ে কৃষিবিদদের আঞ্চলিক কর্মশালা
  •   চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ায় শেরীনকে প্রবাসীর অভিনন্দন
  •   মৌলভীবাজার শিল্পনগরী পরিদর্শনে বিসিক সচিব
  •   কাতারে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে জুড়ীর জুনেদের মৃত্যু
  •   লংকাবাংলা ফাইন্যান্স সিলেট ব্রাঞ্চের উদ্যোগে এতিম শিশুদের খাবার বিতরণ
  • সাম্প্রতিক লাইফস্টাইল খবর

  •   যেসব লক্ষণে বুঝবেন আপনার প্রস্রাবে ইনফেকশন
  •   রং ফর্সাকারী ক্রিমে ক্যান্সারের ঝুঁকি, যুক্তরাজ্যে সতর্কতা
  •   বিশ্ব হার্ট দিবস: হার্ট সুস্থ রাখতে দেবী শেঠির ১০ পরামর্শ
  •   যা খেলে ভালো হবে গ্যাস্ট্রিক
  •   প্রতিদিন ডাবের পানি খেলে কী উপকার হয়
  •   রোগ থেকে সেরে ওঠার পর স্বাভাবিক পর্যায়ে ফিরে আসতে করণীয়
  •   রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে পেয়ারা
  •   সেলফির কারণে দ্রুত ছড়াচ্ছে উকুন!
  •   ভাত খেয়েও ওজন নিয়ন্ত্রণ
  •   পাইলস থেকে মুক্তি পেতে করণীয়
  •   দিনে ৯ ঘণ্টার বেশি বসে কাজ করলেই অসময়ে মৃত্যু
  •   মাইগ্রেনব্যথায় যেসব খাবার ভুলেও খাবেন না
  •   ডায়াবেটিস কমাবে যে সবজি
  •   ডেঙ্গু জ্বর হলে যে ফলগুলো খাবেন
  •   যাদের ওপর কোরবানি ওয়াজিব