আজ বুধবার, ২১ অগাস্ট ২০১৯ ইং

নুসরাতের অবলা ইচ্ছেগুলো

সিলেটভিউ টুয়েন্টিফোর ডটকম, ২০১৯-০৪-১৬ ১২:২০:০৭

:: ড. মো. নিজাম উদ্দিন ::

যদি একটু সময় দাও, হাজারো তোমাদের সন্মিলনে
বলবো কিছু ইচ্ছের কথা, এই বিদায় বেলায় 
অপূর্ণ আক্ষেপ মালা, আমার অন্তিম কায়ায়…

আমার খুব ইচ্ছে ছিলো দুলবো দোলায়, কাশবনের পাশে বিকেল বেলায় 
হাসবো সরষে ফুলের মত, মাথা উঁচু রবে সূর্যমুখীর মত
জড়াবো কোকিলের কুহুতানে, বৃষ্টি-নদীর কলতানে
খুব ইচ্ছে ছিলো নাইতে পুকুর জুড়ে, গাইতে নদীর তীরে
হারাতে তোমাদের ভীড়ে স্বপ্ন মায়ায়…

ইচ্ছে ছিলো বাবার পকেট মেরে আইসক্রীম খেতে
মা’ নানী বাড়ি গেলে, তার যত্নে রাখা নীল শাড়িটা পরে
বান্ধবীদের সাথে ঘুরতে …

ইচ্ছে ছিলো একদিন মাদ্রাসা ফাঁকি দিয়ে
সব রান্না, ঘরের কাজ একা করতে, মা’র যে অনেক কষ্ট হত – তাই
বাবা বলতো রেগে, এ কেমন তর রান্না-
লবন বেশি, ঝাল কম ইত্যাদি ইত্যাদি- যত
জানতে পেরে সত্যটা, এক নিমিষেই হয়ে যেতো শ্রেষ্ঠ অভিনেতা
যেন এমন সুস্বাদু রান্না, আর খায়নি কখনো
হতে পারেনা, হয় না…

আচ্ছা, তোমরা এত তাড়াহুড়ো করছো কেন
শুনতেই চাচ্ছো না আমার ইচ্ছেগুলো
আমিতো চলেই যাচ্ছি, আরতো কখনো ফেরা হবে না
একটু অপেক্ষা করো, বাবাকে বলো
জানাজা না হয়, একটু পিছিয়ে দিক-
বাবাই তো পড়াবে, তাইনা...

বিকেল সাড়ে পাঁচটা, সুর্যটা কেন জানি দ্রুতই ডুবে যাচ্ছে
তোমাদের ও বুঝি অনেক তাড়া, ঘরে ফেরার-
একটু দাঁড়াও, আমাকে আঁধারেই তো রেখে যাবে
বাবাকে আরও কিছুটা সময় দেখি, ভাইয়ার মলিন মুখটা
মা’ কেন আসেনি...
ইচ্ছে ছিলো বড় ডাক্তার হবো, মানুষের সেবা করবো
একদিন সেই ইচ্ছেতে পরবর্তন হলো
শিক্ষক হবো, শিক্ষক হয়ে মানুষ গড়বো-
মানুষ ডাক্তার, মানুষ ইঞ্জিনিয়ার, মানুষ শিক্ষক বানাবো-
কি হবে আমার ইচ্ছেটার, কেন ইচ্ছেটার অপমৃত্যু হলো

কেন কিছু সস্তা-বস্তাপচা মানুষের (!) জন্য, আজ কুলষিত হলো এ পেশা
মহানুভবতাই যেখানে ব্রত, সম্প্রদানই দানই যেখানে উদাহরণ…

একটা জাল বুনার খুব ইচ্ছে ছিলো, যেখানে ছাঁকা যাবে- মানুষ
অধম, নিম্ন মধ্যম, মধ্যম, উচ্চ মধ্যম – উত্তম
কে জানতো, আমি নিজেই আজ সে জাল বনে গেলাম…

ইচ্ছে ছিলো মা’-বাবা অসুস্থ হলে, ওদের পাশে থাকার-
আবার ছোট্টটি হয়ে, বাবার কাঁধে উঠার
কি  নিয়তি, আজ সেই কাঁধেই – আমি
পরম মমতায় বাবা-ভাইয়ের কাঁধেই শেষ যাত্রা, অনন্ত পথচলা...

আচ্ছা ভাইয়া, সাদা পোশাকে, আমাকে কি খুব সুন্দর দেখাচ্ছে
বিয়ের শাড়িতেও কি এমন লাগতো
খুব জানতে ইচ্ছে করে, তুমি আমার বিয়েতে কি করতে, কি উপহার দিতে-
নাকি বউ সাজে বিদায়ে, ঠিক আজকের মতই কাঁদতে-
পার্থক্য- কোনটি আনন্দের, কোনটি কষ্টের...

মা’ আমাকে বুড়ি বলেই ডাকতে
আচ্ছা, আমি কি বুড়ি ছিলাম নাকি!
তুমি কি মা’ জেনে বুঝেই ডাকতে সে নাম
জানতে এ বুড়ি অনেক বুড়িয়ে গেছে, বিদায় নেবে শিগগিরই...

মা’, ওগো মা, তুমি আমাকে  সেবার না হয় খুকী বলেই ডেকো-
আবার তোমার কোল জুড়ে জন্মাবো যখন – নতুন কেউ হয়ে-
বাবাকে বলো আমাকে যেন তার বুকের উপড় ঘুমাতে দেয়-
ঘুম না এলে তুমি ও দিও, আমার মাথায় হাত বুলিয়ে
মিষ্টি মায়ায় সেই ঘুম পাড়ানি মাসি পিসির ছড়াটি শুনিও
আমি আবার এলে কিন্তু, খুকীর সাথে নুসরাত নামটাও রেখো
সবাইকে তো জানতে হবে- আমি ফিরে এসেছি
এসেছি আজকের অবেলায় বিদায়ী নুসরাতের ইচ্ছে পূরণ করতে
মানুষদের মাঝে একজন মানুষ হতে...

শেয়ার করুন

আপনার মতামত দিন

সর্বশেষ খবর

  •   ২১ আগস্ট স্মরণে সিলেট মহানগর মহিলা আ.লীগের সভা
  •   বাংলাদেশি সিনেমায় কত পারিশ্রমিক নিচ্ছেন সানি লিওন?
  •   সিলেটে ‘ওয়ান্ডার ফুড’কে বড় অঙ্কের জরিমানা
  •   কানাইঘাটে পাঁচ মাস পর কবর থেকে তোলা হলো লাশ
  •   বাংলাদেশে মুক্তি পাচ্ছে জয়া ও জিতের সিনেমা
  •   এক গানেই ২ কোটি টাকা পারিশ্রমিক নিলেন জ্যাকলিন
  •   বিশ্বনাথে আ’লীগের দোয়া মাহফিল
  •   সিলেটে জন্মাষ্টমী উপলক্ষে দু’দিনব্যাপী অনুষ্ঠান
  •   ওয়ানডে ক্রিকেটে সর্বকালের সেরা অধিনায়ক একাদশ
  •   স্পেন আ.লীগের শোক সভায় নেতাকর্মীদের হট্টগোল, বাকবিতন্ডা
  •   ইতালির প্রধানমন্ত্রীর পদত্যাগ : এখন কী ঘটতে পারে?
  •   সিলেট জেলা কর আইনজীবী সমিতির শোক দিবসের সভা
  •   জগন্নাথপুরে ভয়াল ২১ আগস্ট উপলক্ষে আওয়ামী লীগের সভা
  •   জগন্নাথপুরে ধান বিক্রির ধুম, ব্যাংকে কৃষকদের হয়রানির অভিযোগ
  •   শিলংয়ে সম্মেলন শেষে দেশে ফিরলেন বাংলাদেশের প্রতিনিধি দল