আজ শনিবার, ২৮ নভেম্বর ২০২০ ইং

মুক্তিযোদ্ধা এখনো মুক্তিযুদ্ধে

সিলেটভিউ টুয়েন্টিফোর ডটকম, ২০২০-০৭-১৫ ২২:৫৮:৫০




|| ড. নিজাম উদ্দিন স্বপন ||

এইতো আর ক’টা দিন মাত্র,
তোমাদের পাওয়া যাবে বাক্সবন্দী পেনড্রাইভে, ইউটিউবে
কাঁচের ফ্রেমে বাঁধা, ফুলের মালায় সাধা,
কত শত কথার বাহারে রাঙানো হবে,
কত বাহানায় তোমাদেরকে সাজানো হবে মহামানব।


অথচ আজ যারা শেষ ক’টা দিন বেঁচে আছে,
তাঁদের অনেকে অসহায়, কেউ ভিক্ষা পর্যন্ত করে,
কেউবা পথে পথে ঘোরে, ঘর না থাকার কষ্টে,

অথচ তোমরা আমাদের জন্য একটা নিরাপদ,
নির্ঝঞ্জাট আবাস দিয়ে গেলে, একটা মানচিত্র দিলে।
বুকের তাজা রক্ত ঢেলে দিয়েছিলে কার জন্যে?
কিসের তাগিদে বাসর ঘর ফেলে যুদ্ধে ঝাপিয়ে পড়েছিলে?
মা’র বারণ সত্ত্বেও বাংলা মায়ের টানে আত্মাহুতি দিয়েছিলে!
বোন বিধবা হবে জেনেও-
বোনজামাইকে সাথে নিয়ে রাইফেল তুলে নিয়েছিলে কাঁধে।

পাক মেজর যখন নতুন বউ এর দিকে খারাপ দৃষ্টিতে তাকালো,
তুমি মৃত্যু ভয় ফেলে হুঙ্কার দিয়েছিলে,
হানাদারের বুলেট তোমার তাজা রক্ত ঝরালো,
তারপরেও কি তোমার সদ্য বিধবা বউ কে বাঁচাতে পেরেছিলে?
অসংখ্য বীরাঙ্গনার ত্যাগ এ জাতি ভুলবে কি করে?

ব্রিজ নিজের কাঁধের উপর ভেঙ্গে পড়বে জেনেও ধ্বংস করেছিলে।
মৃত্যুতে কি স্বাধ পেয়েছিলে? বলো! মনে কি পড়েনি মা-বোনকে?

সেদিন দেখলাম রাস্তায় বৃদ্ধ এক হকার,
বললেন মুক্তিযোদ্ধা ছিলেন, আমি প্রতিবাদ করলাম-
আপনি এখনো যোদ্ধা, একজন মুক্তিযোদ্ধা।
মুক্তিযোদ্ধা কখনো অবসর নেয় না।

আমার অফিসের এক পিয়ন ছিল, মুক্তিযোদ্ধা
তাঁর চোখের দিকে তাকালে শ্রদ্ধায় মাথা নত হয়ে যেত
গর্বে বুক ফুলে উঠতো,
যে চেয়ারে বসে আছি নিশ্চিন্তে সেতো তাঁর-ই দান।

সময় ফুরিয়ে যাচ্ছে,
বিদায় নিচ্ছে মহামানবরা এক এক করে, অভিমান নিয়ে,
গল্প তৈরি হচ্ছে আমাদের নাতি নাতনীদের জন্য!
ডকুমেন্টারি বানানো হচ্ছে!
বাস্তবে নয়, সম্মান দেবার জন্য ভার্চুয়াল জগতে!

তাঁরা আজ অবহেলিত-অনাদৃত,
এখনো কেউ কেউ ঘুমায় ফুটপাতে,
ক্ষুধার রাজ্যে এখনো হাত পাতে,
তাঁদের দানে ধন্য এ স্বাধীন (!) দেশে,
যেথায় ঘুরছি রাজার বেশে,

এসো আমরা তাঁদের তরে পাতি হাত,
খুঁজে দিতে তাঁদের স্বপ্নিল প্রভাত,
মুকুটে সাজাই সত্যিকারের রাজাধিরাজ,
যাঁদের জন্য আমরা এখানে স্বাধীন আজ।


@

শেয়ার করুন

আপনার মতামত দিন