আজ শুক্রবার, ০৭ অগাস্ট ২০২০ ইং

পজিটিভের নেগেটিভ!

সিলেটভিউ টুয়েন্টিফোর ডটকম, ২০২০-০৭-১৯ ০১:২৪:০৫

আহমদ সাঈদ সালমী :: রাজিব এর মোবাইলে সকালে একটা এসএমএস আসলো। মেসেজ টি পড়েই সে কয়েকদিনের টেনশন আর ভয় থেকে মুক্তি পেলো। ওর করোনা টেস্ট এর রেজাল্ট নেগেটিভ!

কয়েকদিন আগে কিছু করোনা উপসর্গ থাকায় তড়িঘড়ি করে এলাকার একটি প্রাইভেট হাসপাতালে টেস্ট করিয়েছিলো। তারা বেশ তড়িৎ গতিতেই রেজাল্ট জানিয়েছে এজন্য মনে মনে ধন্যবাদ দিলো ওদের। ও বাড়ী যাবে তাই টেস্ট করানোটা জরুরী ছিলো।
পরের দিন ই বাড়ীর উদ্দেশ্যে রওয়ানা হলো রাজিব। লকডাউন এ শহরে আটকা পড়েছিলো আর অফিসও ছাড়ছিলো না। এখন কয়েকদিন ছুটি পেয়েছে তাই নিশ্চিন্তে নিজের মাটি, পরিবারের কাছে ছুটলো।

বিকেলের দিকেই বাড়িতে পৌছালো।অনেকদিন পরে বাড়ী ফিরছে বলে পরিবারের সবার সে কি আয়োজন। সবচেয়ে ছোট সদস্য সে, আদর -কদর তাই একটু বেশী।এসেই বাবা-মা, ভাই সবাইকে জড়িয়ে ধরে সে কি আনন্দ! সবাই তাকে জিজ্ঞেস  করছিলো শরীর ভালো আছে কি না সে বললো "আরে হ্যা এখন আমি পুরোপুরি সুস্হ, সাথে মেসেজ ও আছে।
সবাই মিলে খুব হাসা হাসি আর আনন্দে রাতের খাবার খেলো।গল্প আড্ডা যেনো আর শেষই হতে চায়না! অবশেষে মা বাবা কে রুমে দিয়ে নিজের ঘরে আসলো।

রুমে এসে ফেবুর টাইমলাইন এ ঢুকতেই বুকের ভিতরটা মোচড় দিয়ে উঠলো! চোখে অন্ধকার দেখতে লাগলো।
খবরের শিরোনাম দেখাচ্ছে - ওর করা করোনা টেস্টের হাসপাতাল টি ভুয়া রিপোর্ট প্রদানের দায়ে অভিযুক্ত!! ওদের দেয়া সবগুলো রিপোর্টই ভূল এবং পরীক্ষা না করে দেয়া!!

পৃথিবীর সমস্ত দায় যেনো এসে রাজীবের বুকে বিধছে। যদি ও পজিটিভ হয়ে থাকে তাহলে তো শুধু ওর কারণে আজ পুরো পরিবার এক্সপোজ্ড!!বাসায় বয়স্ক বাবা - মা, বড় ভাইয়ের একটা ছোট বাচ্চা ও আছে!
সে বুঝতে পারলো আমরা মানুষ কতোটা অসহায়।

সৃষ্টিকর্তার উদ্দেশ্যে শুধু দুহাত তুলে কাদতে কাদতে আকুতি করতে লাগলো- "আমাদের শেষবারের মতো ক্ষমা করে দাও, হে প্রভু, হে মহাপরাক্রমশালী"। সৃষ্টিকর্তা যেনো আমাদের সবাইকে শেষবারের মতো ক্ষমা করে দেন।

শেয়ার করুন

আপনার মতামত দিন