আজ শুক্রবার, ১৯ জুলাই ২০১৯ ইং

রোহিঙ্গাদের ফেরত না পাঠাতে পারলে নিরাপত্তা ও স্থিতিশীলতা ব্যাহত হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে

সিলেটভিউ টুয়েন্টিফোর ডটকম, ২০১৯-০৬-২৭ ১০:৩৫:১৬

সিলেটভিউ ডেস্ক ::  রোহিঙ্গাদের অতিদ্রুত ফেরত না পাঠাতে পারলে আমাদের নিরাপত্তা ও স্থিতিশীলতা ব্যাহত হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী ও সংসদ নেতা শেখ হাসিনা। তিনি বলেছেন, ‘আমাদের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় জোরপূর্বক বাস্তুচ্যুত মিয়ানমার নাগরিকদের প্রত্যাবাসনের ব্যাপারে মিয়ানমারের সঙ্গে তিনটি দ্বিপক্ষীয় চুক্তি সম্পাদন হয়েছে। চুক্তির একটিতে সুস্পষ্টভাবে বর্ণিত আছে, দুই বছরে মধ্যে এই প্রক্রিয়া সম্পন্ন হবে। কিন্তু মিয়ানমার সরকার নানা টালবাহানা করে এই প্রক্রিয়া দীর্ঘায়িত করছে।’

গতকাল বুধবার জাতীয় সংসদ অধিবেশনে প্রধানমন্ত্রীর জন্য নির্ধারিত প্রশ্নোত্তর পর্বে তিনি এ তথ্য জানান। স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত অধিবেশনে এসংক্রান্ত প্রশ্নটি উত্থাপন করেন সরকারি দলের সংসদ সদস্য নূর মোহাম্মদ। জবাবে প্রধানমন্ত্রী আরো জানান, মিয়ানমারের ১১ লক্ষাধিক নাগরিকের জন্য অনির্দিষ্টকাল অন্ন, বস্ত্র ও বাসস্থানের ব্যবস্থা করা দুরূহ ব্যাপার। তিনি বলেন, ‘মিয়ানমার কর্তৃপক্ষ কর্তৃক মৌলিক অধিকারবঞ্চিত এই সকল বাস্তুচ্যুত অধিবাসী স্বাভাবিকভাবেই অসন্তুষ্টিতে ভুগছে। তাদের অনেক অভাব-অভিযোগ রয়েছে। এদেরকে অতিদ্রুত ফেরত না পাঠাতে পারলে আমাদের নিরাপত্তা ও স্থিতিশীলতা ব্যাহত হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। তাই জোরপূর্বক বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গাদের নিজ দেশে প্রত্যাবাসনের লক্ষ্যে আমরা প্রথম থেকেই একটি স্থায়ী সমাধানের জন্য কূটনৈতিক প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি।’

একই প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী বলেন, দ্বিপক্ষীয় চুক্তি অনুযায়ী বলপূর্বক বাস্তুচ্যুত নাগিরকদের ফিরিয়ে নেওয়ার লক্ষ্যে মিয়ানমারের প্রস্তুতি পর্যবেক্ষণের লক্ষ্যে বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মিয়ানমার সফর করেন। প্রত্যাবাসনপ্রক্রিয়া স্বাভাবিক করার জন্য এরই মধ্যে যৌথ ওয়ার্কিং গ্রুপের চতুর্থ সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। এ বৈঠকে দুই দেশের সম্মতিক্রমে প্রত্যাবাসনের সম্ভাব্য তারিখ হিসেবে গত বছর ২৫ নভেম্বর নির্ধারণ করা হয়। কিন্তু মিয়ানমারের অভ্যন্তরে সহায়ক পরিবেশ সৃষ্টি না হওয়ায় জোরপূর্বক বাস্তুচ্যুত মিয়ানমার নাগরিকরা স্বেচ্ছায় ফেরত যেতে রাজি হয়নি। ফলে ২৫ নভেম্বর প্রত্যাবাসনপ্রক্রিয়া শুরু করা সম্ভব হয়নি।

বিএনপি-জামায়াতের সময় দেশ দুর্নীতির চক্রে নিপতিত : সরকারি দলের সদস্য মাহফুজুর রহমানের প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘যখন বিধ্বস্ত বাংলাদেশ পুনর্বাসন ও পুনর্গঠনের কাজ শুরু হয়েছিল ঠিক সে সময়েই ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট জাতির পিতাকে সপরিবারে হত্যা করে আমাদের অগ্রগতি রুদ্ধ করে দেওয়া হয়। এরপর ২১ বছর ধরে চলে সামরিক ও স্বৈরশাসকের লুটপাটতন্ত্র। আওয়ামী লীগ ১৯৯৬ সালে নির্বাচিত হয়ে সরকার গঠন করে। এরপর দেশের অগ্রযাত্রা শুরু হয়।’ তিন আরো বলেন, ‘ক্ষমতায় এসে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক অনেক ইস্যু দ্রুততার সঙ্গে সমাধান করে দেশকে সমৃদ্ধির পথে এগিয়ে নিয়ে যাই। একবিংশ শতাব্দীর শুরুতে এই অগ্রযাত্রা থমকে দাঁড়ায়। ২০০১ সালে বিএনপি-জামায়াত জোট ক্ষমতায় আসে। আবার দুর্নীতির চক্রে নিপতিত হয় দেশ। হাওয়া ভবনের নামে তারেক জিয়া চালাতে থাকে লুটপাট। অর্থনৈতিক উন্নয়ন সূচকের প্রায় সবগুলোতেই বাংলাদেশ পিছিয়ে পড়তে থাকে। আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন মহাজোট ২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বর নবম জাতীয় সংসদে দুই-তৃতীয়াংশের অধিক সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে সরকার গঠন করে। আমরা আবার দেশ ও জনগণের কল্যাণে কাজ করার জন্য মনোনিবেশ করি। বিগত ১০ বছর ধরে এ অগ্রযাত্রা অব্যাহত রয়েছে।’

পাঁচ বছরে দেড় কোটি কর্মসংস্থান : সরকারদলীয় সংসদ সদস্য এম আবদুল লতিফের প্রশ্নের লিখিত জবাবে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের সরকার আগামী পাঁচ বছরে দেড় কোটি কর্মসংস্থানের লক্ষ্য নির্ধারণ করেছে। সরকার দেশের বেকারত্ব দূর করে কর্মসংস্থান সৃষ্টির লক্ষ্যে তরুণ প্রজন্মকে মানবসম্পদে পরিণত করার লক্ষ্যে সপ্তম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনা (২০১৬-২০)-এর কৌশল ও লক্ষ্যমাত্রার ভিত্তিতে বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে।’ তিনি জানান, টেকসই উপায়ে মাঝারি ও চরম দারিদ্র্য নিরসনের সর্বোত্কৃষ্ট উপায় হলো কর্মসংস্থান সৃষ্টি ও প্রকৃত মজুরি প্রদান।

বিদ্যুৎ খাতের অগ্রগতি : বিকল্পধারা বাংলাদেশের সংসদ সদস্য আবদুল মান্নানের প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী জানান, দারিদ্র্য বিমোচন ও আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে বিদ্যুৎ অপরিহার্য। ২০০৮ সালের নির্বাচনী ইশতেহারে গুরুত্বপূর্ণ খাত ছিল বিদ্যুৎ। নবম সংসদ নির্বাচনের মাধ্যমে আওয়ামী লীগ সরকার যখন ক্ষমতা গ্রহণ করে তখন বিদ্যুৎ উৎপাদন ছিল মাত্র তিন হাজার ২৬৮ মেগাওয়াট। বর্তমানে বিদ্যুতের উৎপাদনক্ষমতা বৃদ্ধি পেয়ে নবায়নযোগ্য জ্বালানি ও ক্যাপটিভসহ ২১ হাজার ৬২৯ মেগাওয়াটে উন্নীত হয়েছে।

সৌজন্যে : কালের কণ্ঠ

সিলেটভিউ ২৪ডটকম/২৭ জুন ২০১৯/মিআচ

শেয়ার করুন

আপনার মতামত দিন

সর্বশেষ খবর

  •   দুধ রসুন একসঙ্গে খেলে সারবে ৪ রোগ
  •   কোম্পানীগঞ্জের ওপারে ১৪৪ ধারা, এপারে সতর্কতা
  •   আদালতে রিফাত হত্যার স্বীকারোক্তি দিলেন মিন্নি
  •   গোলাপগঞ্জে নদী ভাঙ্গন রোধ ও রাস্তা পাকাকরণের দাবিতে মানববন্ধন
  •   ঈদের আগে সব বিভাগে সমাবেশের সিদ্ধান্ত বিএনপির
  •   গোলাপগঞ্জে সড়ক দূর্ঘটনায় সিএনজি চালকের মৃত্যু, আহত ২
  •   তাহিরপুরে বন্যাদুর্গতদের মাঝে ডা. মোজ্জাম্মেলের ত্রাণ বিতরণ
  •   ছাত্রলীগের সম্পাদক গোলাম রাব্বানীর মায়ের মৃত্যুবার্ষিকীতে সিলেটে দোয়া মাহফিল
  •   বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থদের সব ধরণের সহযোগিতা দেয়া হবে: পরিবেশ মন্ত্রী
  •   বিশ্ব স্কাউট জাম্বুরীতে ভার্জিনিয়া যাচ্ছে জুড়ীর মাহি
  •   পূজা উদযাপন পরিষদ সিলেট সদর উপজেলার সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত
  •   ফের আদালতে মিন্নি
  •   বড়লেখায় ১৩ দিন পর অপহৃত স্কুলছাত্র উদ্ধার
  •   রাজনগরের উত্তরভাগ চা-বাগানে শ্রমিকদের সংঘর্ষ, আহত ৭
  •   জকিগঞ্জে বাংলাদেশি ও ভারতীয় জালনোটসহ আটক ১
  • সাম্প্রতিক জাতীয় খবর

  •   আদালতে রিফাত হত্যার স্বীকারোক্তি দিলেন মিন্নি
  •   ফের আদালতে মিন্নি
  •   ডেঙ্গু ও চিকুনগুনিয়ার বাহক এডিস মশা নিধনে 'যুদ্ধ' ঘোষণা করলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
  •   রিফাত শরীফ হত্যা মামলার তিন নম্বর আসামি রিশান ফরাজী ৫ দিনের রিমান্ডে
  •   দুর্নীতির প্রশ্নে সরল বিশ্বাস কী, পরিষ্কার করুন: দুদক চেয়ারম্যানকে কাদের
  •   বাংলাদেশ হচ্ছে দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে ধর্মীয় সম্প্রীতির স্থান: পররাষ্ট্রমন্ত্রী
  •   ‘মিঠা পানির মাছ উৎপাদনে প্রথম হবে বাংলাদেশ’
  •   শুক্রবার লন্ডন যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী
  •   মশার ভয়ে নিজ কার্যালয়ে যেতে ভয় অর্থমন্ত্রীর
  •   শাহজাহান যত শক্তিশালী হোন না কেন ব্যবস্থা নেব: অর্থমন্ত্রী
  •   শিশুর মাথা ব্যাগে নিয়ে মদ খেতে গিয়েছিল রবিন
  •   বিশেষ পুলিশের প্রয়োজন নেই: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
  •   আদালতে হাজিরা দিতে গিয়ে দুই ছাত্রদল নেতার মারামারি
  •   স্বামীর সাথে রাগ করে স্ত্রীর আত্মহত্যা
  •   ধর্ষণ মামলার বিচার ১৮০ দিনের মধ্যে শেষ করার নির্দেশ হাইকোর্টের