আজ মঙ্গলবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৯ ইং

প্রাথমিকে আন্দোলনকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবে মন্ত্রণালয়

সিলেটভিউ টুয়েন্টিফোর ডটকম, ২০১৯-১০-১৬ ২০:৫৫:২৫

সিলেটভিউ ডেস্ক :: মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা অমান্য করে বেতন বাড়ানোর দাবিতে আন্দোলনে নেমেছেন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকরা। বুধবার (১৬ অক্টোবর) দ্বিতীয় দিনের কর্মসূচি হিসেবে দেশের সব সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে অর্ধদিবস কর্মবিরতি পালন করা হয়েছে। এ সময় শিক্ষার্থীদের অলস সময় কাটাতে ক্লাসে বেঞ্চের ওপর মাথা রেখে ঘুমাতে দেখা যায়।

আন্দোলনকারী শিক্ষকদের বিরুদ্ধে কঠিন ব্যবস্থা নিতে যাচ্ছে মন্ত্রণালয়। জানা গেছে, নির্দেশনা অমান্য করে যেসব শিক্ষক আন্দোলনে যুক্ত হবেন, তাদের বিরুদ্ধে চাকরিবিধি অনুযায়ী বিভাগীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে। এজন্য আন্দোলকারী শিক্ষকদের তালিকা তৈরি করতে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতরকে (ডিপিই) নির্দেশনা দেয়া হবে। সংশ্লিষ্ট সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (বিদ্যালয়) বদরুল হাসান বাদল বুধবার জাগো নিউজকে বলেন, প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের বেতন বৃদ্ধির বিষয়টি নিয়ে মন্ত্রণালয় কাজ করছে। বিষয়টি নিয়ে কোনো ধরনের আন্দোলন না করতে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। তারপরও আমাদের নির্দেশনা উপেক্ষা করে যে সব শিক্ষক আন্দোলনে যুক্ত হয়েছেন এবং হবেন, তাদের তালিকা তৈরি করা হবে। এজন্য ডিপিইকে নির্দেশনা দেয়া হবে। তাদের শনাক্ত করে চাকরিবিধি মোতাবেক বিভাগীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানান তিনি।

বেতনবৈষম্য নিরসনের দাবিতে সর্বাত্মক আন্দোলনে নেমেছেন সারাদেশের সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রায় পৌনে চার লাখ শিক্ষক। এজন্য প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক ও প্রধান শিক্ষকদের মোট ১৪টি সংগঠন মিলে সম্প্রতি গঠিত হয়েছে ‘বাংলাদেশ প্রাথমিক শিক্ষক ঐক্য পরিষদ’। এ পরিষদের মাধ্যমে আন্দোলনের কর্মসূচি ঘোষণার পর গত সোমবার থেকে তারা আন্দোলনে নেমেছেন।

প্রাথমিক শিক্ষক ঐক্য পরিষদের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, প্রধান শিক্ষকদের জাতীয় বেতন স্কেলের দশম গ্রেডে ও সহকারী শিক্ষকদের ১১তম গ্রেডে বেতন দেয়ার দাবিতে গত সোমবার (১৪ অক্টোবর) সারাদেশের প্রায় ৬৬ হাজার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে এক ঘণ্টা কর্মবিরতি পালন করা হয়। পরদিন দুই ঘণ্টা ও আজ বুধবার (১৬ অক্টোবর) অর্ধদিবস কর্মবিরতি পালন করেন তারা। তাদের এ কর্মসূচি পালনের ফলে অধিকাংশ প্রাথমিক বিদ্যালয়ে কোনো ক্লাস নেননি শিক্ষকরা।

সকাল থেকেই তারা আন্দোলনের জন্য প্রস্তুতি নেয়া শুরু করেন। সকাল ১০টা থেকে দুপুর দেড়টা পর্যন্ত তারা কর্মবিরতি পালন করেন। এ কারণে বুধবার শিক্ষার্থীরা বিদ্যালয়ে উপস্থিত হয়ে ক্লাস না করে ফিরে গেছে। এ সময় কোনো কোনো বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের ক্লাসে বেঞ্চের ওপর মাথা রেখে ঘুমিয়ে অলস সময় কাটাতে দেখা যায়।

এদিকে ক্লাস না নিয়ে শিক্ষকরা আন্দোলন করায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন অভিভাবকরা। তাওহীদ নামে তৃতীয় শ্রেণির একজন শিক্ষার্থীর বাবা আব্দুল সালাম উদ্বেগ প্রকাশ করে গণমাধ্যমকে বলেন, ‘সন্তানকে স্কুলে পাঠাই পড়ালেখা শেখার জন্য, কিন্তু স্কুলের স্যাররা তাদের আন্দোলন করেন আর শিক্ষার্থীরা ঘুমিয়ে সময় পার করে। ঘুমানের জন্য স্কুলে যাওয়ার দরকার কী? বাড়িতে বিছানা আছে, প্রয়োজনে বাড়িতে সারাদিন ঘুমালেও কোনো দুশ্চিন্তা থাকে না।’ আগামীকাল থেকে ছেলেকে স্কুলে পাঠাবেন না বলে জানান এই অভিভাবক।

আগামীকাল বৃহস্পতিবার পূর্ণ দিবস কর্মবিরতি পালন করার ঘোষণা দিয়েছেন শিক্ষকরা। এরপরও দাবি আদায় না হলে ২৩ অক্টোবর ঢাকায় মহাসমাবেশ করে দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত লাগাতার কর্মসূচিতে যাবেন বলেও জানানো হয়েছে। সম্প্রতি ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটে সংবাদ সম্মেলন করে শিক্ষকরা এ কর্মসূচি ঘোষণা করেন।

এদিকে গত ১৩ অক্টোবর প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নির্দেশে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতরের (ডিপিই) অতিরিক্ত মহাপরিচালক সোহেল আহমেদের স্বাক্ষরিত একটি নির্দেশনায় বলা হয়েছে, বাংলাদেশ প্রাথমিক বিদ্যালয় শিক্ষক ঐক্য পরিষদ নামে একটি সংগঠনের ব্যানারে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় শিক্ষকদের বেতনবৈষম্য নিরসনের দাবিতে বিভিন্ন কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়েছে। সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের বেতন বৃদ্ধির বিষয়টি সরকারের উচ্চপর্যায়ে সক্রিয় বিবেচনাধীন। এ পর্যায়ে কোনো ধরনের দাবি আদায়ের কর্মসূচি পালন করা হলে তা সরকারের সিদ্ধান্ত গ্রহণ প্রক্রিয়ায় নেতিবাচক প্রভাব ফেলবে। এ ধরনের কর্মসূচি ঘোষণা বা অংশগ্রহণ করা সরকারি শৃঙ্খলা ও আপিল বিধিমালা-২০১৮ এর সম্পূর্ণ পরিপন্থী। এ ধরনের কর্মসূচির সঙ্গে সংশ্লিষ্ট শিক্ষকদের চিহ্নিত করে তাদের বিরুদ্ধে বিধি মোতাবেক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে নির্দেশনা দেয়া হয়।

জানা গেছে, এ নির্দেশনা জারির ফলে দেশের কিছু কিছু বিদ্যালয়ের শিক্ষকরা আন্দোলন থেকে বিরত থেকে ক্লাসে নিয়মিত পাঠদান করাচ্ছেন। তবে তাদেরকে আন্দোলনে যুক্ত হতে শিক্ষক নেতৃবৃন্দদের পক্ষ থেকে চাপ দেয়া হচ্ছে। এ কারণে তারা দ্বিধাদ্বন্দ্বে রয়েছেন বলে একাধিক শিক্ষক জানিয়েছেন।

আন্দোলনের নেতৃত্বদানকারী সংগঠন বাংলাদেশ প্রাথমিক বিদ্যালয় ঐক্য পরিষদের সদস্য সচিব মোহাম্মদ শামছুদ্দীন মাসুদ বুধবার গণমাধ্যমকে বলেন, ‘প্রধান শিক্ষক ও সহকারী শিক্ষকদের বেতনবৈষম্য নিরসনে প্রাথমিক এবং গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে বারবার প্রতিশ্রুতি দেয়া হলেও তা বাস্তবায়ন করা হয়নি। এ মন্ত্রণালয় থেকে অর্থ মন্ত্রণালয়ে যে প্রস্তাব পাঠানো হলেছিল তাতেও আমাদের দাবির বাস্তবায়ন করা হয়নি।’

তিনি বলেন, ‘প্রধান শিক্ষকদের ১০তম গ্রেড ও সহকারী শিক্ষকদের ১১তম গ্রেড দিতে আমরা দীর্ঘদিন থেকে দাবি করে এলেও এ প্রস্তাবনায় প্রধান শিক্ষকদের ১০তম গ্রেড দেয়া হলেও সহকারীদের ১২তম গ্রেড দিতে বলা হয়েছে।’

উল্লেখ্য, প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে শিক্ষকদের গ্রেড পরিবর্তনের প্রস্তাব অর্থ মন্ত্রণালয় থেকে ফিরিয়ে দেয়া হয়েছে। তবে এটি বাস্তবায়নে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে চেষ্টা চলছে বলে জানা গেছে।

নির্দেশনা অমান্য করে কেন আন্দোলন করা হচ্ছে জানতে চাইলে শামছুদ্দীন মাসুদ বলেন, ‘সারাদেশে প্রায় চার লাখ শিক্ষক আন্দোলনে নেমেছেন। দীর্ঘদিন ধরে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিব আমাদের আশ্বাস দিলেও এখনও তা বাস্তবায়ন হয়নি। শিক্ষকরা আস্থা হারিয়ে আন্দোলনে নামতে বাধ্য হয়েছেন।’

মন্ত্রণালয় ব্যবস্থা নিলে কতজন শিক্ষকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবে- এমন প্রশ্ন তুলে তিনি বলেন, ‘শিক্ষকদের দীর্ঘদিনের দাবি বাস্তবায়ন না হওয়ায় তারা আন্দালনে নেমেছেন। এখানে প্রায় সারাদেশের পৌনে চার লাখ শিক্ষক যুক্ত রয়েছেন। তাই কয়জনের বিরুদ্ধে মন্ত্রণালয় ব্যবস্থা নেবে?’

আগামীকালের কর্মসূচির পরও যদি দাবি পূরণ না হয়, তাহলে আগামী ২৩ অক্টোবরের পর কঠিন কর্মসূচি দেয়া হবে বলে হুঁশিয়ারি দেন এই শিক্ষক নেতা।


সৌজন্যে : জাগোনিউজ২৪
সিলেটভিউ২৪ডটকম/১৬ অক্টোবর ২০১৯/জিএসি

শেয়ার করুন

আপনার মতামত দিন

সর্বশেষ খবর

  •   এবার মুখোমুখি ওয়াইসি-মমতা
  •   নবীগঞ্জে মাইক্রোবাসের আঘাতে পিএসসি'র পরীক্ষার্থী নিহত
  •   সিলেটে যুবদলের বিবদমান দু'গ্রুপের পৃথক সভা কাল
  •   গোলপগঞ্জে সূচনা প্রকল্পের উদ্যোগে সেলাই মেশিন বিতরণ
  •   যার সঙ্গে প্রেম করছি সে মিডিয়ার কেউ না: জয়া আহসান
  •   গোলাপগঞ্জে ধারাবহর প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শহীদ মিনারের ভিত্তিপ্রস্থর স্থাপন
  •   কমলগঞ্জে গুজবে লবণের দাম বৃদ্ধি, জরিমানা আদায়
  •   অসুস্থ ফটো সাংবাদিক কয়েছ'র জন্য দোয়া কামনা
  •   দেশে লবণের পর্যাপ্ত মজুত আছে : শিল্প মন্ত্রণালয়
  •   সুনামগঞ্জে গুজবে কান না দিয়ে ধৈর্য্যধারণ করতে জেলা প্রশাসকের আহবান
  •   সিলেটে স্বাভাবিক লবণের বাজার, হুজুগে ক্রেতাদের মাথায় হাত
  •   শাহাদাতের সাজা নিয়ে যা বললেন নান্নু
  •   ২ ভাইয়ের বাড়ি-প্লটের সংখ্যা মেলাতে হিমশিম খাচ্ছে সিআইডি
  •   তারেক রহমানের জন্মদিন উপলক্ষে সিলেটে দোয়া মাহফিল বুধবার
  •   যে কারণে পুলিশ পাহারায় ক্লাস নেন এক জার্মান অধ্যাপক!
  • সাম্প্রতিক জাতীয় খবর

  •   দেশে লবণের পর্যাপ্ত মজুত আছে : শিল্প মন্ত্রণালয়
  •   ২ ভাইয়ের বাড়ি-প্লটের সংখ্যা মেলাতে হিমশিম খাচ্ছে সিআইডি
  •   পল্লবীতে প্রকাশ্য সড়কে বিইউপির নারী কর্মকর্তাকে পেটালেন আইনজীবী!
  •   গুজবে কোটালীপাড়ায় লবণ কেনার হিড়িক, মুহূর্তেই গোডাউনশূন্য
  •   ভেজাল ওষুধের সঙ্গে জড়িতদের মৃত্যুদণ্ড হওয়া উচিত: হাইকোর্ট
  •   ডলারে দাম বাড়াল কেন্দ্রীয় ব্যাংক
  •   বিএসএফের গুলিতে দুই বাংলাদেশি নিহত
  •   রাঙ্গামাটিতে জেএসএসের দুই পক্ষের গোলাগুলিতে নিহত ৩
  •   পেঁয়াজের পর বেড়ে চলেছে চালের দাম
  •   গাঁজার বস্তার ওপর ঘুমের রাজ্যে নয়ন
  •   পেঁয়াজের দাম কেজিতে কমেছে ৭০ টাকা
  •   উন্নয়নের পুণ্যে প্রধানমন্ত্রীর বেহেস্ত যাওয়ার হক আছে : মান্নান
  •   গুলি ছুড়ে বধূবরণকারী কে এই স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা?
  •   নতুন রিপোর্ট প্রকাশ: স্যানিটেশন শ্রমিকদের নির্মম কর্ম পরিবেশ
  •   মধ্যপ্রাচ্যের ৫ দেশে গৃহকর্মী না পাঠাতে রিট