আজ শুক্রবার, ১০ জুলাই ২০২০ ইং

শাহাদাতের সাজা নিয়ে যা বললেন নান্নু

সিলেটভিউ টুয়েন্টিফোর ডটকম, ২০১৯-১১-১৯ ১৭:৫০:২৮

সিলেটভিউ ডেস্ক :: ম্যাচ চলাকালে সতীর্থকে মারধরের কারণে সব ধরনের ক্রিকেট থেকে ৫ বছরের জন্য নিষিদ্ধ হয়েছেন বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের এক সময়ের নিয়মিত পেসার শাহাদাত হোসেন রাজীব। সেই সঙ্গে তাকে গুনতে হচ্ছে নগদ তিন লাখ টাকা জরিমানা।

মঙ্গলবার সকালে বিসিবির টেকনিক্যাল কমিটির সভায় এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। সভাশেষে এ সিদ্ধান্তের কথা জানান বিসিবির টেকনিক্যাল কমিটির প্রধান মিনহাজুল আবেদীন নান্নু। নান্নু জানান, আগামী ২৬ নভেম্বর পর্যন্ত এই শাস্তির বিরুদ্ধে আপিল করার সুযোগ পাচ্ছেন শাহাদাত।

পাঁচ বছরের নিষেধাজ্ঞার প্রথম তিন বছর শাহাদাত কোনো ধরনের ক্রিকেট খেলতে পারবেন না। আর শেষ দুই বছর থাকছে স্থগিত নিষেধাজ্ঞা। অর্থাৎ প্রথম তিন বছরে এই ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটালে পরের দুই বছরও তাকে ক্রিকেট থেকে নির্বাসনে থাকতে হবে। আর যদি না ঘটান তাহলে বিসিবি চাইলে তিন বছর পরে আবারও ফিরতে পারবেন ক্রিকেটে।

সংবাদ সম্মেলনে নান্নু বলেন, খেলা চলাকালীন সতীর্থ বা অন্য কারো গায়ে হাত তোলা আচরণবিধির লেভেল ৪ ভঙ্গ করার অপরাধ। এই ধারা ভঙ্গ করলে সর্বনিম্ন ১ বছর থেকে পাঁচ বছর পর্যন্ত নিষিদ্ধ করার বিধান রয়েছে।

ঘটনার পর ম্যাচ রেফারি আখতার আহমেদ আইন অনুযায়ী ম্যাচের শেষ দুই দিনের জন্য বহিষ্কার করেন শাহাদাতকে। মঙ্গলবার টেকনিক্যাল কমিটির সভায় তাকে নিষিদ্ধ করার সিদ্ধান্ত নেয় বোর্ড।

সভাশেষে টেকনিক্যাল কমিটির প্রধান মিনহাজুল আবেদীন জানান, শাহাদাতের অপরাধের গুরুত্ব বিবেচনায় এনেই এই শাস্তির সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তারা।

‘শাহাদাতের কিন্ত আগেও শৃঙ্খলাভঙ্গের ইতিহাস ছিল, সেটাকে বিবেচনায় নেয়া হয়েছে। মাঠের মধ্যে সতীর্থের গায়ে হাত তোলা, এটা তো গুরুতর অপরাধ। টেকনিক্যাল কমিটির সবাই তার এই শাস্তির ব্যাপারে একমত হয়েছে।’

‘আমাদের আশা, অন্য ক্রিকেটারদের জন্যও এটা একটা দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে। যেকোনো ক্রিকেটারের জন্যই এটা একটা খারাপ ব্যাপার যে, সে বারবার এরকম অপ্রীতিকর ঘটনায় জড়াচ্ছে। শৃঙ্খলার ক্ষেত্রে কাউকে ছাড় দেয়া হবে না, এই বার্তাটা আমরা সবাইকে দিতে চাই।’

সোমবার এ ঘটনার পর বিসিবির টেকনিক্যাল কমিটির প্রধান মিনহাজুল আবেদীন নান্নু বলেছিলেন, ‘ম্যাচ রেফারি উল্লেখ করেছেন যে লেভেল ৪ ভেঙেছে শাহাদাত। এই ধারা ভাঙলে এক বছর থেকে আজীবন নিষিদ্ধ হওয়ার নিয়ম। মঙ্গলবার টেকনিক্যাল কমিটির সভায় সিদ্ধান্ত হবে বলে জানিয়েছিলেন তিনি। সেই মোতাবেক আজকের সভায় শাহাদাতকে পাঁচ বছর নিষিদ্ধ করা হলো।

এর আগে শিশু গৃহকর্মীকে নির্যাতনের দায়ে জেল থেকে ফিরেও সবার কাছে ক্ষমা চেয়েছিলেন শাহাদাত। জেলে যাওয়ার কারণে ওই সময়ে সব ধরনের ক্রিকেট থেকে তাকে নিষিদ্ধ করেছিল বিসিবি। পরে তার আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে জীবিকার কথা ভেবে আবার ক্রিকেটে ফেরার অনুমতি দিয়েছিল বিসিবি।

বাংলাদেশের হয়ে ৩৮ টেস্ট, ৫১ ওয়ানডে ও ছয়টি টি২০ খেলেছেন শাহাদাত। সবশেষ জাতীয় দলে খেলেছেন ২০১৫ সালে।

সৌজন্যে :: যুগান্তর
সিলেটভিউ২৪ডটকম/১৯ নভেম্বর ২০১৯/জিএসি

শেয়ার করুন

আপনার মতামত দিন