আজ বৃহস্পতিবার, ০৪ জুন ২০২০ ইং

আবু জায়েদ রাহী: আকিব জাভেদের ভবিষ্যদ্বাণীর পথ ধরে

সিলেটভিউ টুয়েন্টিফোর ডটকম, ২০১৯-০৫-১৬ ০০:১৬:১৬

রফিকুল ইসলাম কামাল :: মেজো ভাই মেহেদি হাসান চৌধুরী রাদী ছিলেন সিলেট বিভাগীয় পর্যায়ের ক্রিকেটার। ছয় বছর বয়স থেকে ভাইয়ের খেলা দেখতে দেখতে আবু জায়েদ চৌধুরী রাহীর মনে কখন যে ক্রিকেটের প্রেমের বীজ বপিত হয়ে গেল, তা যেন নিজেই টের পেলেন না। সেই প্রেমের বীজ প্রয়োজনীয় আলো-বাতাস আর পরিচর্যায় দিনে দিনে হয়ে ওঠছে বটবৃক্ষ। রাহী এখন বাংলাদেশ জাতীয় দলের ক্রিকেটার, লড়েন আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে।

পাকিস্তানের সাবেক গতি তারকা আকিব জাভেদ ২০১৬ সালের জুলাইয়ের শেষ দিকে বাংলাদেশে এসেছিলেন। বিসিবি হাইপারফরম্যান্স (এইচপি) দলের পেসারদের নিয়ে এক সপ্তাহ কাজ করেন তিনি। ওই সময় আকিব জাভেদ চারজন পেসারের কথা উল্লেখ করে বলেছিলেন, এদের মধ্যে অফুরান সম্ভাবনা আছে এবং সঠিক পরিচর্যা পেলে এরা আগামীতে বাংলাদেশের পেস আক্রমণের নেতৃত্ব দেবে। সেই চার পেসারের একজন ছিলেন আবু জায়েদ চৌধুরী রাহী।

আকিব জাভেদের ভবিষ্যদ্বাণীর যথার্থতা প্রমাণের পথেই হাঁটা শুরু করেছেন সিলেটের বালাগঞ্জ উপজেলার এই ক্রিকেটার। ইতিমধ্যেই আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের অভিজাত সংস্করণ টেস্ট এবং বিনোদন সংস্করণ টি-টোয়েন্টিতে অভিষিক্ত হয়েছেন রাহী। আর ওয়ানডেতে অভিষেকের আগেই ঢুকে পড়েছেন বিশ্বকাপের স্কোয়াডে।

ইংল্যান্ডে অনুষ্ঠিতব্য বিশ্বকাপের জন্য গেল ১৬ এপ্রিল স্কোয়াড ঘোষণা করে বাংলাদেশ। ঘোষিত স্কোয়াডে সবচেয়ে বড় চমক ছিলেন আবু জায়েদ চৌধুরী রাহী। ওয়ানডে অভিষেক না হওয়া একজনকে বিশ্বকাপের জন্য দলে রাখা তো চমকই! রাহীকে দলে রাখার ব্যাখ্যায় তার বোলিংয়ে সুইংয়ের বিষয়টিই প্রাধান্য দেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীন।

বিশ্বকাপের দল ঘোষণার পর প্রধান নির্বাচক বলছিলেন, ‘আমরা যতটা দেখেছি, ওর বোলিংয়ে যথেষ্ট সুইং আছে। আমাদের পেসারদের মধ্যে সুইং বোলারের সংখ্যা বেশ কম। যেহেতু ইংলিশ কন্ডিশনে খেলা, আয়ারল্যান্ডে ত্রিদেশীয় সিরিজ আছে। মে-জুন মাসের দিকে ঠা-াও বেশি থাকে, তাপমাত্রা অনেক কম থাকে। সেক্ষেত্রে সুইং বোলার কাউকে দলে রাখলে আমাদের জন্য প্লাস পয়েন্ট। সেই চিন্তা থেকেই রাহীকে দলে রাখা হয়েছে।’

নিজের আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ার শুরুর দিকে এক সাক্ষাৎকারে রাহী বলেছিলেন, তার প্রিয় ক্রিকেটার জেমস আন্ডারসন। ইংল্যান্ডের এই খ্যাতিমান পেসারেরও অন্যতম অস্ত্র সুইং। আন্ডারসনকে দেখেই কিনা কে জানে, নিজের বোলিংয়েও সুইংয়ের ভা-ার মজুদ করেছেন রাহী।

বিশ্বকাপের স্কোয়াডে জায়গা করে নেয়ার পর ওয়ানডে অভিষেকের জন্য খুব বেশি অপেক্ষা করতে হয়নি রাহীকে। আয়ারল্যান্ডে চলমান ত্রিদেশীয় সিরিজে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে গেল সোমবার ওয়ানডে ক্যাপ মাথায় ওঠে তার। তবে অভিষেকটা রাঙাতে পারেননি, ছিল কোনোও উইকেট না পাওয়ার আক্ষেপ। সে আক্ষেপ মুছে দিলেন ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় ম্যাচেই। বুধবার (১৫ মে) আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে পাঁচ উইকেট শিকারের অভিজাত তালিকায় ওঠালেন নিজের নাম। ২০১৫ সালের পর এই প্রথম বাংলাদেশের কোনোও পেসার ওয়ানডে ম্যাচে পাঁচ উইকেট নিলেন। আর সবমিলিয়ে দেশের চতুর্থ পেসার হিসেবে বিদেশের মাটিতে ওয়ানডে ম্যাচে পাঁচ উইকেট নিলেন রাহী। ম্যাচসেরা হওয়ায় ম্যাচটি আরো বেশি রঙিন হয়ে ওঠলো সিলেটের মেট্রোপলিটন ইউনিভার্সিটির ব্যবসায় প্রশাসন বিভাগের এই শিক্ষার্থীর জন্য।

২০১৮ সালের ১৮ ফেব্রুয়ারি ঘরের মাঠ সিলেটে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি দিয়ে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিষেক হয় রাহীর। প্রায় সাড়ে চার মাস পর, একই বছরের ৪ জুলাই নর্থ সাউন্ডে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে হয় তার সাদাপোশাকের অভিষেক। বাংলাদেশের সর্বশেষ নিউজিল্যান্ড সফরে দুটি টেস্টে সুইংয়ের কারিকুরি দেখিয়ে মুগ্ধ করেন রাহী।

আকিব জাভেদের ভবিষ্যদ্বাণীর ‘নায়ক’ এখনও পুরোপুরি হয়ে ওঠতে পারেননি আবু জায়েদ চৌধুরী রাহী। তবে সে পথে তিনি হাঁটছেন দৃঢ় প্রত্যয়ে, তা বলাই যায়। সম্ভাবনা থাকে বলেই তো অঙ্কুরোদগম হয়!

সিলেটভিউ২৪ডটকম/১৬ মে ২০১৯/আরআই-কে

@

শেয়ার করুন

আপনার মতামত দিন