আজ বৃহস্পতিবার, ০২ জুলাই ২০২০ ইং

আজ জকিগঞ্জ মুক্ত দিবস, নানা কর্মসূচি

সিলেটভিউ টুয়েন্টিফোর ডটকম, ২০১৯-১১-২১ ১২:৪৭:২২

জকিগঞ্জ প্রতিনিধি :: আজ সিলেটের জকিগঞ্জ জকিগঞ্জ উপজেলা হানাদার মুক্ত দিবস। মহান স্বাধীনতা যুদ্ধের সময়ে এইদিনে সারাদেশে যখন পাকিস্থানি বর্বর বাহিনীর বিরুদ্ধে যুদ্ধ চলছিল তখন ভারতীয় মিত্রবাহিনীর সহযোগিতায় ১২ ঘন্টা শ্বাসরুদ্ধকর যুদ্ধে অসংখ্য আহত নিহতদের মধ্যে দিয়ে জকিগঞ্জ থানা সদরসহ আশপাশ এলাকা পাক হানাদার মুক্ত করা হয়।

স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধাদের দাবি, দেশের প্রথম মুক্তাঞ্চল দিবস এদিনই। দিবসটি উপলক্ষে জকিগঞ্জ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ড, দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটি ও জকিগঞ্জ প্রেস ক্লাবসহ বিভিন্ন সামাজিক সংগঠন নানা কর্মসূচি পালন করবে।

কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে জাতির পিতার প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধার্ঘ অর্পণ, পতাকা উত্তোলন, দোয়া মাহফিল, র‌্যালি, আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার ও পৌরসভার মেয়র খলিল উদ্দিন জানান, দেশব্যাপী যুদ্ধ শুরু হওয়ার পূর্বে সিলেটের সীমান্ত উপজেলা জকিগঞ্জকে শত্রু মুক্ত করার শপথ নেন স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধারা। সে মতে ১৯৭১ সালের ২০ নভেম্বর রাতে যৌথ বাহিনীর এক সাঁড়াশি অভিযানের ফলে ২১ নভেম্বর ভোরে পাক হানাদার মুক্ত হয় জকিগঞ্জ। মুক্তিযুদ্ধে জকিগঞ্জ ছিল ৪ নং সেক্টরের অন্তর্ভূক্ত। অধিনায়ক ছিলেন মেজর চিত্ত রঞ্জন দত্ত। প্রয়াত সাবেক মন্ত্রী এমপি দেওয়ান ফরিদ গাজী ছিলেন এই সেক্টরের বেসামরিক উপদেষ্টা।

২৭ মার্চ জকিগঞ্জ ডাক বাংলোয় এক গোপন বৈঠকে থানার সকল ইপিআর ক্যাম্পের পাক সেনাদের খতমের সিদ্ধান্ত হয়। ২৮ মার্চ বীর মুক্তিযোদ্ধা মেকাই মিয়া, চুনু মিয়া, আসাইদ আলী, ওয়াতির মিয়া, তজমিল আলী, মশুর আলী, হাবিলদার খুরশিদ, করনিক আবদুল ওয়াহাব, সিগনালম্যান আবদুল মোতালেব প্রমুখ প্রথমে জকিগঞ্জ ও মানিকপুর ইপিআর ক্যাম্পে অপারেশন চালিয়ে পাক সেনাদের খতম করে জকিগঞ্জে মুক্তিযুদ্ধের সূচনা করেন।


এমপি মরহুম দেওয়ান ফরিদ গাজী, এমএলএ মরহুম আব্দুল লতিফ, এমএলএ আব্দুর রহিম, সেক্টর কমান্ডার চিত্ত রঞ্জন দত্ত, মিত্র বাহিনীর দায়িত্ব প্রাপ্ত সামরিক কর্মকর্তা ব্রিগেডিয়ার ওয়াটকে, কর্নেল বাগচিসহ মাছিমপুর ক্যান্টলম্যান্টে জকিগঞ্জকে স্বাধীন করার এক পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়। ঐ পরিকল্পনা ছিল কীভাবে কুশিয়ারার ওপারে ভারতের করিমগঞ্জের মানুষকে ক্ষতিগ্রস্ত না করে জকিগঞ্জ দখল করা যায় এবং এ পরিকল্পনা মতোই জকিগঞ্জ মুক্ত হয়।

মুক্তাঞ্চলের প্রথম আইন শৃঙ্খলা রক্ষা বাহিনীর ডেপুটি কমান্ডার জকিগঞ্জ উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা মাসুক উদ্দিন আহমদ বলেন, সীমান্তবর্তী উপজেলা জকিগঞ্জকে মুক্ত করার পরিকল্পনা অনুসারে ২০ নভেম্বর রাতে মুক্তিবাহিনী ও ভারতীয় মিত্রবাহিনী ৩টি দলে বিভক্ত হয়ে প্রথম দল লোহার মহলের দিকে ও দ্বিতীয় দল আমলসীদের দিকে অগ্রসর হয়। মূল দল জকিগঞ্জের কাস্টমঘাট বরাবর করিমগঞ্জ কাস্টম ঘাটে অবস্থান নেয়।  প্রথম ও দ্বিতীয় দল নিজ নিজ অবস্থান থেকে কুশিয়ারা নদী অতিক্রম করে  জকিগঞ্জের দিকে অগ্রসর হয়। পাক বাহিনী খবর পেয়ে দিকবিদিক ছুটোছুটি শুরু করে। মুক্তিবাহিনী তিন দিক থেকে ঘিরে ফেলেছে ভেবে তারা আটগ্রাম-জকিগঞ্জ সড়ক দিয়ে পালাতে থাকে।  ইতিমধ্যে প্রথম ও দ্বিতীয় দল জকিগঞ্জ পৌঁছে যায়। মূল দল কুশিয়ারা নদী রাবারের বালিশ দিয়ে সেতু তৈরি করে জকিগঞ্জ শহরে প্রবেশ করে। তখন পাক সেনাদের বুলেটে শহীদ হন ভারতীয় বাহিনীর মেজর চমন লাল ও তার দুই সহযোগী।

এ সময় কয়েকজন পাক সেনাকে আটক করা হয়। এভাবেই মুক্ত হয় জকিগঞ্জ। একুশে নভেম্বর ভোরে জকিগঞ্জের মাটিতেই প্রথম স্বাধীন বাংলাদেশের পতাকা ওড়িয়ে দেন মুক্তিযোদ্ধারা। এ সময় পাক হানাদার বাহিনী কর্তৃক আটকৃত বন্দীদের জকিগঞ্জ থানা থেকে মুক্ত করা হয়।



সিলেটভিউ২৪ডটকম/ ২১ নভেম্বর ২০১৯/হাছিব/মিআচৌ

শেয়ার করুন

আপনার মতামত দিন

সাম্প্রতিক সিলেট খবর

  •   যে কারণে সিলেট-ঢাকা মহাসড়কে বন্ধ রাখা হচ্ছে যান চলাচল
  •   করোনায় মেট্রোপলিটন ইউনিভার্সিটির টিউশন ফিতে ২৫ ভাগ ছাড়
  •   এনটিভি ১৮ বছরে: সিলেটে ছিন্নমূল ও পথশিশুদের মধ্যে মাস্ক বিতরণ
  •   বিছনাকান্দি সীমান্তে ভারতীয় খাশিয়ার গুলিতে এক ব্যক্তি নিহত
  •   সিলেট মহানগর পুলিশের মুখপাত্র এখন জ্যোতির্ময় সরকার
  •   সিলেট ওসমানী হাসপাতাল রোগী কল্যাণ সমিতির ২টি এইচএনসি মেশিন প্রদান
  •   লন্ডনের ক্রয়ডনের ডেপুটি মেয়র নির্বাচিত হলেন সিলেটের শেরওয়ান
  •   কামরানের রূহের মাগফেরাত কামনায় দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত
  •   কামরানের মাগফেরাত কামনায় কালীঘাট যুব উন্নয়ন পরিষদের দোয়া
  •   রোটারি ক্লাব অব সিলেট কসমোপলিটনের উদ্যোগে সেলাই মেশিন বিতরণ