আজ মঙ্গলবার, ০৪ অগাস্ট ২০২০ ইং

বর্ণাঢ্য আরেক রাজনীতিককে হারালো সিলেট

সিলেটভিউ টুয়েন্টিফোর ডটকম, ২০২০-০৭-০৩ ১৫:০৬:৪০

নিজস্ব প্রতিবেদক :: এম এ হক। পুরো নাম মোহাম্মদ আব্দুল হক। সিলেটের মানুষ হক নামেই চিনেন তাকে। সকলের কাছে ‘হক ভাই’ নামেই পরিচিত তিনি। যেমন তাঁর দল, তেমন অন্য যেকোনো দল কিংবা সাধারণ মানুষের মাঝে তিনি ছিলেন বেশ সমাদৃত। সিলেটের যেকোনো সমস্যা মীমাংসা করতে যে কয়জন রাজনীতিবিদ এগিয়ে আসতেন সবার আগেই পাওয়া যেত এম এ হককে। কোন জনপ্রতিনিধি না হয়েও মানুষের বিপদে-আপদে গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা পালন করতে দেখা যেত তাকে। 

১৯৫৪ সালের ১লা জুলাই সিলেটের বালাগঞ্জ উপজেলার দেওয়ানবাজারের কুলুমা গ্রামে জন্ম হয় এম এ হকের। বড় হয়ে সমাজসেবামূলক কার্যক্রমের পাশাপাশি যোগ দেন রাজনীতিতে। বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপির জন্মলগ্ন থেকেই জড়িত ছিলেন তিনি। ১৯৯৩ সালের দল তাকে মূল্যায়ন করতে শুরু করে। দায়িত্ব দেয় সিলেট জেলা বিএনপির সভাপতির পদ। পরবর্তীতে ১৯৯৬ সালে বিএনপির সিলেট বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদকের দায়িত্বও অর্পিত হয় হকের কাঁধে। একধারে ২০০৪ সাল পর্যন্ত জেলা বিএনপির সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন তিনি।
\"\\"\\"\"
২০০২ সালে দেশে বিএনপি ক্ষমতায় আসে। বাংলাদেশের অর্থমন্ত্রী হন সিলেটের কৃতি সন্তান মরহুম এম সাইফুর রহমান। সাইফুর রহমানের কাছে অত্যন্ত ঘনিষ্টজন ছিলেন বিএনপি নেতা হক। সে কারণে ও বিএনপিতে তাঁর অসামান্য অবদানের জন্য ২০০৩ সালে সিলেট সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে মেয়র পদে দলীয় মনোনয়ন লাভ করেন তিনি। যদিও তিনি হেরে যান প্রয়াত সাবেক মেয়র বদর উদ্দিন আহমদ কামরানের কাছে। সেই সময়ে নির্বাচনে বিএনপির আরও দুই জন প্রার্থী হয়েছিলেন। সিলেট পৌরসভার সাবেক চেয়ারম্যান বিএনপি নেতা আ.ফ.ম কামাল ও বিএনপির বর্তমান কেন্দ্রীয় সহ-স্বেচ্ছাসেবক বিষয়ক সম্পাদক এডভোকেট শামসুজ্জামান জামান নির্বাচনে প্রার্থী হওয়ায় এম এ হক মেয়র পদে জয় লাভ করতে পারেননি বলে সেই সময়ে সিলেট বিএনপি নেতারা মন্তব্য করেছিলেন। 

পরবর্তীতে ২০০৮ সালে সিলেট সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে পুনরায় মেয়র পদে নির্বাচন করে বিজয় লাভ করতে পারেননি হক।