আজ সোমবার, ৩০ নভেম্বর ২০২০ ইং

বিশ্বনাথের দশঘরে ফলাফল ঘোষণাকে কেন্দ্র করে উত্তেজনা, পুলিশের গুলি

বিএনপির এমাদ খান নির্বাচিত

সিলেটভিউ টুয়েন্টিফোর ডটকম, ২০২০-১০-৩০ ০০:২০:০২

(ফাইল ছবি)

নিজস্ব প্রতিবেদক, বিশ্বনাথ :: দীর্ঘ ১৭ বছরের অপেক্ষার পর অনুষ্ঠিত সিলেটের বিশ্বনাথ উপজেলার দশঘর ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে ৩৮৫ ভোটের ব্যবধানে ‘নৌকা’ প্রতীকের প্রার্থী আলহাজ্ব জবেদুর রহমানকে পরাজিত করে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন ‘ধানের শীষ’ প্রতীকের এমাদ উদ্দিন খান। ধানের শীষ প্রতীকে বিএনপির মনোনীত প্রার্থী এমাদ উদ্দিন খান পান ৩ হাজার ১৬৬টি ভোট ও তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী জবেদুর রহমান পান ২ হাজার ৭৮১টি ভোট।

এছাড়া ‘ঘোড়া’ প্রতীকে স্বতন্ত্র প্রার্থী (আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী) সামছু মিয়া লয়লুছ পেয়েছেন ২ হাজার ৭৪১ ভোট, ‘আনারস’ প্রতীকে স্বতন্ত্র প্রার্থী (বিএনপির বিদ্রোহী) আবুল হোসেন পেয়েছেন ১ হাজার ৫০৬ ভোট ও ‘লাঙ্গল’ প্রতীকে জাতীয় পার্টির মনোনীত আবদুল মন্নান পেয়েছেন ১২২ ভোট। ইউনিয়নের ১৪ হাজার ১১৮ জন ভোটারের মধ্যে ভোটাধিকার প্রয়োগ করেছেন ১০ হাজার ৫২৫ জন ভোটার। এর মধ্যে বাতিল ভোটের সংখ্যা ২০৯। শতকরা ভোট প্রয়োগের হার ৭৪.৫৫%।

বিপুল উৎসাহ উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে ভোটারদের সরব উপস্থিতিতে কোন ধরণের অপ্রীতিকর ঘটনা ছাড়াই বৃহস্পতিবার সকাল ৯টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত ভোট গ্রহন সম্পন্ন হয়। তবে ফলাফল ঘোষণা করাকে কেন্দ্র করে মাছুখালী বাজারস্থ একটি কেন্দ্রে বিএনপির নেতাকর্মীদের মধ্যে উত্তেজনা দেখা দেয়। এসময় নির্বাচনে দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তারা ব্যালট বাক্স ও নির্বাচনী সরঞ্জামাধি নিয়ে কেন্দ্র ত্যাগ করতে চাইলে তাদেরকে অবরুদ্ধ করে রাখেন বিএনপির উত্তেজিত নেতাকর্মীরা। এসময় ব্যালট বাক্স ও নির্বাচনী সরঞ্জামাধি বহনকারী পিকআপ গাড়ি ভাংচুর করা হয়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে রাখতে পুলিশ কয়েক ৫ রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছুড়ে।

এদিকে দীর্ঘদিন পর অনুষ্ঠিত দশঘর ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে ভোট প্রদানের ক্ষেত্রে পুরুষের ছেয়ে নারী ভোটারদের উপস্থিতি ছিল লক্ষণীয়। নতুন ভোটারদের পাশাপাশি নিজেদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে ভোট কেন্দ্রগুলোতে এসেছেন সত্তোরর্ধ বৃদ্ধ-বৃন্ধা। নতুন ভোটারদের মধ্যে ছিলো প্রথম ভোট দেওয়ার আনন্দ, আর প্রবীনদের মধ্যে ছিলো অনিয়ন-দূর্নীতিকে দূর করে নতুন নেতৃত্ব নির্বাচিত করার মন্ত্র।
শতভাগ সচ্ছতা, সুষ্ট ও শান্তিপূর্ণভাবে নির্বাচন আয়োজনের জন্য নির্বাচন কমিশনের উদ্যোগে নানান প্রদক্ষেপ গ্রহণের পাশাপাশি ভোটের দিন সকালে কেন্দ্রগুলোতে প্রেরণ করা হয় ব্যালট। তাছাড়া নির্বাচনে ভোট গ্রহণ কাজে নিয়োজিত ছিলেন ১০ জন প্রিজাইডিং অফিসার, ৪৫ জন সহকারী প্রিজাইডিং অফিসার ও ৮৫ জন পুলিং কর্মকর্তা।

নিরাপত্তা প্রদানের ক্ষেত্রে আইন-শৃংখলা বাহিনীর পক্ষ থেকে গ্রহন করা হয় ৩টি মোবাইল টিম, ৩টি স্টাইকিং টিম, ১টি স্ট্যান্ড বাই টিম ও ওসির নেতৃত্বে ১টি বিশেষ টিম এবং ১ জন ম্যাজিস্ট্রেট ও ৩ নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে বিজিবি ও র‌্যাবের টহল টিম। এছাড়া আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখার জন্য প্রত্যেকটি ভোট কেন্দ্রে সার্বক্ষণিক ৮ জন করে পুলিশ ও ১৭ জন করে আনসার সদস্য নিয়োজিত ছিলেন।

১৪ হাজার ১১৮ জন ভোটার (পুরুষ ৭ হাজার ২০৯ ও মহিলা ৬ হাজার ৯০৯)-এর দশঘর ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগ মনোনীত ‘নৌকা’ প্রতীকের প্রার্থী আলহাজ্ব জবেদুর রহমান, বিএনপি মনোনীত ‘ধানের শীষ’ প্রতীকের প্রার্থী এমাদ উদ্দিন খান, জাতীয় পার্টি মনোনীত ‘লাঙ্গল’ প্রতীকের প্রার্থী আবদুল মন্নান, স্বতন্ত্র ‘ঘোড়া’ প্রতীকের প্রার্থী আলহাজ্ব সামছু মিয়া লয়লুছ (আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী) ও ‘আনারস’ প্রতীকের প্রার্থী আবুল হোসেন (বিএনপির বিদ্রোহী) এবং সংরক্ষিত ওয়ার্ডের সদস্য (মহিলা মেম্বার) পদে ১১ জন ও সাধারণ ওয়ার্ডের সদস্য (মেম্বার) পদে ৪৯ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছেন।

সুষ্ট ও শান্তিপূর্ণভাবে নির্বাচন সম্পন্ন করতে নির্বাচন কমিশন ও প্রশাসনের পক্ষ হতে কঠোর নিরাপত্তা গ্রহন করা হয়। ভোটগ্রহনে নিয়োজিত কর্মকর্তারা নির্বাচনের বিভিন্ন সরঞ্জামাধি নিয়ে বুধবার বিকেলে ভোট কেন্দ্রে অবস্থান নিলেও শতভাগ স্বচ্ছ নির্বাচনের জন্য ভোটের দিন সকালে কেন্দ্রে কেন্দ্রে পৌঁছানো হয় ব্যালট। রাত প্রায় ১০টার দিকে আনুষ্ঠানিকভাবে নির্বাচনের চুড়ান্ত ফলাফল ঘোষণা করেন উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও রির্টানিং অফিসার গোলাম সারওয়ার।


সিলেটভিউ২৪ডটকম / ৩০ অক্টোবর, ২০২০ / অপু / ডালিম

শেয়ার করুন

আপনার মতামত দিন