আজ বৃহস্পতিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২১ ইং

৩৫ বছর ধরে শিল-পাটাকে সঙ্গী করে শফিকের জীবনযুদ্ধ

সিলেটভিউ টুয়েন্টিফোর ডটকম, ২০২১-০১-২৬ ২৩:০৩:৫২

শাহীন আহমদ :: বিছনাকান্দি সিলেট শহর থেকে অনেকটা পথ দূরে। প্রকৃতির আপন লীলায় গড়ে উঠেছে অপার সৌন্দর্যের জলপাথরের ভূমি বিছনাকান্দি। যা সিলেটের গোয়াইনঘাট উপজেলায় অবস্থিত।

বিছনাকান্দির এখানে-ওখানে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে রয়েছে পাথর আর পাথর। মনে হবে যেন একটি পাথরের বিছানা। এ এক অপূর্ব সৌন্দর্য দেখতে। যা  বাংলাদেশে বিভিন্ন অঞ্চল থেকে ছুটে আসেন বিভিন্ন পেশা, শ্রেণি ও বয়সের মানুষ।

গত ২৫ জানুয়ারি বিছানাকান্দি পর্যটনকেন্দ্র ঘুরতে গিয়ে হঠাৎ দেখা মেলে জীবনমাঠে যুদ্ধরত এক সৈনিকের। নাম শফিক মিয়া আলী (৫৫)। তাকে স্থানীয়রা তাঁকে ‘পাটা শফিক’ নামেই পরিচিত। তিনি দীর্ঘ ৩৫ বছর ঘরের পাথর কেটে কেটে শিল-পাটা তৈরি করে তা বিক্রি করে দুই মেয়ে এক ছেলেসহ পাঁচ সদস্যের সংসার চালান।

সিলেটের গোয়াইনঘাট উপজেলায় বিছনাকান্দি পর্যটন কেন্দ্রে পাথর কেটে শিল-পাটা তৈরিকারী শফিক আলাপকালে এ প্রতিবেদককে বলেন,পাঁচ জনের সংসারের একমাত্র উর্পাজনকারী আমি। দিনে দুই-আড়াইশ টাকা রোজগার করি। তা দিয়ে সংসারে নুন আনতে পানতা ফুরায় অবস্থা। তিনটি মেয়েই বিয়ের উপযুক্ত। কিন্তু টাকার অভাবে বিয়ে দিতে পারছি না। এখানে আসা পর্যটকদের কাছে শির-পাটা বিক্রির চেষ্টা করি। যা পাই তাতেই কোনোমতে সংসার চালাই।  

শফিক বলেন, যুবক বয়সে আমি ছবি আঁকতে ভালোবাসতাম। সেই সময় তিনি হাতুড়ি আর বাটালি দিয়ে গ্রামের বিভিন্ন গাছের কান্ড কেটে নকশা আঁকতাম। এগুলো দেখে মানুষের ভালো লাগতো। সেই ২৫ বছর বয়সে শুরু, একপরে পাথর কেটে কেটে শিল-পাটা তৈরি করে করে কেটে গেছে ৩৫ বছর।

যতদিন বেঁচে থাকবেন- এ পেশাতেই টিকে থাকবেন বলে জানালেন শফিক মিয়া আলী।


সিলেটভিউ২৪ডটকম / শাহীন / ডালিম-১১

শেয়ার করুন

আপনার মতামত দিন