আজ বুধবার, ১৪ এপ্রিল ২০২১ ইং

সিলেটে সেই দুই প্রতারক কারাগারে, ব্যবস্থা নিচ্ছে স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংক

বিদ্যুৎ গ্রাহকদের টাকা আত্মসাৎ

সিলেটভিউ টুয়েন্টিফোর ডটকম, ২০২১-০৩-০১ ২৩:৫২:৫৮

ছবি : ইদ্রিছ আলী

নিজস্ব প্রতিবেদক :: সিলেটে স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংকের নাম ব্যবহার করে গ্রাহকদের কাছ থেকে বিদ্যুৎ বিলের টাকা আদায় করে আত্মসাতকারী দুই প্রতারককে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। তুষার কান্তি ভট্টাচার্য ও আব্দুল মতিন চৌধুরী নামের এই দুই অভিযুক্তের বিরুদ্ধে দায়ের করা প্রতারণা মামলার ভিত্তিতে তাদের সোমবার (১মার্চ) কারাগারে প্রেরণ করেন আদালত।

সিলেট মহানগর পুলিশের এয়ারপোর্ট থানাধীন সদর উপজেলার কালাগুল চা বাগান এলাকার মৃত কুদ্দুস মিয়ার ছেলে সালাম মিয়া (৪৫) রোববার রাতে এয়ারপোর্ট থানায় তারা দুজনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন। পরে সোমবার সকালে আসামি তুষার ও মতিনকে আদালতে পাঠায় পুলিশ।

তুষার কান্তি ভট্টাচার্য সিলেট নগরীর সুবিদবাজার এলাকার মৃত গীরিন্দ্র কুমার ভট্টাচার্যের ছেলে এবং আব্দুল মতিন চৌধুরী হবিগঞ্জ জেলার নবীগঞ্জ উপজেলার পুরানগাঁও-এর মৃত ফিরোজ মিয়ার ছেলে। তিনি সিলেটে শহপরাণ থানাধীন আরামবাগ এলাকায় বাসা ভাড়া করে থাকতেন।

মামলা সূত্রে জানা গেছে, এয়ারপোর্ট থানাধীন সদর উপজেলার সাহেবের বাজারস্থ হান্নান মার্কেটে একটি কক্ষ ভাড়া নিয়ে স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংকের এজেন্ট ব্যাংকিং শাখা খুলেন তুষার কান্তি ভট্টাচার্য। এতে ম্যানেজার হিসেবে চাকরি দেন আব্দুল মতিন চৌধুরীকে। এই এজেন্ট ব্যাংকিং শাখায় বাদি সালাম মিয়াসহ স্থানীয় পল্লী বিদ্যুতের গ্রাহকরা বিলের টাকা জমা দিলে তা  বিদ্যুৎ অফিসে জমা না দিয়ে আত্মসাৎ করেন তুষার ও মতিন।

এদিকে, দীর্ঘদিন ধরে ধোপাগুল ও সাহেবের বাজার এলাকার গ্রাহকদের কাছ থেকে বিলের টাকা না পেয়ে কয়েকদিন থেকে লাইন সংযোগ বিচ্ছিন্নকরণ অভিযানে নেমেছে পল্লী বিদ্যুৎ কর্তৃপক্ষ। ইতোমধ্যে এলাকার প্রায় অর্ধশতজনের বিদ্যুৎ লাইন বিচ্ছিন্ন করা হয়েছে। এ অভিযান শুরু হওয়ার পর থেকেই ওই এলাকায় শুরু হয় তোলপাড়, বেরিয়ে আসে তুষার কান্তি ভট্টাচার্য ও আব্দুল মতিন চৌধুরীর দীর্ঘদিনের প্রতারণার বিষয়টি।

অবশেষে রোববার (২৮ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে সাহেবের বাজারের হান্নান মার্কেটের সামনে ভুক্তভোগী গ্রাহকরা জড়ো হয়ে প্রতারক তুষার কান্তি ভট্টাচার্য ও আব্দুল মতিন চৌধুরীকে আটক করে পুলিশে খবর দেন। খবর পেয়ে এ.এস.আই শফি আহমদ চৌধুরীর নেতৃত্বে এয়ারপোর্ট থানার একদল পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে এই দুই প্রতারককে আটক করে।

এ বিষয়ে এয়ারপোর্ট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা খান মুহাম্মদ মাইনুল জাকির সিলেটভিউ-কে বলেন, স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংকের শাখার নামে মানুষের কাছ থেকে বিদ্যুৎ বিলের টাকা তুলে এই দুজন অফিসে জমা দেয়নি । বিষয়টি বুঝতে পেরে স্থানীয়রা রোববার এ দুজনকে আটক করে আমাদের কাছে সোপর্দ করে। রোববার রাতে তাদের বিরুদ্ধে স্থানীয় সালাম মিয়া বাদি হয়ে মামলা দায়ের করেন। সোমবার সকালে তাদের আদালতে প্রেরণ করা হয়। পরে তাদের কারাগারে প্রেরণ করেন বিজ্ঞ আদালত।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এ পর্যন্ত তারা গ্রাহকের কত টাকা আত্মসাৎ করেছেন সে হিসেব এখনও পাওয়া যায়নি। সেটি বের করতে একটু সময় লাগবে।

তবে মামলার বাদি সালাম মিয়া জানান, ২০২০ সালের তার মোট ৭ মাসের টাকা মেরে দিয়েছেন তুষার ও মতিন। এভাবে অনেকেরই ৪-৫-৬-৭ মাসের বিলের টাকা আত্মসাৎ করেছেন তারা। সে হিসেবে স্থানীয় পল্লী বিদ্যুৎ গ্রাহকদের কয়েক লক্ষ টাকা মেরে দিয়েছেন এ দুজন।

এদিকে, প্রতারক এজেন্ট তুষার কান্তি ভট্টাচার্যের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিচ্ছে স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংক লিমিটেড। স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংক লিমিটেডের সিলেট রিজিওনাল ম্যানেজার মোহাম্মদ আলী এ বিষয়ে সিলেটভিউ-কে বলেন, আমরা তুষার কান্তি ভট্টাচার্যকে এজেন্ট করে সাহেবের বাজারে এজেন্ট ব্যাংকিং শাখা দিয়েছি। তবে তারা মানুষের প্রতারণা করায় তাদের বিরুদ্ধে পুলিশ আইনি ব্যবস্থা নিয়েছে। এছাড়াও ব্যাংকিং নিয়ম অনুযায়ী আমরা তাকে দেয়া এজেন্ট ব্যাংকিং শাখার অনুমোদন বাতিল করবো।


সিলেটভিউ২৪ডটকম / ডালিম-১৫

শেয়ার করুন

আপনার মতামত দিন