আজ বুধবার, ১৪ এপ্রিল ২০২১ ইং

বইমেলায় আসছে এমসি শিক্ষার্থী ইমরান এর 'বসন্তকথা'

সিলেটভিউ টুয়েন্টিফোর ডটকম, ২০২১-০৩-০৯ ১৬:০৭:৩২

এসসি কলেজ প্রতিনিধি :: নিজেকে তিনি পরিচয় দেন, 'আমি এবং আমাদের গল্প— কথক' হিসেবে। নিজের মত করে লেখেন জীবনের গল্প। মানুষের জীবন জুড়ে প্রেম, বিরহ, যন্ত্রণা আর ভালোবাসা। সেই সব সময়কে লেখনীর মাধ্যমে তুলে ধরেন তিনি। জল্পনাকল্পনা আর বাস্তবতার ছোঁয়ায় সাজে প্রতিটি গল্প। তুলে ধরেন চারপাশের মানুষের ভয়ংকর সুন্দর জীবনচিত্র। সহজ সরল জীবনের সজীব বাস্তবতা।

বন্ধুমহলে বা আড্ডায় সবাই যাকে হাসির রাজা বলে ইঙ্গিত করে। যার ঠোঁটেমুখে অমলিন হাসি লেগে থাকে সারাক্ষণ। কথার ভাঁজে ঠোঁটেরকোণে মুচকি হাসি। প্রাণবন্ত করে তোলেন আলোচনা। বলছিলাম তরুণ গল্পকার ইমরান ইমন এর কথা। আসছে অমর একুশে বইমেলা- ২০২১ এ তার দ্বিতীয় ছোটোগল্পের বই 'বসন্তকথা'। বইটি প্রকাশ করছে নাগরী প্রকাশ। প্রচ্ছদ করেছেন নিয়াজ চৌধুরী তুলি।

বইয়ে থাকা প্রতিটি গল্পে রয়েছে নিজস্ব স্বকীয়তা। এর মধ্যে নাম গল্প, বসন্তকথা ছাড়াও উল্লেখযোগ্য গল্পের মধ্যে রয়েছে, সেঁজুতি, প্রস্তাব, সিনিয়র ভাই, আপনি, আমি এবং আমাদের গল্প— এক, দুই, তিন ইত্যাদি।

২০১৮ বইমেলায় প্রকাশ পায় তার প্রথম ছোটোগল্পগ্রন্থ, 'এই তো তুমি এলে'। বইটি বহুলাংশে পাঠকপ্রিয়তা পায় এবং প্রথম বইকে ছাড়িয়ে যাবার প্রয়াস নিয়ে দুইবছর পর এবার বইমেলায় আসছে তার দ্বিতীয় ছোটোগল্পগ্রন্থ, 'বসন্তকথা'।

ছড়া-কবিতা, ছোটোগল্প বিভিন্ন মাধ্যমে লিখছেন। সেই সাথে স্থানীয় পত্র-পত্রিকায় লিখছেন নিয়মিত। লিখছেন জাতীয় পত্র-পত্রিকা ও দেশের বিভিন্ন ম্যাগাজিন পাতায়ও।
হবিগঞ্জ জেলার লাখাই উপজেলার চরগাঁও গ্রামে ১লা জুলাই, ১৯৯৭ সালে জন্মগ্রহণ করেন ইমরান ইমন। বাবা মো. মাহফুজ হোসেন। মা রেহানা আক্তার। পড়াশোনা করছেন সিলেটের ঐতিহ্যবাহী স্বনামধন্য বিদ্যাপীঠ মুরারিচাঁদ (এমসি) কলেজে বাংলা ভাষা ও সাহিত্য নিয়ে।

এতো গেলো তার সাহিত্য প্রতিভা ও পড়াশোনার কথা। ছোট্টোবেলা থেকে তিনি নিজেকে সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠনের সাথে যুক্ত করেছেন। সাংগঠনিক দক্ষতা আর যোগ্যতায় জায়গা করে নিয়েছেন বিভিন্ন পরিসরে। এমসি কলেজের অন্যতম সাংস্কৃতিক সংগঠন 'মোহনা সাংস্কৃতিক সংগঠন'র সাংগঠনিক সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করছেন। সেই সাথে সহ-সভাপতির দায়িত্ব পালন করছেন এমসি কলেজ রিপোর্টার্স ইউনিটির।

সামাজিক স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন এলিভেট ফোরাম এর সভাপতির দায়িত্বও পালন করেছেন ইতিপূর্বে।

সিলেটের অন্যতম সাহিত্য ম্যাগাজিন 'সাহিত্যের ছোটকাগজ পিঁপড়া'র ব্যবস্থাপনা সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করছেন। এছাড়াও কাজ করছেন সামাজিক সাংস্কৃতিক স্বেচ্ছাসেবী নানান সংগঠনের সাথে। সমাজ বিনির্মাণে লেখনীর মাধ্যমে তিনি তুলে ধরছেন সমাজের অবক্ষয় চিত্র, সমাজের নানাবিধ অবিচার, অন্যায়ের কথা এবং সেই সাথে দেখাচ্ছেন সমাধানের পথ!

ক্যাম্পাস জীবনের দিনগুলিকে গল্পকার নানানভাবে উপভোগ করছেন। সেই সাথে কলমের কালিতে তুলে ধরছেন। অনার্সে ভর্তির পর থেকে ক্যাম্পাসের সৌন্দর্য, বন্ধুত্ব, সিনিয়র জুনিয়র মেলবন্ধন আর পাশাপাশি থাকার সৌহার্দপূর্ণ সম্পর্ক কখনো চা'য়ের কাপে চুমুকের সাথে তুলছেন। কখনো বা ক্যাম্পাসে পথচলার, ভালোলাগার স্মৃতি তুলছেন কলমের কালিতে গল্পের মাধ্যমে। স্মৃতির পাতায় স্মরণীয় করতে তারই ধারাবাহিকতায় তরুণ এই গল্পকার নিয়মিত লেখছেন সিরিজ গল্প, 'আমি এবং আমাদের গল্প'। যা ক্রমান্বয়ে প্রথম বই থেকে দ্বিতীয়ও বইয়েও স্থান পেয়েছে।

ভবিষ্যতে 'আমি এবং আমাদের গল্প' সবকটি গল্প একত্রে বই আকারে আসবে বলে জানান গল্পকার।

গল্পকার তার জীবনের ইচ্ছে সম্পর্কে বলেন, আমি লিখতে চাই। আমার লিখার মাধ্যমে ফুটিয়ে তুলতে চাই পাওয়া না পাওয়ার কথা। সুখদুঃখ, হাসিকান্না। গেলো বসন্ত কেমন ছিল। আসছে বসন্ত কেমন! প্রতিটা মানুষের অব্যক্ত কথা। সংগ্রাম ও সফলতার কথা। মানুষের বৈচিত্রময় জীবন ব্যবস্থার কথা। আমি বলতে চাই, আপনি, তুমি, তুই এর কথা। এককথায় আমি তুলে ধরতে চাই, আমি এবং আমাদের গল্প।


সিলেটভিউ২৪ডটকম/এএ/এসডি-৪

শেয়ার করুন

আপনার মতামত দিন