আজ সোমবার, ১২ এপ্রিল ২০২১ ইং

সিলেটে চতুর্থদিনের লকডাউন লেজেগোবরে

সিলেটভিউ টুয়েন্টিফোর ডটকম, ২০২১-০৪-০৮ ১১:৫৯:১৯

নগরীর বন্দরবাজার এলাকা থেকে ছবিটি তুলেছেন আলোকচিত্রী মোজাম্মেল হক।

নিজস্ব প্রতিবেদক :  লকডাউনের তো দূরের কথা সিলেটে স্বাস্থ্যবিধি মানছেন না অধিকাংশ লোক। করোনা সংক্রমণ বিস্তার এড়াতে সরকার ঘোষিত লকডাউনে শুরু থেকেই মানুষের উদাসীনতা ছিলো চোখে পড়ার মতো। লকডাউনের প্রথম তিনদিনের তুলনায় চতুর্থ দিনে সিলেটে আরও বেশী গা ছাড়া ভাব মানুষের মধ্যে। প্রয়োজন ছাড়া ঘর থেকে বের না হওয়ার জন্য সরকারের নির্দেশনা থাকার পরেও সিলেটের হাট-বাজার রাস্তাঘাট, বাস টার্মিনালে মানুষের উপস্থিতি ছিলো অন্যদিনের চেয়ে বেশী।

বৃহস্পতিবার (৮ এপ্রিল) সিলেট সিটি করপোরেশনের বাস, গণপরিবহন লেগুনা, সিএনজি অটোরিকশাসহ সিলেট জকিগঞ্জ সড়কে স্বল্প সংখ্যক বাসও চলাচল করতে দেখা গেছে। রমজান মাসকে সামনে রেখে নগরীর কালিঘাট, বন্দরবাজার, জিন্দাবাজারসহ আশপাশ এলাকার শপিং মহল বন্ধ থাকলেও নিত্যপণ্যের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান খোলা রয়েছে। লকডাউনের আওতাভুক্ত অনেক ব্যবসা প্রতিষ্ঠান এক সাটার খোলে ব্যবসা করতেও দেখা গেছে।

এদিকে, সোমবার থেকে শুরু হওয়া লকডাউনের প্রভাব জনজীবনে খুব একটা পড়েনি। তবে লকডাউন নীতিমালা বাস্তবায়নে তিনদিন সিলেটে অভিযান চালিয়েছে সিটি কর্পোরেশন ও জেলা প্রশাসন। সরকারের নির্দেশনার বাহিরে নগরীরে যেসব ব্যবসা প্রতিষ্ঠান খোলা হয়েছিলো সেগুলো পুলিশ সর্তক করে বন্ধ করে দেয়। সিলেট থেকে ট্রেন চলাচল বন্ধ থাকলেও চলাচল করছে স্বল্প সংখ্যক বাস।এছাড়া নগরীর পাইকারি পণ্যের বাজার কালিঘাটে বেচা-কেনা স্বাভাবিক।

অপরদিকে, করোনা পরিস্থিতিতে লকডাউনের মেয়াদ বাড়ালে তা মেনে নেবেন না সিলেটের ব্যবসায়ীরা। আগামী রোববার (১১ এপ্রিল) সন্ধ্যা থেকে তারা দোকানপাট খোলার ঘোষণা দিয়েছেন। বুধবার (৭ এপ্রিল) নগরীর বন্দরবাজারস্থ হাসান মার্কেটে বৈঠক শেষে ব্যবাসয়ী নেতারা এ ঘোষণা দেন। একই সাথে তারা দেশের ব্যবসায়ীদের অবস্থা বিবেচনায় নিয়ে লকডাউন না বাড়ানোর দাবি জানিয়েছেন। লকডাউন পরিস্থিতি নিয়ে বুধবার (৭ এপ্রিল) সকালে হাসান মার্কেটে বৈঠকে বসেন ব্যবসায়ীরা। সিলেট মহানগর ব্যবসায়ী ঐক্য কল্যাণ পরিষদের উদ্যোগে ডাকা সভায় বক্তারা চলমান এক সপ্তাহের লকডাউনের মেয়াদ না বাড়ানোর দাবি জানান।

ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দ বলেন, গত বছর লকডাউনের কারণে ব্যবসায়ীদের দোকানপাট বন্ধ রাখতে হয়েছে। প্রায়  এক বছরের বেশি সময় তারা ব্যবসায় থেকে বঞ্চিত হন। যখন কিছুটা ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা করছেন তখন আবারো এক সপ্তাহের লকডাউন দেয়া হয়েছে। এতে ব্যবসায়ীরা পথে বসার উপক্রম। করোনা পরিস্থিতিতে তারা স্বাস্থ্যবিধি মেনে ব্যবসা করতে চান। প্রতিটি বিপণীবিতান ও ব্যবসায় প্রতিষ্ঠানে ব্যবসায়ীরা ক্রেতা-বিক্রেতাদের জন্য নিজ উদ্যোগে স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিত করবেন। লকডাউনে অন্যান্য খাত চালু রেখে শুধুমাত্র ব্যবসায় প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখা অমানবিক। তাই বৃহস্পতিবার লকডাউন নিয়ে যে সভা হওয়ার কথা, সেই সভায় লকডাউনের সময় বৃদ্ধি না করার আহ্বান জানান তারা।

সিলেট মহানগর ব্যবসায়ী ঐক্য কল্যাণ পরিষদের সভাপতি আব্দুর রহমান রিপন বলেন, সরকারের সিদ্ধান্তকে আমরা মেনে নিয়েই ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রেখেছি। এমনিতেই দেয়ালে আমাদের পিঠ লেগে গেছে। অনেক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছি। ঘোষিত এক সপ্তাহের লকডাউনের পর যদি আর লকডাউন দেয়া হয় তাহলে আমরা তা না মেনে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান খোলা রাখব। এছাড়া আমাদের আর কোনো উপায় দেখছি না।

সিলেট ভিউ ২৪ ডটকম/পিটি-১০






শেয়ার করুন

আপনার মতামত দিন