আজ শুক্রবার, ০৫ জুন ২০২০ ইং

সূর্যের আলো কি করোনা মারতে পারে?

সিলেটভিউ টুয়েন্টিফোর ডটকম, ২০২০-০৩-৩০ ২১:০৯:৪৮

সিলেটভিউ ডেস্ক :: ঋতু পরিবর্তনের সঙ্গে সঙ্গে প্রতিটি সংক্রামক ব্যাধি তার গতিপ্রকৃতি পাল্টায়। ফ্লু সাধারণত শীতের সময় হয়। ঠিক করোনাভাইরাসও যেমনটা এসেছে। অন্যদিকে টাইফয়েড আসে গরমে। এখন তাই অনেকের ভাবনা, শীতে শুরু হওয়া করোনাভাইরাস তবে কি ঋতু পরিবর্তন অর্থাৎ,গরমে কমে যাবে? গত বছরের ডিসেম্বরে চীনে করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব ছড়িয়ে পড়ে। ভাইরাস দ্রুত ছড়ায়। এখন চীন ছাড়িয়ে এ ভাইরাস ইউরোপ ও যুক্তরাষ্ট্রে বিস্তার লাভ করছে। এখন পর্যন্ত যেসব অঞ্চলে করোনা বড় আকারে ছড়িয়েছে, সেসব শীতপ্রধান অঞ্চল এবং ঠান্ডা পরিবেশেই এ ভাইরাস বেশি ছড়িয়েছে। তাই করোনাভাইরাস গরমে থাকবে কি না, এ প্রশ্ন ক্রমেই জোরালো হয়ে উঠেছিল।

সূর্যের তাপে করোনাভাইরাস মরে যেতে পারে বলে সোশ্যাল মিডিয়ায় রটনা ছড়িয়েছে। তবে সেই দাবি অসার বলেই বলছেন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ও বিশেষজ্ঞরা।

নতুন করোনাভাইরাস সূর্যের আলো মেরে ফেলছে বলে একটি হোস্টাইল স্বাস্থ্য ব্লগের নিবন্ধে দাবি করা হয়েছে। এই নিবন্ধের উদৃতি দিয়ে সূর্যের তাপে করোনাভাইরাস মরবে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এমন প্রচার চলছে জোরে সরে। ব্লগ পোস্টটির লেখক ডেভিড ফ্রিডম্যান।

নিবন্ধটিতে লেখক বলছেন, আমার মতে সৈকত বন্ধ রাখা এবং লোকদের বাড়ির ভিতরে আটকে রাখা একটি খারাপ সিদ্ধান্ত। বেশি রোদে ভাইরাস মরে যাবে, এটি একটি কার্যকরি পদক্ষেপ। সূর্যের তাপে আমরা সকলেই বর্তমান করোনাভাইরাস প্রাদুর্ভাব থেকে নিজেকে রক্ষা করতে পারি। আপনারা বাড়ির অভ্যন্তরে কোয়ারেন্টিনে থাকার পরিবর্তে বাইরে যান এবং রোদে কিছুক্ষণ শরীর ভিজিয়ে রাখুন, করোনাভাইরাস মরে যাবে।' ফ্রিডম্যানের এই অদ্ভুত দাবি বিদ্যুৎগতিতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ও বিভিন্ন অনলাইন গণমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে।

উত্তর ক্যারোলিনার রিপাবলিকান দলীয় নেতা ও চিকিৎসক গ্রেগ মারফি টুইটারে একটি ভিডিও প্রকাশ করেছেন। সেখানে তিনিও বলেছেন, রোদে করোনাভাইরাস মরে। ভিডিওতে দেখা যায় ইউরোলজি এবং রেনাল ট্রান্সপ্ল্যান্টেশনের চিকিৎসক মারফি, একটি বড় সাদা বোর্ডের সামনে স্ক্রাবের মধ্যে দাঁড়িয়ে আছেন এবং করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়া প্রতিরোধে বিষয়ে টিপস দিচ্ছেন। তার সামনে থাকা আইটেমগুলির মধ্যে একটি হল 'সানলাইট (ইউভি আলো) ভাইরাসটিকে মারতে পারে।'

ইউএসএ টুডে ফ্রিডম্যান এবং মার্ফির কাছে তাদের দাবির বিষয়ে বিস্তারিত জানতে মন্তব্যের জন্য অনুরোধ জানিয়েছিল তবে তাদের কেউই সাড়া দেননি।

একই দাবি মার্চ মাসে থাই পত্রিকা কমচাদলিউকেও প্রকাশিত হয়েছিল। নিবন্ধটিতে সূর্যের আল্ট্রাভায়োলেট রশ্মি কোভিড -১৯ ভয় পায় এমন সাতটি বস্তুর একটি হিসাবে উল্লেখ করা হয়েছে। এএফপি ফ্যাক্ট চেক জানিয়েছে যে, নিবন্ধটি ফেসবুকে থাই ভাষার একটি স্বাস্থ্য সম্পর্কিত গ্রুপে প্রথম প্রকাশ করার পর সেটি ৬ হাজারেও বেশি শেয়ার হয়েছে এবং একাধিকবার সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করা হয়েছে। শেষ পর্যন্ত এটি ইংরেজি এবং স্প্যানিশ ভাষায়ও অনুবাদ করা হয়েছে।

বিশেষজ্ঞরা কী বলছেন

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, সূর্যের ইউভি আলো করোনভাইরাসকে মেরে ফেলতে পারে না এবং কনসেন্ট্রেটেড ইউভি আলো ভাইরাসটিকে মারার জন্য ব্যবহার করা উচিত নয়। সূর্যের আলো করোনাভাইরাস মারতে পারে, দাবিটি ইন্টারনেটে ব্যাপকভাবে শেয়ার করা হয়েছে, তবে এটির কোন সত্যতা নেই। বিশেষজ্ঞরা করোনাভাইরাস প্রতিরোধ বা চিকিৎসার জন্য কনসেন্ট্রেটেড আল্ট্রাভায়োলেট রশ্মি ব্যবহার না করার পরামর্শ দিয়েছেন এবং ভাইরাসটি হ্রাসে সূর্যের আলোতে যাওয়ার পরামর্শও তারা দিচ্ছেন না।

বিশেষজ্ঞরা মনে করেন যে, সূর্যের আলোতে যা পাওয়া যায় তার তুলনায় অনেক বেশিমাত্রার আল্ট্রাভায়োলেট রশ্মিই কেবল ভাইরাসকে হত্যা করতে পারে। তবে এটা ব্যবহার করতে নিষেধ করেছেন বিশেষজ্ঞরা। তাদের মতে আল্ট্রাভায়োলেট রশ্মির যে স্তরগুলি ভাইরাসকে হত্যা করতে সক্ষম হয়েছে, তা মানুষের স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর এবং ত্বকে জ্বালা পোড়া হতে পারে।

চুয়ালালংকর্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইরোলজির সহকারী অধ্যাপক পোকারথ হানসসূতা এএফপি ফ্যাক্ট চেককে এ ক্ষেত্রে কী ঘটে তা ব্যাখ্যা করেছিলেন। তিনি বলেছেন, 'অতিবেগুনী রশ্মি কোভিড-১৯ কে মেরে ফেলতে সক্ষম হয় যদি নির্দিষ্ট সময় এবং দূরত্বের একটি নির্দিষ্ট পরিমাণে ঘন ইউভি রশ্মির সংস্পর্শে আসে। তবে, ইউভি এক্সপোজারের সেই স্তরটি মানুষের ত্বকের জন্য ক্ষতিকারক। সম্ভবত, এটি হালকা বাল্ব বা বাতিতে থাকবে কারণ সূর্য থেকে প্রাকৃতিক ইউভি এটি মারার পক্ষে যথেষ্ট শক্তিশালী নয়।'

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা একমত

বিশেষজ্ঞদের সঙ্গে একমত বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। তারা বলছে, করোনভাইরাস সম্পর্কে অনেকেই নানা গুজব ছড়াচ্ছে। এসব গুজব রটনাকারীরাই জনসাধারণকে ভাইরাসটি মারার জন্য ইউভি আলো ব্যবহার করার জন্য পরামর্শ দিচ্ছেন। তবে এটি ঠিক নয়।

ইউভি বাতিগুলি হাত বা ত্বকের অন্যান্য অংশ জীবাণুমুক্ত করতে ব্যবহার করা উচিত নয়, কারণ ইউভি রেডিয়েশনের ফলে ত্বকে জ্বালা হতে পারে।

ডাব্লুএইচও বা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র কেন্দ্রীয় রোগ নিয়ন্ত্রণ ও প্রতিরোধ কেন্দ্রগুলির ওয়েবসাইটেও সূর্যালোক বা ইউভি আলো উভয়ই প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা হিসাবে তালিকাভুক্ত নয়।

তবে আবহাওয়া উষ্ণ হওয়ার সাথে সাথে ভাইরাসের বিস্তার কমতে পারে বলে কিছু প্রমাণ রয়েছে। এটি সুস্থ থাকার জন্য কিছু মানুষকে ভুলভাবে সূর্যের আলোয় করোনা মরবে এমন পরামর্শকে বিশ্বাসে চালিত করতে পারে।

টিআইএম ম্যাগাজিন নতুন এটি গবেষণা প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে, সেখানে তাপ এবং করোনভাইরাস ছড়িয়ে যাওয়ার হারের মধ্যে সংযোগের সম্ভাবনা রয়েছে বলে বলা হয়েছে। তবে বিশেষজ্ঞরা সিদ্ধান্তে পৌঁছেছেন যে, গবেষণা এখনও প্রাথমিক পর্যায়ে এবং চূড়ান্ত নয়।

যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় প্রতিরোধক ও শ্বাসকষ্টজনিত রোগের সিডিসির কেন্দ্রের পরিচালক ন্যানসি মেসননিয়ার বলেছেন,'করোনাভাইরাস কীভাবে তাপ বা সূর্যের আলোতে প্রতিক্রিয়া দেখাবে তা স্পষ্ট নয়। আমি মনে করি এটি অনুমান করার সময় এখনো আসেনি। আমরা এই প্যাথোজেনের সাথে এক বছরও কাটাইনি।'

ফ্রেডম্যান সূর্যের আলো করোনাভাইরাসকে মেরে ফেলে বলে যে দাবি করেছেন সেটা মিথ্যা। সূর্যের আলো করোনভাইরাসকে মেরে ফেলেছে এমন কোনও প্রমাণ নেই। কেবলমাত্র উচ্চ কনসেনট্রেটেড ইউভি রশ্মিই ভাইরাসগুলি মারতে পারে। তবে এটি ব্যবহার না করার জন্য বলেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। ইউভি রশ্মি ব্যবহারের ত্বকের ক্ষতি করতে পারে।

সৌজন্যে : কালের কণ্ঠ

সিলেটভিউ২৪ডটকম/৩০ মার্চ ২০২০/মিআচৌ

শেয়ার করুন

আপনার মতামত দিন