আজ শনিবার, ০৬ জুন ২০২০ ইং

বানিয়াচংয়ে ত্রাণ সহায়তার আশায় গাছের নিচে বসে আছেন ৫ বৃদ্ধা

সিলেটভিউ টুয়েন্টিফোর ডটকম, ২০২০-০৫-১৮ ১৫:০৭:৩০

জসিম উদ্দিন, বানিয়াচং :: বানিয়াচংয়ের ১ নং ইউনিয়নের ৫ নং ওয়ার্ডের তাম্বলীটুলার বাসিন্দা আয়মনা বিবি। বয়স ৭০ বছর। এই বৃদ্ধ বয়সে প্রতিদিন বানিয়াচং উপজেলা চত্বরে সকাল থেকে বিকাল পর্যন্ত বসে থাকেন সরকারি-বেসরকারি কোনো সাহায্যের আশায়।

গত ৩ দিন যাবত তিনি নিয়মিত সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত বসে থাকেন উপজেলা চত্বরে একটি গাছের নিচে। কিন্তু প্রতিদিনই শূন্য হাতে ফিরতে হয় তাকে।

শুধু আয়মনা বিবিই নন তার সঙ্গে রয়েছেন আরও ৪ নারী। এদের ২ জনের বাড়ি ২ নং ইউনিয়নের ৩ নং ওয়ার্ডের তকবাজখানীত। একজনের বাড়ি ১ নং ইউনিয়নের ১ নং ওয়ার্ডের দত্তপাড়ায়। আর অপরজনের বাড়ি ২ নং ইউনিয়নের আদর্শ বাজার সংলগ্ন। এদের কেউ কেউ স্বামী সন্তানহীন, কারও স্বামী আবার উপার্জন করতে অক্ষম। 

সোমবার বেলা ১১ টার দিকে এই প্রতিবেদকের সঙ্গে দেখা হলে কান্নায় ভেঙে পড়েন এই আয়মনা বিবিরা।

তারা জানান, করোনা মহামারি শুরু হওয়ার পর থেকেই দেখে আসছি প্রায় প্রতিদিনই অসহায়দের ত্রাণ সহায়তা দিচ্ছে সরকারি ও বেসরকারি অনেক সংগঠন। বিত্তবানরা কেউ কেউ নিজ উদ্যোগেও দিচ্ছেন ত্রাণ। কিন্তু আজ অবধি তাদের কপালে জোঠেনি কোনো ত্রাণ সহায়তা।

কান্না জড়িত কণ্ঠে আয়মনা বিবি বলেন, ‍“মাইনষেরে জিগাইলে কয় উপজেলায় গাছের নিচে সাহায্য দেওয়া অয়। এর লাগি আইজ ৩ দিন ধইরা সকাল থাইক্যা বিকাল পর্যন্ত গাছের নিছে আইয়া বইয়া থাকি। কিন্তু কেউ কিছু জিগায়ও না কিছু দেয়ও না। এক বেটারে জিগাইলাম বেটায় কয় কোছতা জানে না।”

এই প্রতিবেদকে তিনি জিজ্ঞেস করেন, ‘তুমি কে রে বাবা?’

একথা শুনে প্রতিবেদকের সঙ্গে থাকা তার বন্ধু আলিয়া মাদ্রাসার ইংরেজি বিভাগের প্রভাষক সাইদুর রহমান ৫শ’ টাকা সাহায্য দেন। টাকা পেয়ে আবেগপ্রবণ হয়ে পড়েন আয়মনা বিবিরা। টাকা হাতে নিয়ে কেঁদে কেঁদে দোয়া করতে থাকেন তারা।

করোনাকালের এই রমজানে এলাকার বিত্তবানসহ সরকারি-বেসরকারি সাহায্যের দিকে তাকিয়ে আছেন তারা।        


সিলেটভিউ২৪ডটকম/১৮ মে ২০২০/জেইউ/এসডি

শেয়ার করুন

আপনার মতামত দিন