আজ বৃহস্পতিবার, ২১ জানুয়ারী ২০২১ ইং

রাজনগরে মানবপাচারের মিথ্যা অভিযোগ ও হয়রানীর দাবি

সিলেটভিউ টুয়েন্টিফোর ডটকম, ২০২০-১১-২৭ ১৮:৪৫:৩৬

রাজনগর (মৌলভীবাজার) প্রতিনিধি :: মৌলভীবাজারের রাজনগরে মানবপাচারের মিথ্যা অভিযোগে হয়রানি করার দাবি করেছেন উপজেলার উত্তরভাগ ইউনিয়নের কান্দিগাঁও গ্রামের মো. কয়েশ আহমদ। একজনকে ফ্রান্সে নেয়ার ব্যাপারে দুই পক্ষের মধ্যে লেনদেনের ’মিডিয়া’ হিসেবে তাকে রাখা হলেও এখন তাকে মানবপাচারকারী হিসেবে উল্ল্যেখ করে বক্তব্য দেয়া হচ্ছে। এতে ব্যক্তিগত ও পারিবারিক সম্মানহানী করা হচ্ছে বলে রাজনগর প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করে দাবি করেছেন তিনি।  

লিখিত বক্তব্যে মো. কয়েশ আহমদ বলেন, ২০১৮ সালের আগস্ট মাসে রাজনগর উপজেলার উত্তরভাগ ইউনিয়নের উমরপুর গ্রামের লিয়াকত মিয়া লেবু তার মেয়ে খাদিজা আক্তার সীমাকে ফ্রান্সে তার স্বামীর কাছে পাঠানোর জন্য সিলেট সদরের বোরবোরিপাড়া এলাকার হাবিবুর রহমান সুজনের সাথে কথা বলেন। তাদের দুইপক্ষ পূর্ব  পরিচিত হওয়ায় আলাপ-আলোচনা ও লেনদেনের ‘মধ্যস্ততাকারী’ হিসেবে আমাকে (মো. কয়েশ) রাখেন। প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী লিয়াকত আলী লেবুর মেয়েকে ভারতে নিয়ে গিয়ে ফ্রান্সের ভিসা পাসপোর্টে লাগানোর পর আমার কাছে গচ্ছিত রাখা ১৪ লক্ষ টাকা হাবিবুর রহমান সুজনকে দেয়ার কথা ছিল। পরে ভারতে যাওয়ার কয়েকদিন পর খাদিজা আক্তার সীমা ও তার দেবর রায়হান আহমদ ফ্রান্সের ভিসা পাসপোর্টে লাগানো হয়েছে বলে আমাকে  (মোঃ কয়েশ) জানান। ভিসা হওয়ার পর হাবিবুর রহমান সুজনের দেয়া তিনটি একাউন্টে ১৪ লাখ টাকা জমা দেন তিনি। এ সময় লেবু মিয়াও সঙ্গে ছিলেন। পরে ফ্রান্সে যাওয়ার উদ্দেশ্যে ভারতের পাঞ্জাবের অমৃতসর বিমানবন্দরে গেলে সেখানকার কর্তব্যরত অফিসাররা ভিসাটি জাল বলে শনাক্ত করেন। বিষয়টি জানার পর কয়েক দফা চেষ্টা করেও হাবিবুর রহমান সুজনের কাছ থেকে কেনো সদুত্তর না পাওয়ায় এবং লিয়াকত আলী কর্তৃক বারবার টাকার জন্য হুমকি-ধমকি দেওয়ায় মৌলভীবাজার সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে ৬ জনকে আসামী করে মামলা দায়ের করেন বলে তিনি জানান।   
 
লিখিত বক্তব্যে তিনি আরো বলেন, মূলত দুইপক্ষের লেনদেনে মধ্যস্ততাকারী হিসেবে তাকে রাখা হলেও গত ১৬ নভেম্বর রাজনগর প্রেসক্লাবে খাদিজা আক্তার সীমার দেবর রায়হান আহমদ তার বিরুদ্ধে ‘মানবপাচারকারী’ আখ্যায়িত করে অভিযোগ আনেন। এই অভিযোগ মিথ্যা ও ভিত্তিহীন দাবি করে তিনি বলেন, ব্যক্তিগত ও পারিবারিক সম্মানহানী করতেই এমন অভিযোগ করা হচ্ছে।

সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে কয়েশ আহমদ বলেন, হাবিবুর রহমান সুজনের গ্রামের বাড়ি মুন্সিগঞ্জ জেলা সদরের সর্দারপাড়া এলাকায়। তবে তিনি দীর্ঘদিন ধরে সিলেট সদরের বোরবোরিপাড়া এলাকায় বসবাস করছেন।  

সিলেটভিউ২৪ডটকম/ ২৭ নভেম্বর ২০২০/ সোহেল/জুনেদ    

শেয়ার করুন

আপনার মতামত দিন

সাম্প্রতিক মৌলভীবাজার খবর

  •   শ্রীমঙ্গল ছোট ভাইয়ের দায়ের কোপে বড় ভাই নিহত
  •   করোনাক্রান্ত সাবেক এমপি শাহীনের রোগমুক্তিতে কুলাউড়ায় দোয়া
  •   বড়লেখায় আগর গাছ কেটে নেওয়ার অভিযোগ, মামলা
  •   শরীফপুর চেয়ারম্যান প্রার্থীতা প্রকাশ করায় চুরির অভিযোগে হয়রানী
  •   বড়লেখায় উপজেলা পর্যায়ে অ্যাডভোকেসি কর্মশালা
  •   কুলাউড়ায় যুবলীগ নেতাকে হামলার ঘটনায় প্রধান আসামী কামরুলসহ আটক ২
  •   কমলগঞ্জে ১৭ দেশের রানারদের ‌‘আল্ট্রা ট্রেইল ম্যারাথন’ ২৯ জানুয়ারি
  •   অভিযোগ অস্বীকার করলো নব ঘোষিত জুড়ী উপজেলা ছাত্রদল
  •   রাজনগরে ইউনিয়ন পরিষদ ও আইসিটি আইন বিষয়ক প্রশিক্ষণ
  •   কুলাউড়া পৌর নির্বাচনের ফল প্রত্যাখান করে তিন মেয়র প্রার্থীর সংবাদ সম্মেলন