আজ শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০১৯ ইং

নববর্ষ ও ভালবাসা

সিলেটভিউ টুয়েন্টিফোর ডটকম, ২০১৯-০৪-১৪ ০১:১৬:২৩

অমিত দাশ :: উমানের আকাশে আজ বিকেলে হঠাৎ করেই ধূলিঝড় বয়ে গেল। ডিউটি শেষ করে ঝড়ের দাপটে কোনমতে শরির ভরা ধূলো নিয়ে মেসকক্ষে ঢুকলো রায়হান। বাবা মারা যাওয়ার পর থেকে আজ প্রায় ছয় বছর উমান আছে রায়হান। পরিবারের ছোট ভাই বোন সহ সবার দায়িত্ব তার। মোবাইলটা হাতে নিতেই দেখতে পেল আর মাত্র কিছুক্ষন পরই বাংলাদেশে ১৪ই এপ্রিল। পহেলা বৈশাখ, বাঙালীর প্রাণের উৎসব বাংলা নববর্ষ।

গতবছর এই দিনটির কিছু কথা কিছু স্মৃতি তার চোখে ভেসে উঠলো। ভাবলো আগামিকাল ছুটি নিবে সারাদিন বাড়ির সবার সাথে কথা বলবে সে। ভেবে ভেবে রাতের খাবার শেষে ক্লান্ত শরির এলিয়ে দিল বিছানায়। ভেবেছিলো হয়তো কেউ একজনের ফোনকলে ঘুম ভাঙবে তার কিন্তু রায়হানের ঘুম ভাঙলো একটি দুঃস্বপ্নে। ঘুম ভাঙ্গা চোখে মোবাইলের স্কিনটাতে সময় দেখে বুঝতে পারলো আজ অনেক দেরি হয়ে গেছে ঘুম থেকে উঠতে। ডিউটি থেকে ছুটি নিয়েছে তাই হয়তো আলস্য কাটিয়ে উঠেনি সে। কিছুক্ষন বিছানায় গড়াগড়ি করে উঠে ফ্রেস হয়ে নিল রায়হান। নাস্তা সেরে মা কে ফোন করলো সে দু-তিনবার ফোন করার পর ফোন রিসিভ না করায় টিভিতে নববর্ষের প্রভাতফেরি দেখতে লাগলো রায়হান। ঘন্টা কেটে গেল এর পরও অপাশ থেলে কোন ফোন এলনা। নানান আজেবাজে চিন্তার ঘোর কাটিয়ে আবার মাকে ফোন করলো রায়হান। এবার ফোন রিসিভ হলো।

হ্যালো মা?
মাঃ হ্যালো রায়হান
রায়হানঃ শুভ নববর্ষ মা। কেমন আছো তোমরা সবাই।
মাঃ ভালো বাবা তুই কেমন আছিস।
রায়হানঃভালো মা তোমাদেরকে খুব মিস করছি।  তাই আজ কাজের ছুটি নিয়েছি। আজ সারাদিন তোমার সাথে কথা বলব।
মাঃ ঠিক আছে বাবা কিন্তু তোর বোন দুলাভাই এসেছে আমার তো এখন হাতে অনেক কাজ। তোর সাথে আমি পরে কথা বলি?
রায়হানঃ আচ্ছা ঠিক আছে।
ফোনটা কেটে গেল বিষন মন খারাপ নিয়ে বসে রইলো রায়হান।

রায়হানের ছোট ভাই রুহান। এবার অনার্স দ্বিতীয় বর্ষে পড়ছে একটা প্রাইভেট ইউনিভার্সিটিতে। রুহানের থেকে মাত্র দুই বছরের বড় রায়হান। অথচ রুহান ছোট হওয়ায় কত আরামেই না আছে। গত সপ্তাহে রুহানকে নতুন বাইক কিনে দিয়েছে রায়হান। রুহান ও অনেক খুশি হয়েছে। যতই হোক সে বড় পরিবারের সব দায়িত্ব তার। এসব নিয়ে মন খারাপ করে না সে। রুহানের কথা মনে পরতেই রুহানকে একটা ফোন দিল রায়হান। প্রথমবার ফোন রিসিভ না হওয়াতে আরেকবার ফোন দিল সে। এবার রিসিভ হলো ফোন।
রায়হানঃ কিরে কেমন আছিস?
রুহানঃ এইতো ভাইয়া ভালো। তুমি?

রায়হানঃ ভালো। কি করিস?
রুহানঃ এইতো ভাইয়া বাইক নিয়ে বের হয়েছি, বন্ধুদের সাথে একটু আড্ডা দিব তারপর মেলায় যাব।
রায়হানঃ হুম হেলমেট নিয়েছিস তো?
রুহানঃ হুম ভাইয়া নিছি। আচ্ছা ভাইয়া আমি তোমার সাথে পরে কথা বলি আমার বন্ধুরা এসে গেছে।
রায়হানঃ আচ্ছা ঠিক আছে সাবধানে গাড়ি চালাবি কিন্তু।
এবারও ফোনটা কেটে গেল। কিছুটা নিরবতা কিছুটা অব্যক্ত কথা আর কিছুটা দীর্ঘশ্বাস নিয়ে চুপচাপ বসে রইলো রায়হান।
ভাবতে লাগলো রুহানের সঙ্গে তার ছোটবেলায় কাটানো মূহুর্তগুলো। সেই ছোট্ট রুহান আজ কত বড় হয়ে গেছে রায়হানের জন্য তার কোন সময় নেই। ফোন দিলেই বন্ধু, আড্ডা, ব্যস্ততা।
মন খারাপ না করে আবারও টিভি দেখতে বসে গেল রায়হান।

কিছুক্ষন পর তার একমাত্র বড় বোন রোদেলা আপুকে ফোন করলো সে। দু-এক মিনিট কথা বলেই আপু বল্লেন তোর দুলাভাইকে খাবার দিব এখন। তোর দুলাভাইয়ের তো খাবার সময়ের এদিক দেসিক হলে তিনি আর খাবেন না। তোর সাথে পরে কথা বলি। বলেই কেটে দিলেন আপু।
রোদেলা আপুর বিরক্ত মাখা মুখটা ভেসে উঠলো রায়হানের সামনে।
এবার রায়হান ভাবতে লাগলো আজকে ডিউটি থেকে ছুটি না নিলেই হত সারাদিন একা একা বাসায় থেকে কি করবে সে।
দুপুর হয়ে আসছে কিছুক্ষন পরে দ্বিতীয় শিফটের ডিউটি শুরু হবে। নিশ্চুপ মন নিয়ে সব সংকোচ কাটিয়ে সাইট ম্যনেজারকে ফোন দিয়ে জিজ্ঞেস করলো সুমন ভাই আমার ছুটিটা কি কাটানো যাবে? আমার বাসায় একা একা ভালো লাগছেনা।
অপাশ থেকে উত্তর এলো আচ্ছা ঠিক আছে ভালো না লাগলে দ্বিতীয় শিফটে জয়েন করতে পারিস। আমি বসকে বলে ছুটি কাটিয়ে দিব। রায়হান ধন্যবাদ দিয়ে রেখে দিল।

রায়হানের সব ছোট বোন ঋতি এবার কলেজে উঠেছে। আজ সকাল থেকে একবারও কথা হয়নি ঋতির সাথে। ভাবলো ঋতিকে একটা ফোন দিবে আবার ভাবলো সেও হয়তো আজ ব্যস্ত। তবুও ব্যস্ত থাকলেও একবার অন্তত কথা তো বলতে পারবে অন্তত ঋতির কন্ঠটা তো শুনতে পারবে। এই প্রিয় মানুষগুলো যতই ব্যস্ত হোক এরাইতো তার সব। এবার ঋতিকে ফোন দিল রায়হান।
রায়হানঃ কিরে কেমন আছিস?
ঋতিঃ ভালো ভাইয়া তুমি কেমন আছো।
রায়হানঃ ভালো রে তোদের খুব মিস করছি।
ঋতিঃ তোমাকেও মিস করছি ভাইয়া। তুমি আজকে ডিউটি যাওনি?
রায়হানঃ নারে ছুটি নিয়েছি।
ঋতিঃ অহ, তুমি যে ম্যাকাপ বক্সটা দিয়েছো সেটা খুব সুন্দর হয়েছে ভাইয়া। সবাই খুব প্রসংশা করেছে।

রায়হানঃ তোর পছন্দ হয়েছে তো?
ঋতিঃ হ্যা ভাইয়া খুব। আচ্ছা ভাইয়া আমি এখন শাড়ি পরব আমার বান্ধবীরা আসবে,তোমার সাথে পরে কথা বলি।
রায়হানঃ আচ্ছা ঠিক আছে সাবধানে থাকিস।
ফোনটা কেটে দিয়ে কিছুক্ষন কেঁদে নিলো রায়হান। প্রবাসিদের জীবন আসলে এরখমই। একটু কথা বলার মানুষ পাওয়া ও কঠিন। প্রবাসীদের উৎসব মানে কেবল প্রিয়জন দের ভালো থাকা। আর এই প্রিয়জনের ভালো থাকাই তাদের কাছে শ্রেষ্ঠ ভালবাসা। তাদের বেঁচে থাকার অনুপ্রেরণা।
কান্নাভেজা চোখে কিছুক্ষণ সাওয়ার ছেরে গোসল করে নিলো রায়হান। তারপর ডিউটির উদেশ্য নিয়ে বের হয়ে গেলো আমাদের নববর্ষে।

শেয়ার করুন

আপনার মতামত দিন

সর্বশেষ খবর

  •   প্রথমবারের মতো একসঙ্গে বসছে ইরান ও সৌদি আরব
  •   রাবিতে দুই দিনব্যাপী সংগীত বিষয়ক কর্মশালা শুরু
  •   দিরাইয়ে সিফাত উল্যার ফাঁসির দাবিতে মানববন্ধন
  •   'বঙ্গবন্ধুর খুনীদের পুনর্বাসন করেন জিয়া'
  •   আলো রক্তদান সমাজ কল্যাণ সংস্থা সিলেট জেলার পূর্নাঙ্গ কমিটি
  •   সুনামগঞ্জে মিজান হত্যাকান্ড: আসামি ২৪ জন, আটক ৮
  •   সুবীর নন্দীর চিকিৎসার সার্বক্ষণিক খোঁজ নিচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী
  •   সংস্কৃতি মানুষের জীবনের অবিচ্ছেদ্য অংশ: মেয়র আরিফ
  •   সুনামগঞ্জে যুবক খুনে মামলা, আসামি ২৪, গ্রেফতার ৮
  •   যুবককে ৭৭ হাজার বার ফোন করে গ্রেফতার তরুণী!
  •   জগন্নাথপুরে কৃষকদের মধ্যে আউশ ধানের বীজ ও সার বিতরণ
  •   ওসমানীনগরে ভাগ্নে বৌকে ধর্ষণ, ভিডিও ধারণ, মামা শ্বশুর গ্রেফতার
  •   জগন্নাথপুরে পাঁচদিন ধরে অন্ধকারে পল্লী বিদ্যুতের গ্রাহকরা
  •   খালেদা প্যারোলে মুক্তি চাইলে সরকার বিবেচনা করবে: তথ্যমন্ত্রী
  •   সিলেটের চা শিল্পে সুদিন ফিরেছে, লক্ষ্যমাত্রা ছাড়ানো উৎপাদন
  • সাম্প্রতিক মুক্তমত খবর

  •   'বিচারের বাণী নীরবে নিভৃতে কাঁদে'
  •   ঘরে বসে নিজেই করুন মুখের ক্যান্সারের স্ক্রিনিং
  •   পান্তা ভাতে ইলিশ: গ্রামবাংলার কৃষককূলকে অবজ্ঞা করার শামিল
  •   প্রাথমিক শিক্ষা ও মানোন্নয়ন
  •   ক্ষমা করিস নুসরাত
  •   আবুসিনা ছাত্রাবাস: ব্রিটিশ মেডিকেল স্কুলে সেবা ছিল সেই আমলেও
  •   হাজী আব্দুল হক চৌধুরী-মস্তফা খাতুন ট্রাস্ট ও কিছু কথা
  •   ক্যাম্পাস থেকেই বন্ধুত্ব!
  •   সিলেটের যানজটের কারণ ও নিরসনে করণীয়
  •   ব্রেক্সিট: শেষ হয়েও হইলো না শেষ
  •   ‘গরীবের ঘোড়ারোগ না অন্য কিছু?’
  •   হাসপাতাল না জাদুঘর? প্রয়োজন না প্রসাধন!
  •   আসুন ইতিহাসের অংশ হই
  •   আমার আব্বা আব্দুজ জহুর এমপি
  •   ডাক বিভা‌গের উন্নয়‌ন ভাবনা...