আজ বৃহস্পতিবার, ০৪ জুন ২০২০ ইং

আপনাদের কিছু না হলেও তৃণমূলের মন ঠিকই কাঁদে...

সিলেটভিউ টুয়েন্টিফোর ডটকম, ২০১৯-০৫-২০ ০০:২৯:২২

এ. এম. ফারহান সাদিক :: আমি ব্যক্তিগতভাবে নিজেকে একজন মুজিব আদর্শের কর্মী মনে করি। কেননা আমার বিশ্বাসই আমার শক্তি। আমার অন্তর্নিহিত বিশ্বাস হলো, ৫৫ হাজার বর্গমাইলের এই রাষ্ট্রে রাজনীতিবিদ অনেকেই হতে পারেন, তবে নেতা ছিলেন কেবল একজনই। যার আঙ্গুলি হেলনে আমরা এক মোহনায় মিলিত হয়ে সৃষ্টি করেছি ইতিহাস।

তিনি বাঙালির কাছে বঙ্গবন্ধু, ফিদেল কাস্ত্রের কাছে হিমালয়, আর আমার কাছে রাজনীতির মহাকবি, ইতিহাসের রাখাল রাজা জাতির জনক শেখ মুজিবুর রহমান। যিনি কেবলমাত্র একটি স্বাধীন রাষ্ট্র দিয়ে যাননি, দিয়ে গেছেন দেশরত্ন শেখ হাসিনার মতো একজন সফল রাষ্ট্রনায়ক, শেখ রেহানার মতো একজন মমতাময়ী বোন এবং স্বাধীনতা পূর্ব ও পরবর্তী প্রতিটি ক্রান্তিলগ্নের আন্দোলনের অগ্নিশিখা বাংলাদেশ ছাত্রলীগ।

স্বাধীনতা পরবর্তী স্বাধীন বাংলার বুকে দাঁড়িয়ে দ্যর্থহীন কন্ঠে উচ্চারণ করেছিলেন-‌‌‌‌‌‌‌‌‌'ছাত্রলীগের ইতিহাসই বাঙালির ইতিহাস। আর যুগে যুগে এই ছাত্রলীগই সময়ের প্রয়োজনে জন্ম দিয়েছে কালের শ্রেষ্ঠ সন্তানদের। আমি সেই ইতিহাসে যাব না, কেননা তাদের যথাযোগ্য মূল্যায়ন আমার মত ক্ষুদে কর্মীর কলমে যথার্থ হবে কি না সন্দেহ।

আমার আজকের লেখার বিষয় হচ্ছে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের নবগঠিত কমিটি নিয়ে বর্তমান প্রেক্ষাপট ও আমার কিছু ব্যক্তিগত অভিমত। ২০০৭ সালে স্কুল কমিটির সাধারণ সম্পাদক হওয়ার মধ্য দিয়ে যাত্রা শুরু হয়েছিলো ঐতিহ্য, সংগ্রাম আর সাফল্যের সংগঠন বাংলাদেশ ছাত্রলীগে আমার পথচলা। আজকের প্রেক্ষাপটে আপনারা যখন প্রাণের সংগঠনটির সর্বোচ্চ পর্যায়ের নীতিনির্ধারক এবং সংগঠন নিয়ে আপত্তিকর মন্তব্য করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম গরম করছেন, তখন কি একবারের জন্য মনে হয়নি আপনার নিজের অস্তিত্ব-কে নিয়ে প্রশ্ন তুলছেন?

নিজেকে ত্যাগী দাবী করে যদি সংগঠনকে বিতর্কিত করেন তাহলে ত্যাগটা করলেন কোন সংগঠনের জন্য? আপনারা প্রাচ্যের অক্সফোর্ডে পড়ালেখা করে যখন বঙ্গবন্ধুর নিজ হাতে গড়া সংগঠনকে নষ্টের হলি খেলায় মেতে উঠেছেন তখন আমরা তৃণমূলে নেতাকর্মীরা ছাত্রদল-শিবির কে মোকাবিলা করেও ত্যাগী তকমা না দিয়ে প্রাণের সংগঠনের মায়ায় রাতের ঘুম হারাম করছি। বাংলাদেশ ছাত্রলীগের একমাত্র অভিভাবক দেশরত্ন শেখ হাসিনা ছাত্রলীগের নেতৃত্ব বাছাই করেছেন বলে কি আপনাদের এত অভিমান? তাহলে আমার মত লক্ষ লক্ষ তৃণমূলের কর্মীদের প্রশ্ন, আপনারা আসলেই কি মন থেকে দেশরত্ন কে ভালোবাসেন?

নাকি নিজে ব্যক্তিগত গন্তব্যে পৌছার জন্য আদর্শহীন এক অভিযানে সফল হওয়ার প্রয়াসে আছেন। আমরা তৃণমূলের নেতাকর্মীদের আপনাদের মত কেন্দ্রীয় ত্যাগী নেতা-নেত্রীদের বিরুদ্ধে হয়তো কিছু বলার যোগ্যতা নেই। কিন্তু যখন বঙ্গবন্ধুর নিজ হাতে গড়া সংগঠন এবং দেশরত্নের ভ্যানগার্ড-কে নিয়ে ষড়যন্ত্র শুরু হয়, তখন আপনাদের কিছু না হলেও আমাদের মত তৃণমূলের কর্মীদের মন কাঁদে।

লেখক: সাধারণ সম্পাদক, ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগ ও সাবেক সদস্য, সিলেট জেলা ছাত্রলীগ।

@

শেয়ার করুন

আপনার মতামত দিন