আজ মঙ্গলবার, ০২ জুন ২০২০ ইং

বিলেতে যার হাত ধরে বাঙালি কমিউনিটিতে ব্যাডমিন্টনের হামাগুড়ি

সিলেটভিউ টুয়েন্টিফোর ডটকম, ২০১৯-০৫-২৯ ১৮:০৫:৫০

আতাউর রহমান আতা (বামে), ফখরুল ইসলাম (ডানে)।

ফখরুল ইসলাম :: জন্ম মৌলভীবাজার জেলার বড়লেখা উপজেলার সুড়িকান্দি গ্রামে। যার প্রেরণা আর উৎসাহে পথ চলতে চলতে আজ আমি বিলেতে ব্যাডমিন্টন জগতে ‘ফখরুল ভাই ব্যাডমিন্টন’ হিসাবে বহুল পরিচিত। আর বাঙালি কমিউনিটিতে আজ ব্যাডমিন্টন জনপ্রিয় খেলা হিসাবে প্রতিষ্ঠিত। সেই আতা ভাই সম্পর্কে কৃতজ্ঞতাবশতঃ দু’কথা না বললে কার্পণ্য হয়ে যায়। সেই অনুভুতি থেকে আজকের লিখনীর প্রয়াস।
খুবই সংক্ষিপ্ত আকারে আতা ভাইয়ের রাজনৈতিক এবং সামাজিক অঙ্গনে বিচরণের একটি সম্যক ধারণা দিতে চেষ্টা করছি। ৯০ দশকে বাঙালি কমিউনিটিতে ব্যাডমিন্টনের চর্চা শুরুর পিছনে তাঁর অবদান অনেক বেশি। তাঁর প্রচেষ্টায় শুরু হতে থাকে ছোট ছোট ব্যাডমিন্টন টুর্নামেন্ট, যা আজ আকার নিয়েছে বিশাল। আস্তে আস্তে ব্যাডমিন্টন হয়ে উঠে বাঙালি কমিনিটির জনপ্রিয় খেলা। ব্যাডমিন্টন ফেডারেশন ইউ কে প্রতিষ্ঠার অন্যতম একজন উদ্যোক্তা আতা ভাই। ২০১৭ থেকে ২০১৯ পর্যন্ত ফেডারেশন এর চেয়ারম্যান এর দায়িত্বে ছিলেন তিনি। যাকে আমি ব্যাডমিন্টন এর অভিবাবক মনে করি । যার হাত ধরে আমার ব্যাডমিন্টন জগতের অভ্যাগমন।

যুক্তরাজ্যেও মেইন স্ট্রিম রাজনৈতিক দল লেবার পার্টিও সাথে ১৯৮৭ সাল থেকে আতা ভাই সংশ্লিষ্ট আছেন। এখনো ওই দলটির গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি হিসেবে তিনি কাজ করে যাচ্ছেন। ১৯৯৪ সালে তিনি লেবার পার্টি থেকে কাউন্সিলার নির্বাচিত হন। তিনি কাউন্সিলের বিভিন্ন ধাপে কাজ করেছেন কমিউনিটির হয়ে। তাঁর উদ্যোগে
Mile End I Whitechapel Sports  Centre অনুমোদন ও উদ্বোধন হয়।

প্রিন্স চার্লন্স, প্রিন্সেস আনসহ অনেক বৃটিশ এমপি, মন্ত্রীরা আতা ভাইয়ের কাজের প্রশংসা করেছেন। তাছাড়া মসজিদ, ইসলামিক সেন্টার স্থানেও তার গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা ছিল।

সাংগঠনিক ব্যক্তিত্ব আতা ভাই ইতোমধ্যে বিভিন্ন সংস্থার দায়িত্ব পালন করেছেন। এখনো তার ঘাড়ে অনেক দায়িত্ব। ক্লান্তিহীনভাবে তিনি এসব দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন।

আতা ভাই যেসব দায়িত্ব পালন করেছেন তার মধ্যে রয়েছে কেবিনেট মেম্বার অব আর্টস এন্ড লেজার, চেয়ার- স্যোসাল সার্ভিস কমিটি, ফাইন্যান্স কমিটি, অডিট প্যানেল, বৈশাখী মেলা, কবী নজরুল সেন্টার। এছাড়া যেসব আউট সাইড বডিতে তিনি কাজ করেছেন সেগুলোর মধ্যে রয়েছে টিনকারবেল ট্রাস্ট, বেথনাল গ্রিণ সিটি চ্যালেঞ্জ কোম্পানি, স্পিটালফিল্ডস মার্কেট কমিউনিটি ট্রাস্ট ইত্যাদি। টাওয়ার হ্যামলেটস ভলান্টারি সেক্টরের বিভিন্ন পদে ও তিন যুগ থেকে তিনি কাজ করে যাচ্ছেন।

এই বহুমূখী প্রতিভাবান মানুষ আতা ভাইয়ের সান্নিধ্য পেয়ে  আমি ব্যাডমিন্টনে নিজেকে সমর্পনে উৎসাহ পাই। সেই প্রেরণাতে আজ আমার ‘ফখরুল ভাই ব্যাডমিন্টন’ বৃটেনে প্রাতিষ্টানিক রূপ নিয়ে গৌরবের সাথে দাঁড়িয়েছে।

আতা ভাইয়ের প্রতি আমার কৃতজ্ঞতা, শ্রদ্ধা আর ভালোবাসার বহিঃপ্রকাশ আমার আজকের লিখনি। আতা ভাইয়ের সুন্দর আগামীর জন্য শুভ কামনা। আর এসব কিছুর পিছনে অন্যতম প্রেরণা আমার ভাবী (আতা ভাইয়ের স্ত্রী)।

কমিউনিটির সকল পর্যায়ের মানুষের কাছে আতা ভাইয়ের হয়ে আমার অগ্রিম অনুরোধ আগামীতে যদি কোন সুযোগ আসে তবে যেন আমরা এই গুণী মানুষের পাশে থাকার প্রতিজ্ঞা করি।

লেখক : প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান, বাংলাদেশ ব্যাডমিন্টন ফেডারেশন ইউকে

@

শেয়ার করুন

আপনার মতামত দিন