আজ সোমবার, ১৭ ফেব্রুয়ারী ২০২০ ইং

সুনামগঞ্জে সুরমা ও ধোপাজান নদীতে চাঁদাবাজি থামছে না

সিলেটভিউ টুয়েন্টিফোর ডটকম, ২০১৯-০৯-০৮ ১৫:২৩:১১

ফাইল ছবি

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি :: নৌপথে চাঁদাবাজি বন্ধে প্রশাসনের ‘জিরো টলারেন্স’ ঘোষণার পরও চাঁদাবাজি থামছে না। বরং চাঁদাবাজদের একাধিক সিন্ডিকেট আরো বেপরোয়া হয়ে উঠেছে। এতে অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছেন সুনামগঞ্জের সুরমা ও ধোপাজান নদীতে মালবাহী নৌযানের চালক ও ব্যবসায়ীরা।

নৌযান চালক ও ব্যবসায়ীদের একাধিক সূত্র জানায়, বালু-পাথর ডাম্পিং এলাকা ঘিরে সুরমা ও ধোপাজান নদীর মোড়ে মোড়ে প্রায় দেড় ডজন চাঁদাবাজ সিন্ডিকেট নামে-বেনামে বিভিন্ন রশিদ ও টোকেনের মাধ্যমে প্রতিদিনই লাখ লাখ টাকা চাঁদা আদায় করছে।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, জেলার অন্যতম ব্যবসায়িক প্রাণকেন্দ্র ছাতক থেকে সিলেট জেলার গোয়াইনঘাট এবং ছাতক থেকে সুরমা নদীর প্রবাহ ধরে রাজধানী ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন জেলায় বালি-পাথর সরবরাহ করেন স্থানীয় ও অস্থানীয় ব্যবসায়ীরা। আর এই বালু-পাথর পরিবহনে বাল্কহেড, কার্গো, স্টিলবডি নৌকাসহ প্রভৃতি নৌযান চলাচলের সুবাদে প্রভাবশালীদের ছত্রছায়ায় থেকে সংঘবদ্ধ চাঁদাবাজরা নদীর চলতি পথে এই চাঁদা উত্তোলন করছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বালু-পাথর ব্যবসায়ী এবং নৌকার চালকরা জানিয়েছেন, ছোট ছোট ট্রলার নিয়ে চাঁদাবাজরা মালামাল বহনকারী নৌ-পরিবহনের পিছু নেয় এবং জোর করে চাঁদা আদায় করে। কমপক্ষে ১৫ প্রকার টোকেন দেখিয়ে চাঁদাবাজরা বিভিন্ন স্থানে নৌযান আটকিয়ে প্রতিটি বাল্কহেড, কার্গো, স্টিলবডি নৌকা থেকে ৫শ থেকে এক হাজার টাকা করে চাঁদা আদায় করে নিচ্ছে। এসব চাঁদার টোকেনে নাম হিসেবে রয়েছে- উজান-ভাটি, চলতি নদী, বিআইডব্লিউটিএ, বাঁশ মার্কা, ইউনিয়ন পরিষদ ট্যাক্স, পৌরসভার নিলাম ট্যাক্স প্রভৃতি।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার হালুয়ারঘাট ও আমবাড়ি নামক স্থানের মাঝামাঝি এবং সুনামগঞ্জ সুরমা নদীর উপর নবনির্মিত আব্দুর জহুর সেতু সংলগ্ন সুরমা নদীতে, ওয়েজখালির ভাটিতে দাপটের সাথে চাঁদাবাজি করছে উজান-ভাটি, বিআইডব্লিউটিএ, চলতি নদী নামক টোকেনধারী একাধিক সিন্ডিকেট। প্রভাবশালী বলয়ের ছত্রছায়ায় লালিত এসব চাঁদাবাজ সিন্ডিকেটের সদস্যরা অত্যন্ত বেপরোয়া ও মারমুখী অবস্থায় নৌযানে হানা দিয়ে থাকে। নৌযানে থাকা শ্রমিকরা চাঁদা প্রদান না করলে তাদেরকে বেদম মারপিট করে চাঁদাবাজরা।

বালু-পাথর ব্যবসায়ী আনিসুর রহমান রনি জানান, ওইসব চাঁদাবাজ সিন্ডেকেটের যন্ত্রণায় স্থানীয় এবং দূর-দূরান্তের ব্যবসায়ী ও পরিবহনে সংশ্লিষ্টরা অতিষ্ঠ। কিন্তু এই উৎপাত থেকে মুক্ত থাকার কোন পথ আমরা দেখছি না। কারণ এই কাজে পরোক্ষভাবে প্রভাবশালীরা জড়িত রয়েছেন। যে কারণে প্রাণের ভয়ে এসব দুধর্ষ ও বেপরোয়া সিন্ডিকেটের বিরুদ্ধে কেউ প্রতিবাদ করার সাহস পায় না। আর প্রতিবাদ করলেও প্রতিকার পাওয়া যায় না। তাই বাধ্য হয়ে সিন্ডিকেটের চাহিদা মতো নদীর বাঁকে বাঁকে চাঁদা না দেওয়া ছাড়া আর কোন উপায় নেই।

সুনামগঞ্জ ব্যবসায়ী সমিতির সাংগঠনিক সম্পাদক হাবিব আহমদ জানান, সংঘবদ্ধ চাঁদাবাজরা ধোপাজান অংশে ডাম্পিং কেন্দ্র ডলুরা, জিনারপুর, বালাকান্দি, মনিপুরিঘাট, উড়ারকান্দা, অক্ষয়নগর, ইব্রাহিমপুর, সদরগড়, সুনামগঞ্জ পৌরসভার অভ্যন্তরে বড়পাড়া, মল্লিকপুর, ওয়েজখালি, হবতপুর, টুকেরবাজার প্রভৃতি স্থানে প্রতিদিন বালু-পাথরবাহী নৌযান আটকে বিভিন্ন নামের টোকেন দেখিয়ে চাঁদা আদায় করে। নৌকার ধরণ অনুযায়ী চাঁদার পরিমাণ কম-বেশি হয়ে থাকে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক নৌযানের চালকরা জানান, প্রতি কার্গো, বাল্কহেড থেকে চাঁদা না দিলে তাদের বেদম মারধর করাসহ প্রাণনাশের হুমকি দেওয়া হয়। ট্রিপ নিয়ে চলতি পথে নৌপথ তাদের কাছে ভয়ংকর। এভাবে চলতে থাকলে এক সময় নৌযান পরিবহন বন্ধ হয়ে যাবার আশঙ্কা রয়েছে বলে চালকরা মনে করেন।

এদিকে বিআইডব্লিউটিএর আশুগঞ্জ-ভৈরব বাজার নদী বন্দর, ভৈরব-এর উপ-পরিচালক মো. আসাদুজ্জামানের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, নদী দিয়ে ভাসমান চলন্ত নৌকা, বাল্কহেড, কার্গো বা ট্রলারকে টোল দিতে হবে না কোথাও। সুনামগঞ্জের সুরমা নদীতে বিআইডব্লিইটিএ’র আওতায় শুল্ক আদায় কেন্দ্র নামে অন্য কোন ঘাট বা পয়েন্ট ইজারা দেওয়া নেই। কেউ বিআইডব্লিউটিএ’র নামে কোন ঘাটে টোল আদায় করলে, সেটি বেআইনি ধরে নিতে হবে।

সুনামগঞ্জ পৌরসভার মেয়র নাদের বখত বলেন, পৌরসভার অন্তর্গত সুরমা নদীর তীরে নৌযান থেকে বালু-পাথর ডাম্পিং করলে ট্যাক্স দিতে হয়। তবে চলন্ত নৌযান থেকে চাঁদা আদায়ের কোনো নিয়ম নেই।

সহকারি পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) মাহবুবুর রহমান বলেন, এসপি মহোদয় নদী পথে চাঁদাবাজি বন্ধের কঠোর নির্দেশনা দিয়েছেন। যারা নৌপথে টাকা তুলবে তাদের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির মামলা করা হবে। চাঁদাবাজদের বিরুদ্ধে পুলিশ তৎপর রয়েছে।


সিলেটভিউ২৪ডটকম/০৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯/এসএনএ/এসডি

শেয়ার করুন

আপনার মতামত দিন

সর্বশেষ খবর

  •   কাবা শরিফ ও মসজিদে নববিতে সেলফি তোলা নিষিদ্ধ
  •   ধাতব মূর্তির মধ্যে ধ্যানে মগ্ন সন্ন্যাসী, স্ক্যানে চমকে গেলেন বিজ্ঞানীরা
  •   ভারতের চেয়ে এগিয়ে বাংলাদেশ, দেখিয়ে দিল হিন্দুস্তান টাইমস
  •   সৌদি থেকে দলে দলে শূন্য হাতে ফিরে আসছেন প্রবাসীরা
  •   হবিগঞ্জে করোনা সন্দেহে চীন ফেরত শিক্ষার্থী হাসপাতালে ভর্তি
  •   শুভ সকাল, ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০
  •   বাফুফের সনদ পেলেন গোয়াইনঘাটের ৩ রেফারি
  •   সালুটিকরের আঙ্গারজুরে ফুটবল টুর্নামেন্টের উদ্বোধন সোমবার
  •   বর্ণাঢ্য আয়োজনে সিলেটে ৭ ভাষাসৈনিককে সম্মাননা
  •   আব্দুর রউফ-নুরজাহান ফাউন্ডেশন প্রাথমিক বৃত্তি পরীক্ষার পুরস্কার বিতরণ
  •   একুশের আলোকে নাট্য প্রদর্শনী শেষ হচ্ছে আজ
  •   কমিটির রূপরেখা নির্ধারণে সিলেটে আসছেন যুবদলের কেন্দ্রীয় নেতারা
  •   আজাদ কাপের তৃতীয় রাউন্ডের সাতছড়ি গ্রুপের খেলা সম্পন্ন
  •   ভাষাসৈনিক পীর হবিবুর রহমানের মৃত্যুবার্ষিকী পালিত
  •   বানিয়াচংয়ে ডোবা থেকে যুবকের লাশ উদ্ধার
  • সাম্প্রতিক সুনামগঞ্জ খবর

  •   সুনামগঞ্জে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় এসএসসি পরীক্ষার্থীসহ ২ কিশোর নিহত
  •   দিরাইয়ে প্রাথমকি বিদ্যালয়ে মিড ডে মিল অনুষ্ঠিত
  •   দোয়ারাবাজারে ফসলি জমিতে অপরিকল্পিত খাল খনন
  •   সুনামগঞ্জের বিশ্বম্ভরপুরে মাটিচাপা গৃহবধুর লাশ
  •   দিরাইয়ে বীর মুক্তিযোদ্ধা নির্মল রায় চৌধুরী আর নেই
  •   ‘দক্ষিণ সুনামগঞ্জ টুয়েন্টিফোর ডটকম’র প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত
  •   আজ বাউল সম্রাট আব্দুল করিমের ১০৪ তম জন্মবার্ষিকী
  •   ছাতকে পুলিশের ধাওয়ায় সুরমা নদীতে পড়ে মোহাম্মদ আলীর মৃত্যু
  •   আলোর প্রত্যাশা সামাজিক সংগঠনের উদ্যোগে প্রবাসীদের সংবর্ধনা
  •   ২২ ফেব্রুয়ারি ছাতকের আলীগঞ্জে তাফসির মাহফিল
  •   সুনামগঞ্জে শেষ হল ধামাইল উৎসব
  •   দিরাইয়ে ‘সড়ক পরিবহন আইন ২০১৮’ বাস্তবায়নে সচেতনতা
  •   ছাতকে ফসল রক্ষা বাঁধের কাজে নয়-ছয়, শঙ্কিত হাওর পাড়ের কৃষক
  •   সুনামগঞ্জে শুরু হয়েছে ২ দিনব্যাপী ধামাইল উৎসব
  •   দিরাইয়ে পিআইসি সভাপতি আটক, মুচলেকা দিয়ে মুক্ত