আজ বৃহস্পতিবার, ১৭ জানুয়ারী ২০১৯ ইং

বাংলা নববর্ষ বাঙালির প্রাণের উৎসব

সিলেটভিউ টুয়েন্টিফোর ডটকম, ২০১৮-০৪-১৪ ০০:৩৭:৩২

আল-আমিন :: মাঠ-ঘাট চৌচির করে চারদিকে ঝড় বৃষ্টি নিয়ে হাজির হয় বৈশাখ। কারো বুঝতে অসুবিধা হয় না বৈশাখের প্রলয় নৃত্যের কথা। মুছে যাক গ্লানি ঘুচে যাক জরা অগ্নিস্নানে শুচি হোক ধরা। নতুন বছরের শুরুর লগ্নে ধুয়ে মুছে পবিত্র হোক ধরণী, কবিগুরুর এমন আকুতি আমাদের বাঙালি সত্ত্বাকে প্রতি বছর নিয়ে যায় ঐতিহ্যের দিকে। পহেলা বৈশাখ উদযাপন আমাদের বাঙালির ঐতিহ্য ও সংস্কৃতির প্রবাহকে বাঁচিয়ে রাখে। পহেলা বৈশাখ বাংলাদেশের সবচেড়ে বড় সার্বজনীন উৎসব। এদিন সবাই পেছনে ফেলে আসা শোক, দুঃখ, হতাশা সবকিছু ভুলে এক কাতারে দাঁড়িয়ে প্রত্যাশা করে আসন্ন বছর যেন হয় সুখের, সবকিছু যেন হয় সৌন্দর্যময়।

২.
বাংলা নববর্ষ, আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস, স্বাধীনতা দিবস ও বিজয় দিবস বাংলাদেশে রাষ্ট্রীয়ভাবে উদযাপিত হয়। একুশে ফেব্র“য়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস, ২৬শে মার্চ স্বাধীনতা দিবস এবং ১৬ই ডিসেম্বর বিজয় দিবস পালনের সঙ্গে রয়েছে আমাদের জাতিসত্ত্বার পরিচয় এবং স্বতন্ত্র জাতি-রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার রাজনৈতিক সংগ্রামের গৌরবোজ্জ্বল সংগ্রামের ইতিহাস। পহেলা বৈশাখ নববর্ষ পালনের পেছনে রয়েছে আমাদের হাজার বছরের লোক সংস্কৃতি ও লোক ঐতিহ্যের পুনরুজ্জীবন এবং অসাম্প্রদায়িক গণতান্ত্রিক বাঙালি সংস্কৃতির পুননির্মাণের প্রয়াস। পাকিস্তানি শাসকরা বাংলা নববর্ষকে কোনোদিন রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি দেয়নি। বাংলা নববর্ষ উদযাপনকে তারা মনে করেছিল হিন্দু সম্প্রদায়ের উৎসব। বাংলাদেশে পহেলা বৈশাখ উপলক্ষে শহর এবং গ্রামে মেলা ও অন্যান্য আনন্দ উৎসব হয়। শুভদিন হিসেবে দিনটিতে ব্যবসায়ীরা নতুন বছরের হিসাবের খাতা চালু করেন। পহেলা বৈশাখকে ‘হালখাতা’ খোলার দিন হিসেবেও পরিচিত।বাংলা নববর্ষের সাথে আমাদের গ্রামীণ জীবন, লোক উৎসব এবং গ্রামীণ নানা খেলা দাড়িয়াবান্ধা,কাবাডি,গোল্লাছুট, জারিগান, সারিগান, ভাটিয়ালি গান, বাউল গান এবং বাঙাালির সংস্কৃতি পুতুল নাচ,পান্তা ইলিশের বৈশাখী মেলা হয়। বাংলা নববর্ষের দিনটি কখনো কোনো ধর্মের ধর্মীয় উৎসবের দিন ছিল না, বাংলা নববর্ষ সর্বজনীন বর্ষবরণের দিন ছিল।

৩.
বাঙালীর নববর্ষ পালন, বাংলা নববর্ষকে বাঙালির স্বতন্ত্র জীবনধারাকে জঙ্গীবাদ এবং মৌলবাদীদের বিরুদ্ধে প্রতিবাদের হাতিয়ার এবং আধুনিক নাগরিক জীবনে নববর্ষ পালন জাতীয় গৌরববোধের। পহেলা বৈশাখ বাংলা নববর্ষ পালনের সূচনা সর্বজনীন বিশাল জাতীয় উৎসবে পরিণত করেছে সাংস্কৃতিক সংগঠনগুলো। বাংলা নববর্ষের প্রথম দিনে লক্ষ লক্ষ নারী-পুরুষ, শিশু, কিশোর-কিশোরী, তরুন তরুনী এবং সবধর্মের মানুষের সমাবেশ ও সর্বজনীন উৎসব। বাংলা নববর্ষ শহর ছাড়িয়ে এখন দেশের সর্বত্র, গ্রাম-গঞ্জ ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে নানা আয়োজনের ভেতর দিয়ে বর্ষবরণ অনুষ্ঠান পালিত হয়। স্বাধীনতার পর জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান পহেলা বৈশাখের দিন জাতীয় ছুটি ঘোষণা করেন। এখন বাঙালির আত্মপরিচয় ও অসাম্প্রদায়িক জাতীয় উৎসব হিসেবে পহেলা বৈশাখ, বিশেষত বাংলাদেশে নতুন মর্যাদায় অধিষ্ঠিত।

৪.
পহেলা বৈশাখ বাংলাদেশের বাঙালির শ্রেষ্ঠ চিরায়ত জাতীয় উৎসব। আর এ কারণে সাম্প্রদায়িক ও মৌলবাদী শক্তিগুলোর বর্ষবরণ উৎসবকে টার্গেটে করে রমনার বটমূলের ছায়ানটের অনুষ্ঠানে বোমাবর্ষণ করে প্রাণহানি ঘটিয়েছিল। কিন্তু জঙ্গি-মৌলবাদী-সাম্প্রদায়িক গোষ্ঠীর এই হিংস আক্রমণ পহেলা বৈশাখ নববর্ষ পালনকে বন্ধ করতে পারেনি। বরং মানুষের অংশগ্রহণ ক্রমেই বেড়ে চলেছে এই উৎসব। পহেলা বৈশাখ নববর্ষ উদযাপন কোনো রাষ্ট্রীয় আদেশ-নির্দেশ বা অর্থানুকূল্যের ওপর নির্ভর করে না। একুশে ফেব্র“য়ারি যেমন ভাষা শহিদদের আত্মদানের ভেতর দিয়ে বাঙালির সর্বজনীন শোক ও গৌরবের দিন হিসেবে পালিত হয় তেমনি পহেলা বৈশাখও বাংলার সংস্কৃতি বাজ্ঞালির উৎসবে পরিণত হয়।
বাংলা নববর্ষের সংগীত, নৃত্য, সাহিত্য, নাট্য, সামাজিক সম্পর্ক, ইত্যাদি অভিব্যক্তি করে সংস্কৃতি। মানুষের সার্বিক জীবনকে নিয়েই সংস্কৃতি গড়ে ওঠে। প্রত্যেক শিশুই সর্বপ্রথম তার সংস্কৃতির সাথে পরিচিত হয় পরিবার থেকে। পর্যায়ক্রমে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, সমাজ, রাষ্ট্র থেকে। কিন্তু প্রতিটি ক্ষেত্রেই আমাদের সংস্কৃতি আজ হুমকির মুখে। বাংলা সংস্কৃতির চর্চা থেকে দূরে সরে যেন না যায় আমাদের তরুন প্রজন্ম। তরুন প্রজন্ম যেন বাংলায় ভালো করে কথা বলে, বাংলা উচ্চারণ ভালো জানে, বাংলা গান শোনে। তাদের পোশাকেও যেন দেশের সংস্কৃতির ছোঁয়া দেখা যায়। যেন পাশ্চাত্য সংস্কৃতির ছায়া আমলে না নেয়। বাংলা সংস্কৃতিকে বিদায় জানিয়ে ভিনদেশি সংস্কৃতি চর্চাতেই অভ্যস্ত না হয়ে তরুণদের দেশি সংস্কৃতির বন্দনা বাঙালিয়ানা উৎসবে পরিণত হোক। পুরো একদিনের জন্য আমরা সবাই যেন মনে-প্রাণে বাঙালি না হই।

৫.
বৈশাখ উদযাপনে প্রাণের সাড়া দিয়ে হৃদয়ের টানে ছুটে এসে এ দেশ, এ মাটি ও এ বাংলার চিরায়ত সংস্কৃতির প্রতি ভালোবাসা এবং বাংলা সংস্কৃতিকে ধরে রাখা ও তার বিকাশে তরুন প্রজন্মে কে অবদান রাখতে হবে। বাংলা সংস্কৃতির উন্নতি জন্য, নতুন প্রজন্মের কাছে বারংবার তুলে ধরতে হবে। বাংলাকে সাজাতে হবে, আত্মস্থ করতে হবে এবং সেভাবেই নতুন প্রজন্মের কাছে তা উপস্থাপন করতে হবে। বাংলা নববর্ষের হাজারও মানুষের এ মিলনমেলাকে ছোট করে দেখার কোনো কারণ নেই। এখান থেকেই বীজ বপন করতে হবে বাংলা সংস্কৃতি কে ভালোবাসার। তবেই প্রকৃত প্রাণের স্পন্দন মেলানো যাবে প্রাণের মেলায়, জনতার এই ঢল আর এ উৎসব শুভ-সুন্দর ও কল্যাণময় হোক।

সবাইকে বাংলা নববর্ষের শুভেচ্ছা।


লেখক: কথা সাহিত্যিক ও প্রাবন্ধিক।

শেয়ার করুন

আপনার মতামত দিন

সর্বশেষ খবর

  •   সকল জেলায় চার লেনের সড়ক হবে: পরিকল্পনামন্ত্রী
  •   বিপিএল মাতাতে সিলেটে ডি ভিলিয়ার্স
  •   সংরক্ষিত আসনে আ’লীগের ফরম কিনলেন যেসব তারকারা
  •   মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশিসহ ৮২ জন অবৈধ অভিবাসী আটক
  •   শাহপরাণ থেকে ইয়াবাসহ মাদক ব্যবসায়ী আটক
  •   'প্রবৃদ্ধি ১০ ভাগে নেয়ার লক্ষ্যে কাজ করছে সরকার'
  •   যুদ্ধাপরাধী পরিবারের সম্পদ বাজেয়াপ্তের কাজ চূড়ান্ত পর্যায়ে: আইনমন্ত্রী
  •   খালেদা জিয়ার জীবন এখন গভীর সংকটে: রিজভী
  •   সিলেটে সেই জঙ্গি মর্জিনার বোনসহ গ্রেফতার ৩
  •   ডিসেম্বরেই চলবে মেট্রোরেল
  •   আখালিয়া তপোবনে ব্যাডমিন্টন টুর্নামেন্ট সম্পন্ন
  •   সিলেটে বেড়েছে খুনোখুনী, জনমনে আতঙ্ক
  •   নতুন এমপিদের শপথের বৈধতা নিয়ে রিট খারিজ
  •   কুলাউড়ায় পিকআপের ধাক্কায় বৃদ্ধার মৃত্যু
  •   বালাগঞ্জে ঠাকুর অনকুল চন্দ্রের জন্মোৎসব পালন
  • সাম্প্রতিক ফিচার খবর

  •   স্বপ্নের রাজনীতি, রাজনীতির স্বপ্ন
  •   সিলেট-৪ আসন: সংসদ নির্বাচনের সেকাল-একাল
  •   সিলেট অঞ্চলে প্রবাসী বিনিয়োগ: একটি সামগ্রিক পর্যালোচনা
  •   মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিকথা: মার্চ থেকে ডিসেম্বর, ১৯৭১
  •   কুঁড়ে ঘরেই মুক্তিযুদ্ধের বাংলাদেশ দেখেন একজন ওদুদ
  •   ফিরে দেখা : পার্বত্য শান্তি চুক্তির ২১ বছর
  •   বিশ্ব আবার স্কুলে যাচ্ছে!
  •   বাংলাদেশি পাসপোর্ট নিয়ে শততম দেশভ্রমণ করলেন কাজী আজমেরী
  •   নিখোঁজ বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ এর সন্ধানে
  •   দূর্গোৎসব শুধু নতুন কাপড় পরিধানের জন্য নয়
  •   কাঁদবে রুপালি গিটার কাঁদবে রুপালি প্রজন্ম
  •   আপনার লেখা আরও ভালো করতে ৭টি কলাকৌশল
  •   নামিদামি স্কুলে পড়লেই কি শিশুরা মেধাবী হয়?
  •   রেলের উন্নয়নে বৃটিশদের ছাড়িয়ে গেল বর্তমান সরকার
  •   একজন বোকামানবের জন্ম কিংবা একটা গাধাকে ভালোবাসার গল্প