আজ সোমবার, ২৩ জুলাই ২০১৮ ইং

গ্রামীণ অর্থনীতিতে বাংলাদেশের অগ্রগতি

সিলেটভিউ টুয়েন্টিফোর ডটকম, ২০১৮-০৭-০৯ ১৯:২৯:৪৪

বাংলাদেশ আয়তনে ক্ষুদ্র হয়েও ইতোমধ্যে গ্রামীণ অর্থনীতিতে অবিস্মরণীয় সাফল্য লাভ করেছে। গ্রামীণ অঞ্চলে শিক্ষাকে সর্বস্তরে ছড়িয়ে দেয়ার জন্য বাংলাদেশ সরকারের প্রচেষ্টায় চালু করা হয়েছে শতভাগ বিনামূল্যে বই বিতরণ কর্মসূচী এবং প্রাথমিক ও মাধ্যমিক স্তরে উপবৃত্তি ব্যবস্থা। গ্রামীণ পর্যায়ে ২৬ হাজার ১৯৩ টি প্রাথমিক বিদ্যালয়কে জাতীয়করণ করা হয়েছে। শিক্ষা সুবিধা বঞ্চিত গরীব মেধাবী ছাত্রদের জন্য গঠন করা হয়েছে “শিক্ষা সহায়তা ট্রাস্ট”।
গ্রামীণ পর্যায়ে দরিদ্র মানুষের স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিত করতে ১২ হাজার ৭৭৯ টি কমিউনিটি ক্লিনিক স্থাপন করেছে সরকার। ৩২ টি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সকে ৫০ শয্যায় উন্নীত করা হয়েছে। বাংলাদেশ সরকারের প্রচেষ্টায় দেশের ৪০ টি জেলা হাসপাতাল এবং ২০ টি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স স্থাপন করা হয়েছে। অসহায়, এতিম, দুস্থ শিশুদের জন্য স্থাপন করা হয়েছে শিশু বিকাশ কেন্দ্র। স্বাস্থ্যসেবাকে জনগণের দোরগোড়ায় পৌঁছে দেবার লক্ষ্যকে সামনে রেখে নির্মাণ করা হয়েছে নতুন ১২টি মেডিকেল কলেজ, নিয়োগ দেওয়া হয়েছে ৪৭ হাজারেও বেশি জনশক্তি।

গ্রামীণ অঞ্চলে বেড়েছে মোবাইল গ্রাহকের সংখ্যা। বর্তমানে বাংলাদেশে মোবাইল গ্রাহকের সংখ্যা ১২ কোটি ৩৭ লক্ষ এবং ইন্টারনেট গ্রাহকের সংখ্যা ৪ কোটি ৪৬ লক্ষে উন্নীত হয়েছে। সেবা প্রদান প্রক্রিয়া সহজ ও স্বচ্ছ করতে চালু করা হয়েছে ই-পেমেন্ট ও মোবাইল ব্যাংকিং। গ্রামের মানুষ এখন ইন্টারনেটের মাধ্যমে দেশের বাহিরে তাদের আত্মীয়স্বজনদের সাথে নিয়মিত কথা বলে।

সম্প্রতি প্রযুক্তির মাধ্যমে সরকারি সেবা গ্রামীণ পর্যায়ে পৌঁছানোর জন্য বাংলাদেশ সরকার দেশের ৪৫৫০ টি ইউনিয়ন পর্যায়ে স্থাপন করেছে ডিজিটাল ইউনিয়ন সেন্টার। যেখান থেকে গ্রামের মানুষ বিভিন্ন ধরনের প্রযুক্তি সেবা গ্রহন করছে।

সরকারের প্রচেষ্টায় কৃষি ক্ষেত্রে উৎপাদন বেড়েছে। বাংলাদেশে ধানের উৎপাদন বেড়েছে প্রায় ৫০ লক্ষ মেট্রিক টন। প্রধানমন্ত্রী ও কৃষিমন্ত্রীর সরাসরি পৃষ্ঠপোষকতায় বাংলাদেশের বিজ্ঞানী ড. মাকসুদুল আলম আবিষ্কার করেছেন পাটের জিনোম সিকুয়েন্সিং। সারা বিশ্বে আজ পর্যন্ত মাত্র ১৭ টি উদ্ভিদের জিনোম সিকুয়েন্সিং হয়েছে, তার মধ্যে ড. মাকসুদ করেছেন ৩টা। তাঁর এই অনন্য অর্জন বাংলাদেশের মানুষকে করেছে গর্বিত।

গ্রামীণ অঞ্চলে মাথাপিছু বিদ্যুৎ উৎপাদনের পরিমাণ ২২০ কিলোওয়াট ঘণ্টা থেকে বেড়ে ৩৪৮ কিলোওয়াট ঘণ্টায় দাঁড়িয়েছে। নতুন বিদ্যুৎ সংযোগ প্রদান করা হয়েছে ৩৫ লক্ষ গ্রাহককে। নির্মাণ করা হয়েছে নতুন ৬৫টি বিদ্যুৎ কেন্দ্র।

গ্রামীণ অঞ্চলে চলমান উন্নয়ন বজায় থাকলে অচিরেই বাংলাদেশ সুখী সমৃদ্ধ দেশ হিসেবে বিশ্বব্যাপী পরিচিতি পাবে বলে মত দিয়েছেন সংশ্লিষ্ট বিশেষজ্ঞরা।

শেয়ার করুন

আপনার মতামত দিন

সর্বশেষ খবর

  •   সিলেটে নৌকার পক্ষে আজিজুস সামাদ ডনের গণসংযোগ
  •   সাইদকে গ্রেফতারে জেলা ও মহানগর বিএনপির নিন্দা
  •   সিলেটে কিশোর-কিশোরী সম্মেলন অনুষ্ঠিত
  •   পরিকল্পিত উন্নয়নে সমৃদ্ধ নগরী গড়ে তুলা হবে: আবু জাফর
  •   আল-আরাফাহ ইসলামী ব্যাংক জিন্দাবাজার শাখার গ্রাহক মতবিনিময় সভা
  •   ব্যর্থ হাতে ফিরলেন গয়েশ্বর: কতদূর গড়াল জোটের দ্বন্দ্ব?
  •   কর্মমুখী রাজশাহী নগরীর আশায় লিটনকে সমর্থন নগরীর বেকারদের
  •   ‘সিলেটে আ.লীগ প্রার্থীর অফিসে আগুন তাদের নতুন কৌশল’
  •   হামলাকারীরা ছাত্রলীগ নামধারী দুর্বৃত্ত: কাদের
  •   ৩নং ওয়ার্ডে কাউন্সিলর প্রার্থী লায়েকের গণসংযোগ
  •   কয়লা গেল কই, তদন্তের নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর
  •   ‘ঘরে ঘরে গিয়ে সরকারের উন্নয়নের কথা তুলে ধরতে হবে’
  •   হাত পাখার গণসংযোগে সিলেট আসছেন কেন্দ্রীয় নেতারা
  •   সিলেটের উন্নয়নে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার অঙ্গিকার ৬ মেয়র প্রার্থীর
  •   বঙ্গবীর ওসমানীর শততম জন্মবার্ষিকী উদযাপন কমিটি গঠিত
  • সাম্প্রতিক জাতীয় খবর

  •   ঢাকায় মৌসুমের সর্বোচ্চ বৃষ্টিপাত
  •   ২১ জনকে অভিযুক্ত করে হলি আর্টিজান মামলার চার্জশিট
  •   সরকারের কর্মকর্তাদেরও জনগণের কল্যাণে কাজ করতে হবে: প্রধানমন্ত্রী
  •   চট্টগ্রাম পুলিশের সদর দপ্তরে আগুন
  •   ভিসা প্রসেসিংয়ের নামে ফাঁদ
  •   মধ্যপ্রাচ্যে ঈদুল আজহা পালিত হতে পারে ২২ আগস্ট
  •   মাদকাসক্তরা পাবে না সরকারি চাকরি
  •   কক্সবাজারে অস্ত্র তৈরির কারখানার সন্ধান, আটক ২
  •   বাকৃবিতে আগুনে পুড়ল বর্ষপূর্তি অনুষ্ঠানের মঞ্চ
  •   নৌকায় সমর্থন সুশীল সমাজের: জমে উঠেছে ভোটের হিসাব
  •   জনগণ কী পেল, সেটাই বড় চাওয়া: প্রধানমন্ত্রী
  •   নির্বাচনের বছর ডিসিদের প্রতি সরকারের যত নির্দেশনা
  •   নারায়ণগঞ্জে শিশু গৃহকর্মীকে খুন্তির ছ্যাকা, দম্পতিকে গণধোলাই
  •   অধ্যাপক মোজাফফর আহমদের অবস্থা আশঙ্কাজনক
  •   দেশের সমুদ্রবন্দরে ৩ নম্বর সতর্ক সংকেত