আজ বৃহস্পতিবার, ২১ জুন ২০১৮ ইং

কে রোধে তাহার বজ্রকণ্ঠ বাণী

সিলেটভিউ টুয়েন্টিফোর ডটকম, ২০১৮-০৩-০৭ ০০:৫৩:০৬

আল-আমিন ::

জনতার মঞ্চে এসে তার অমর কাব্যখানি শুনালেন।
লক্ষ জনতা হৃদয়ে ধারণ করে প্রস্তুত মুক্তির সংগ্রাম।
এসো বীর, এসো জনতা, এসো কবি,
আমরা বাঙালী, আমরা স্বাধীনতার গল্প শুনি।

ঐতিহাসিক ৭ই মার্চ। বাংলাদেশের স্বাধীনতা মুক্তির সংগ্রামে ইতিহাসে স্বর্ণাক্ষরে লেখা অবিস্মরণীয় দিন। বসন্তের শুকনো দিনে একটি জাতিকে স্বাধীনতার মন্ত্রে উজ্জীবিত করার জন্য রেসকোর্স ময়দানে বাংলাদেশের স্থপতি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ভাষণ দিয়েছিলেন।

৭ই মার্চের ভাষণ আমার কাছে মনে হয়েছিল স্বাধীনতার যুদ্ধের বিজয়ের চাবিকাঠি। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক এই ভাষণে অনুপ্রাণিত হয়ে গোটা বাঙালি জাতি স্বাধীনতা যুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েছিল। যতদিন বাঙালীর জাতিসত্ত্বা টিকে থাকবে ততদিন এই ভাষণটি জাতি মনে রাখবে। মুক্তিযুদ্ধ থেকে আজ পর্যন্ত মানুষের মুখে মুখে এই ভাষণটি শোনা যায়। এই ভাষণে সমগ্র বাঙালী জাতি অনুপ্রাণিত, উদ্বুদ্ধ।

বঙ্গবন্ধুর এই ভাষণটি একটি কাব্য। প্রতিটি বাক্য একটি করে কবিতা। এই কবিতাগুলো প্রেরণার, বাঙালী জাতির মুক্তির, চেতনার। উত্তাল জনসমুদ্রে বাংলাদেশের স্বাধীনতার ডাক “এবারের সংগ্রাম মুক্তির সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম আমাদের স্বাধীনতার সংগ্রাম”। বঙ্গবন্ধুর এই তেজোদীপ্ত ঘোষণা বাংলাদেশের তরুণ প্রজেন্মর বাংলাদেশের প্রতি ভালোবাসা এবং বাংলাদেশ গঠনে চেতনা বহমান।

“আমি প্রধানমন্ত্রীত্ব চাই না। আমরা এদেশের মানুষের অধিকার চাই।” বঙ্গবন্ধুর এই কথা থেকে তরুণ প্রজন্ম শিক্ষা নিয়েছে রাজনীতি ক্ষমতার উর্ধ্বে। তরুণ প্রজন্ম ক্ষমতা চায় না। মুক্ত চিন্তার বাংলাদেশ চায়।

বঙ্গবন্ধুর এই ভাষণকে বিশ্বের বিখ্যাত ভাষণগুলোর মধ্যে শ্রেষ্ঠ ভাষণ গ্যাটিস বার্গের আব্রাহাম লিংকনের ভাষণের সাথে তুলনা করা হয়েছে। ইউনেস্কো এই ভাষণকে মেমোরি অব দ্যা ওয়ার্ল্ড ঘোষণা দিয়ে, ইউনেস্কো যেভাবে নিজে সম্মানীত হয়েছে, তেমনি বাংলাদেশকে উঁচু করেছেন, আমরা গর্বিত, বাংলাদেশ গর্বিত, বাংলাদেশ বঙ্গবন্ধুর মতো একজন নেতা পেয়েছেন। বাংলাদেশ ভাগ্যবান, বঙ্গবন্ধুকে পেয়ে আমরা আনন্দবোধ করছি।

কিউবার প্রেসিডেন্ট ফিদেল কাস্ত্রো বলেছিলেন, “আমি হিমালয় দেখিনি। আমি বঙ্গবন্ধুকে দেখেছি।” ফিদেল কাস্ত্রোর এই বাণী বলে দেয়, বঙ্গবন্ধু বিশ্ব নেতাদের মধ্যে শ্রেষ্ট একজন নেতা ছিলেন।

আমি বঙ্গবন্ধুকে দেখিনি, আমি রেসকোর্স ময়দানে দেওয়া সে ভাষণ শুনিনি। কিন্তু আমি অনুভব করি। আমি বিশ্বাস করি এই প্রজন্ম বঙ্গবন্ধুর ৭ই মার্চের ভাষণকে চেতনায় ধারণ করে উজ্জীবিত। এই ভাষণ দেশের প্রতি, দেশের মানুষের প্রতি ভালোবাসার শিক্ষা দেয়। আমাদের মুক্ত চিন্তার শুভবুদ্ধির পথে চলমান করে। 

আল-আমিন, লেখক ও কথা সাহিত্যিক


শেয়ার করুন

আপনার মতামত দিন

সর্বশেষ খবর

  •   ‘বৃহত্তর আন্দোলনের নির্দেশ খালেদা জিয়ার’
  •   যুক্তরাষ্ট্রে চাপের মুখে অভিবাসন নীতিতে পরিবর্তন
  •   রাজধানীতে সড়ক দুর্ঘটনায় যুবকের মৃত্যু
  •   ইসকন সিলেটের ৮তম গীতা শিক্ষা কোর্স শুরু হচ্ছে
  •   নবনির্বাচিত ছাত্রদল নেতৃবৃন্দকে বালাগঞ্জ উপজেলা ছাত্রদলের অভিনন্দন
  •   অভিনব পন্থায় জয় উদযাপন করলেন সেনেগাল সমর্থকরা
  •   রাশিয়ার জন্মহার বাড়াবে ফুটবল বিশ্বকাপ
  •   বিশ্বকাপের কল্যাণে ফের বেঁচে উঠলেন ওসামা!
  •   কমলাপুর স্টেশনের বাথরুমে ভারতীয় নারীর সন্তান প্রসব
  •   গোল করলেই টপলেস হয়ে যান কে এই সুন্দরী?
  •   সাবেক দুই পর্নস্টারের ৬ মাসের জেল
  •   লাইভ টেলেকাস্টে নারী সাংবাদিককে চুমু! (ভিডিও)
  •   ‘মেসি’ গ্রেপ্তার!
  •   ‘একঘরে হয়ে যাবে ইসরাইল’
  •   মেক্সিকোর জয়ে কোচ পেল শারীরিক মিলনের প্রস্তাব
  • সাম্প্রতিক ফিচার খবর

  •   মৌলভীবাজা‌রের বন্যা ও লন্ড‌নে‌র টিভি‌তে ভিক্ষা তোলা
  •   বাবা, তুমি আছো অস্তিত্বজুড়ে
  •   বাবার জন্যে ভালোবাসা
  •   আমার তারকা আমার বিশ্বকাপ
  •   আমি ছিলাম বাবার হৃদপিন্ড, বাবা ছিলেন আমার বটবৃক্ষ
  •   কূট‌নৈ‌তিক অাকা‌শে অাজ শকু‌নের হান‌া
  •   স্বাধিকার আন্দোলনের প্রথম শহীদ বিয়ানীবাজারের সূর্যসন্তান শহীদ মনু মিয়া
  •   সুনামগঞ্জের আলোকিত গীতিকার ও সুরকার শেখ এমএ ওয়ারিশ
  •   বিশ্বের সবচেয়ে দামি ১০ পাসপোর্ট
  •   ফেসবুকে প্রয়াত সিরাজুল জব্বারকে নিয়ে সিকৃবি রেজিস্ট্রার শোয়েবের স্মৃতিচারণ
  •   অাসামে বাঙ্গালীরা অাজ অসহায়
  •   বিশ্বকাপে আত্মঘাতী গোল, জীবন দিয়ে খেসারত ফুটবলারের
  •   বদমাইশির চেয়ে বিয়ে উত্তম!
  •   চেহারা দেখে মানুষ চেনা যায় না
  •   ঘিলাছড়ার রসালো লিচু