আজ রবিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ইং

আরব আমিরাতে বছরে মারা যান এক হাজার প্রবাসী কর্মী

সিলেটভিউ টুয়েন্টিফোর ডটকম, ২০২১-০৫-১৭ ১২:২৭:০৭

সিলেটভিউ ডেস্ক :: স্বাভাবিক কিংবা দুর্ঘটনাজনিত কারণে প্রতিবছর গড়ে এক হাজার প্রবাসী কর্মী মারা যান সংযুক্ত আরব আমিরাতে। দেশটির রাজধানী আবুধাবির বাংলাদেশ দূতাবাস ও দুবাইয়ে বাংলাদেশ কনস্যুলেট আলাদাভাবে মৃত প্রবাসীদের এনওসি (অনাপত্তি পত্র) ইস্যু করে থাকে। এই হিসেবে মৃত ব্যক্তির তালিকা, বিতরণ ও আনুষঙ্গিক নথিপত্র থাকে আলাদা আলাদা। ২০২০-২১ সালের তালিকা অনুযায়ী শুধু দুবাই ও উত্তর আমিরাতে মারা গেছেন ৫৯৫ জন প্রবাসী কর্মী। এর মধ্যে ২০২০ সালে ৪৫০ জন ও ২০২১ সালে এপ্রিল পর্যন্ত মারা গেছেন ১৪৫ জন কর্মী। আবুধাবির বাংলাদেশ দূতাবাসও বছরে অন্তত পাঁচ শতাধিক মৃত কর্মীর এনওসি দিয়ে থাকে। মৃত কর্মীদের কারও কারও নিয়োগকৃত প্রতিষ্ঠান বা নিয়োগকর্তার কাছে থেকে পাওয়া যায় দেনা-পাওনা। দুর্ঘটনাজনিত কারণে মৃত প্রবাসীদের মামলা গড়ায় আদালত পর্যন্ত। ভুক্তভোগীর পরিবার পাওয়ার অব অ্যাটর্নি (ক্ষমতাপত্র) দেওয়ার পর বাংলাদেশ মিশনগুলো তাদের ক্ষতিপূরণ আদায়ে কাজ করে। দুবাই বাংলাদেশ কনস্যুলেট জানায়, প্রতি বছর অন্তত ১০ কোটি টাকা ক্ষতিপূরণ আদায় করে লেবার উইং। আদায়কৃত ক্ষতিপূরণের অর্থ মৃত ব্যক্তির উত্তরাধিকারীর হিসাব নম্বরে বা ওয়েজ আর্নার্স কল্যাণ বোর্ডের পাঠানো ব্যাংক হিসাব নম্বরে পাঠায় বাংলাদেশ মিশন।

দূতাবাস ও কনস্যুলেটের তথ্য মতে, ২০২০ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত সংযুক্ত আরব আমিরাতে নানাভাবে ১১৩ জন প্রবাসীর ক্ষতিপূরণ আদায় করা হয়। এ অর্থের পরিমাণ প্রায় আট কোটি ৪৩ লাখ টাকা। এর মধ্যে দুবাই বাংলাদেশ কনস্যুলেট ১৬ জন প্রবাসীর মৃত্যুজনিত ক্ষতিপূরণ আদায় করে সাড়ে চার কোটি টাকা। একই অর্থবছরে চাকরিচ্যুত ৫০ জন কর্মীর বেতন বকেয়া বাবদ ক্ষতিপূরণ আদায় করে এক কোটি ৮৩ লাখ টাকা। আবুধাবি বাংলাদেশ দূতাবাস ২০২০ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত ৪৭ জন মৃত প্রবাসীর নিয়োগকৃত প্রতিষ্ঠান ও স্পন্সর থেকে ক্ষতিপূরণ আদায় করেছে দুই কোটি ১০ লাখ ৮০ হাজার টাকা। এ ছাড়াও ২০১৯ সালে দুবাই বাংলাদেশ কনস্যুলেট প্রবাসী কর্মীদের মৃত্যুজনিত ক্ষতিপূরণ আদায় করে আট কোটি ৭ লাখ ১৭ হাজার টাকা। ১৬১ জন কর্মীর বকেয়া বেতন বাবদ ক্ষতিপূরণ আদায় করা হয় দুই কোটি ২৭ লাখ টাকা। মহামারি করোনার প্রভাবে দেশটিতে আদালতের কার্যক্রম সীমিত থাকায় কিছু মামলা এখনও নিষ্পত্তির অপেক্ষায় রয়েছে। আবুধাবি দূতাবাসের অধীনে ৮৯টি ক্ষতিপূরণ মামলা এখনও প্রক্রিয়াধীন আছে।

জানা গেছে, প্রবাসী কর্মীদের ক্ষতিপূরণ আসে দুটি আলাদা প্রক্রিয়ায়। বকেয়া বেতন বা সার্ভিস বেনিফিট এবং দুর্ঘটনাজনিত মৃত্যু বা হত্যা। কোনো কর্মী হত্যার শিকার হলে রক্ত ঋণের বিনিময়ে আসামিকে মওকুফ করা যায়। এ ধরনের মামলায় দেড় থেকে দুই লাখ দিরহাম পর্যন্ত ক্ষতিপূরণ আসে। মামলার রায় হলে ক্ষতিপূরণের অর্থ পেতে লাগে ছয় মাস থেকে এক বছর। আবার ক্ষতিপূরণ মামলার ক্ষেত্রে অধিকাংশ ভুক্তভোগীর পরিবার বিভিন্ন সময় ল' ফার্মের সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ হয়ে যায়। আদায় করা ক্ষতিপূরণের শতকরা একটি অংশ দেওয়ার শর্তে ল' ফার্মগুলো ভুক্তভোগী পরিবারের পক্ষে কাজ করে। ভুক্তভোগী পরিবার থেকে ল' ফার্মগুলোকে পাওয়ার অব অ্যাটর্নি দেওয়া হলে মামলা নিষ্পত্তির পর তারা ক্ষতিপূরণের ১০ থেকে ২০ শতাংশ কেটে রেখে বাকি টাকা ভুক্তভোগীর পরিবারকে দিয়ে থাকে।

এ বিষয়ে দুবাই বাংলাদেশ কনস্যুলেটের লেবার কাউন্সিলর ফাতেমা জাহান বলেন, সরকারিভাবে মিশনকে পাওয়ার অব অ্যাটর্নি দিলে ক্ষতিপূরণের পুরো অর্থই ভুক্তভোগীর পরিবারের কাছে পৌঁছে যায়। নানা সময় অভিযোগ আসে, দ্বিতীয় পক্ষ বা তৃতীয় পক্ষকে ক্ষমতাপত্র দেওয়ার পর মামলা নিষ্পত্তি হয়ে গেলেও ক্ষতিপূরণের অর্থ পায় না ভুক্তভোগীর পরিবার। তাদের বেলায় আমরা আইনগত সহযোগিতায় এগিয়ে আসতেও পারি না। তবে মিশনকে দায়িত্ব দিলে মামলা পরিচালনাসহ যাবতীয় খরচই বহন করে ওয়েজ আর্নার্স কল্যাণ বোর্ড। ক্ষতিপূরণের অর্থও পৌঁছে যায় ভুক্তভোগীর পরিবারে।

আবুধাবি দূতাবাসের লেবার কাউন্সিলর আবদুল আলিম মিয়া জানান, কয়েকটি ক্ষেত্রে ক্ষতিপূরণ বাবদ প্রায় ১৩ লাখ ২৯ হাজার টাকা দূতাবাসে জমা রয়েছে। উত্তরাধিকারীর ব্যাংক হিসাব নম্বরে এই অর্থ পাঠানো প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। তিনি বলেন, দূতাবাস হতে মৃতদেহ দেশে পাঠানোর ছাড়পত্র ইস্যুর আগেই স্বাভাবিকভাবে মৃতের ক্ষেত্রে সংশ্নিষ্ট কোম্পানি বা নিয়োগকর্তা থেকে স্থানীয় শ্রম আইন অনুসারে ক্ষতিপূরণ আদায় নিশ্চিত করা হয়। দুর্ঘটনায় মৃতদের ক্ষেত্রে পরিবার থেকে দূতাবাসের নামে ক্ষমতাপত্র দেওয়া হলে দূতাবাস সংশ্নিষ্ট আদালতে মামলার মাধ্যমে ক্ষতিপূরণ আদায় করে। ক্ষতিপূরণ পাওয়া সাপেক্ষে ওয়েজ আর্নার্স কল্যাণ বোর্ডের ব্যাংক হিসাব নম্বরে তা পাঠানো হয়।

সিলেটভিউ২৪ডটকম/সমকাল/পিডি

শেয়ার করুন

আপনার মতামত দিন

সাম্প্রতিক প্রবাস জীবন খবর

  •   ফের দু’সপ্তাহের সম্পূর্ণ লকডাউনে মালয়েশিয়া
  •   আটকেপড়া প্রবাসীদের ভিসা-ইকামার মেয়াদ বাড়াচ্ছে সৌদি
  •   বাংলাদেশিদের যেভাবে সুযোগ হচ্ছে মাল্টায় যাওয়ার
  •   সিলেটে নির্মাণ শ্রমিকদের মধ্যে এনআরবি ব্যাংকের ঈদ উপহার বিতরণ
  •   আয়ারল্যান্ডে পরিবহন মন্ত্রনালয়ের উপদেষ্টা কমিটিতে বাংলাদেশীর স্থান
  •   বাংলাদেশি রুমা এখন মার্কিন এটর্নি
  •   ইতালিতে কোভিড ফ্রি ট্রেন,খুশি প্রবাসী বাংলাদেশিরা
  •   খালেদা জিয়ার রোগমুক্তি কামনায় যুক্তরাজ্য স্বেচ্ছাসেবক দলের দোয়া মাহফিল
  •   যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশি মা-বাবা-নানিকে হত্যার পর দু’ভাইয়ের আত্মহত্যা
  •   চালু হলো ‘প্রবাসী’ অ্যাপ