আজ শনিবার, ০৪ এপ্রিল ২০২০ ইং

দড়ি দিয়ে বাঁধা, এভাবেই চলে গেল ২৫ বছর

সিলেটভিউ টুয়েন্টিফোর ডটকম, ২০২০-০২-১৬ ১৪:৩৪:১৩

সিলেটভিউ ডেস্ক :: প্রচণ্ড শীতে প্রতিদিন খালি গায়ে সকাল হলে বাড়ির লোকজন যুবক বলহরিকে গাছের সঙ্গে বেঁধে রাখেন; রাত হলে ঘরে নিয়ে খুঁটির সঙ্গে বাঁধা হয় তাকে।

বয়স যখন ৯, সেই থেকেই মানসিক সমস্যা দেখা দেয় বলহরির। দীর্ঘ ২৫ বছর এভাবেই কাটছে বলহরির জীবন। দিনে এক-দুবার খাবার দেয়া হয়। মলমূত্র ত্যাগ করেন বাঁধা অবস্থায়। মানুষ দেখলে বিস্ময় নিয়ে তাকিয়ে থাকেন। মাঝেমধ্যে আবার উত্তেজিতও হয়ে ওঠেন।

পটুয়াখালীর দশমিনা উপজেলার বাঁশবাড়িয়া ইউনিয়নের বাঁশবাড়িয়া গ্রামের রবিকান্ত দাসের ছেলে বলহরি।

জানা যায়, ছোট বয়সে খুব ডানপিটে ও ভালো ছাত্র ছিল বলহরি। দরিদ্র বাবা-মার স্বপ্ন ছিল বলহরিকে পড়ালেখা করাবে কিন্তু নিয়তির নির্মম পরিহাস ৯ বছর বয়স থেকে মানসিক সমস্যা দেখা দেয়।

বলহরির দিনমজুর বাবা ছেলেকে বরিশাল নিয়ে মানসিক চিকিৎসক দেখান; কিছু দিন ভালো থাকার পর আবার আগের মতো হয়ে যায়। এবার আর অর্থাভাবে উন্নত চিকিৎসা করাতে পারেনি।

স্থানীয় ও পরিবারের লোকজনের সঙ্গে আলাপ করে জানা যায়, খারাপ আচরণ করত; তাই পরিবারের লোকজন ২৫ বছর ধরে এভাবে গাছের সঙ্গে বেঁধে রেখেছেন বলহরিকে। সরেজমিন ওই বাড়িতে গিয়ে দেখা যায়, বলহরিকে মোটা রশি দিয়ে বেঁধে রাখা হয়েছে। গাছের সঙ্গে জীর্ণশীর্ণ শরীর নিয়ে শীতের বিকালে কাঁপছে। কঙ্কালসার দেহ নিয়ে তাকিয়ে আছে, মাঝে মাঝে হাউমাউ করে কিছু বলার চেষ্টা করছে।

এর মধ্যে একটা গেঞ্জি নিয়ে আসে এক বৃদ্ধা। আপনি কে জানতে চাইলে বলেন, আমি বলহরির মা। চোখেমুখে দারিদ্র্যপীড়িত কষ্টের ছাপ স্পষ্ট।

বলহরির মা জানান, বয়স যখন ৯, সেই থেকেই মানুসিক সমস্যা দেখা দেয়। ছোট বেলায় বরিশালের মানসিক বিশেষজ্ঞ ডাক্তার দ্বারা চিকিৎসা করিয়াছি। কিন্তু ভালো না হওয়ায় আর টাকা অভাবে উন্নত চিকিৎসা না করাতে পেরে এভাবেই ছেলেকে গাছের সঙ্গে বেঁধে রাখি।

এমন অমানবিকভাবে বেঁধে রাখার কথা জিজ্ঞাসা করলে বলহরির মা জানান, এলাকার মানসেরে খারাপ কথা কয়, মানসে ধরিয়া মারধর করে, বাড়ির মানসেরে ভয়ভীতি দেখায়। তাই রশি দিয়া বাইন্দা রাখি।

বলহরির বড় ভাইয়ের স্ত্রী বলেন, আমরা গরিব মানুষ টাকার অভাবে উন্নত চিকিৎসা করাতে পারি নাই। করাতে পারলে হয়ত সে ভালো হত।

স্থানীয়রা জানান, ছোট সময় থেকে ওকে বেঁধে রাখা হয়। গরিব পরিবার তাই ভালো চিকিৎসা করাতে না পেরে নিরুপায় হয়ে বেঁধে রাখছে। আমরা কোনো দিন দেখিনি প্রশাসনের কোনো কর্তাব্যক্তি বলহরির এমন নির্মমতার কাহিনি দেখতে এসেছেন বা তার চিকিৎসার এতটুকু ব্যয়ভার বহন করেছে।

সৌজন্যে : যুগান্তর

সিলেটভিউ২৪ডটকম/১৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০/মিআচৌ

শেয়ার করুন

আপনার মতামত দিন

সর্বশেষ খবর

  •   ২২২ বছর পর বাতিল হতে পারে পবিত্র হজ
  •   যুক্তরাষ্ট্রে ২৪ ঘণ্টায় ১৮ বাংলাদেশির মৃত্যু
  •   ঢাকায় সাংবাদিক করোনায় আক্রান্ত, ৪৭ জন কোয়ারেন্টিনে
  •   ঢাকায় টেলিভিশন সংবাদকর্মী করোনায় আক্রান্ত
  •   আরব আমিরাতে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে প্রথম বাংলাদেশীর মৃত্যু
  •   করোনা এবং আমাদের আগামীর পরিবেশ
  •   ফেইসবুক ভিত্তিক ত্রান সহায়তা গোয়াইনঘাটের জন্যে আর্শীবাদ না অন্তরায়?
  •   প্রবাসী সাংবাদিক বাবুর ব্যতিক্রমী জন্মদিন উদযাপন
  •   নাট্যকর্মীদের জন্য ভালোবাসা
  •   ৫০০ পরিবারে খাদ্য সহায়তা দিলেন মাসুক ও আসাদ
  •   সিসিকের ত্রাণ বিতরণে অনিয়মের অভিযোগ প্যানেল মেয়রের
  •   ছাতকে মানবিক প্রশাসন, আত্মঘাতী জনগণ!
  •   ৩০০ পরিবারকে খাদ্য সহায়তা দিলো সিলেটী বয়েজ
  •   করোনা নিয়ন্ত্রণে ব্যর্থ হলে বিশ্বব্যাপী খাদ্য সংকট
  •   এবার বা‌ড়ি ভাড়া মওকুফ কর‌লেন কুলাউড়া পৌর মেয়র
  • সাম্প্রতিক জাতীয় খবর

  •   যুক্তরাষ্ট্রে ২৪ ঘণ্টায় ১৮ বাংলাদেশির মৃত্যু
  •   ঢাকায় সাংবাদিক করোনায় আক্রান্ত, ৪৭ জন কোয়ারেন্টিনে
  •   ঢাকায় টেলিভিশন সংবাদকর্মী করোনায় আক্রান্ত
  •   চট্টগ্রামে প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত
  •   হাসপাতাল-ক্লিনিক-চেম্বার বন্ধ থাকলে ব্যবস্থা: স্বাস্থ্যমন্ত্রী
  •   করোনা মোকাবিলায় বাংলাদেশের পাশে থাকবে যুক্তরাজ্য
  •   সামরিক চিকিৎসা সার্ভিস মহাপরিদপ্তরকে পিপিই ও মাস্ক সরবরাহ করলো বসুন্ধরা
  •   পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় আটকেপড়া বাংলাদেশিদের সমস্যা সমাধানে সজাগ দৃষ্টি রাখছে
  •   মহামারীর সময় অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়ানো ইমানি দায়িত্ব: বাবুনগরী
  •   করোনায় নতুন করে ৫ জন আক্রান্ত
  •   এক মাস ১১ দিনের বেতন দান করছেন সুমন
  •   শ্বাসকষ্টে জামাইয়ের মৃত্যু, শ্বশুরবাড়ি লকডাউন
  •   জিপ উল্টে ১৭ পুলিশ সদস্য আহত
  •   শ্বাসকষ্টে জামাইয়ের মৃত্যু, শ্বশুরবাড়ি লকডাউন
  •   সাহায্য দেয়ার আগে জানাতে হবে পুলিশকে