আজ বৃহস্পতিবার, ২২ অক্টোবর ২০২০ ইং

এমসি কলেজে যেসব অপকর্ম করে বেড়াত দিরাইয়ের রবিউল

সিলেটভিউ টুয়েন্টিফোর ডটকম, ২০২০-০৯-২৮ ০০:৫০:২০

দিরাই প্রতিনিধি :: ধর্ষণের ঘটনায় অভিযুক্ত ছাত্রলীগ নেতা ও মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ এমসি কলেজ শাখার সভাপতি দিরাইয়ের রবিউল হাসান ও তার সঙ্গিরা সিলেট এমসি কলেজ ক্যম্পাসে নানা ধরনের অপকর্ম করে বেড়াত।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এমসি কলেজে অধ্যায়নরত দিরাইয়ের এক ছাত্র সিলেটভিউকে জানায়, আদাব সালাম না দিলে শিক্ষার্থীদের মারধর করে আহত করতেন তিনি। শুধু তাই নয়, মোটরসাইকেল চালিয়ে যাওয়ার সময় রাস্তা ফাঁকা পেলেই নারী শিক্ষার্থীদের ওড়না ধরে টান মারা, মদ-জোয়া, ইয়াবা সেবন ও বিক্রি, বিনা কারণে শিক্ষার্থীদের লাঞ্ছনা, হোস্টেলে জোরপূর্বক বসবাস, মিল না দিয়ে বন্ধুবান্ধবসহ খাওয়া, হোস্টেলের সিট বিক্রিসহ নানা ধরনের অপরাধের সাথে জড়িত ছিলেন তিনি।

তিনি আরো জানান, রবিউল ও তার সহযোগিরা টিলাগড়সহ নগরীর বিভিন্ন এলাকা থেকে চাঁদা আদায়, ছিনতাইয়ের সাথে জড়িত ছিলেন। তবে তাদের বিরুদ্ধে কথা বললেই ধরে নিয়ে মারধর করা হতো এবং এমনকি হত্যার হুমকিও দেওয়া হতো।

একই সাথে এম সাইফুর রহমান, শাহ মাহবুবুর রহমান রনি, তারেক আহমদ, অর্জুন লস্কর, রবিউল ইসলাম ও মাহফুজুর রহমানের বিরুদ্ধে হাজারো অভিযোগ রয়েছে। তাদের যন্ত্রণায় অতিষ্ঠ হয়ে ২/৩ জন ছাত্র হোস্টেল ছেড়ে যেত বাধ্য হয়েছিল। তাছাড়া সিনিয়র কিংবা জুনিয়র তাদের কথার বাইরে গেলেই মারধর করত তারা।


প্রসঙ্গত, গত শুক্রবার এমসি কলেজে ঘুরতে আসা এক দম্পতিকে আটক করে জোর করে ছাত্রাবাসে তুলে নেয় ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। এরপর গৃহবধূর স্বামীকে বেঁধে মারধর করে ওই তরুণীকে তারা সংঘবদ্ধভাবে ধর্ষণ করে। এ ঘটনায় ভুক্তভোগী গৃহবধূর স্বামী শনিবার সকালে রবিউল ইসলামসহ এম. সাইফুর রহমান, শাহ মাহবুবুর রহমান রনি, তারেক আহমদ, অর্জুন লস্কর, মাহফুজুর রহমানকে আসামি করে মামলা দায়ের করেন। এ মামলায় এখন পর্যন্ত চারজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

সিলেটভিউ২৪ডটকম/ ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০/ হিল্লোল/ কেআরএস

শেয়ার করুন

আপনার মতামত দিন