আজ বৃহস্পতিবার, ১৭ জানুয়ারী ২০১৯ ইং

কোটা: ৩ নেতাকে চোখ বেঁধে নিয়ে যায় ডিবি

সিলেটভিউ টুয়েন্টিফোর ডটকম, ২০১৮-০৪-১৬ ২০:২৭:১৩

সিলেটভিউ ডেস্ক :: সরকারি চাকরির কোটা সংস্কার আন্দোলনের নেতারা দাবি করেছেন, গোয়েন্দা পুলিশ তাদের চোখ বেঁধে ডিবি কার্যালয়ে নিয়ে গিয়ে কোনো জিজ্ঞাসাবাদ না করেই ছেড়ে দিয়েছে।

এ ঘটনাকে ‘অপহরণ’ হিসেবে বর্ণনা করে সোমবার বিকালে  ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে প্রতিবাদ মিছিল করার ঘোষণা দিয়েছে আন্দোলনকারীদের প্ল্যাটফর্ম বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ।

পরিষদের যুগ্ম আহবায়ক নুরুল হক নূর দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের গ্রন্থাগারের সামনে এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, “আমরা ন্যায়ের পথে আন্দোলন করেছি, কিন্তু পুলিশ আমাদের তুলে নিয়ে যাচ্ছে। নানাভাবে আমাদের হত্যার হুমকি দেয়া হচ্ছে। আমরা নিরাপদ বোধ করছি না।”

এই আন্দোলনকারীরা সোমবার বেলা ১১টায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের সামনে এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, ক্যাম্পাসে সংঘর্ষ ও উপাচর্যের বাসভবনে হামলার ঘটনায় দায়ের করা সব মামলা দুই দিনের মধ্যে প্রত্যাহার না করলে তারা আবার রাজপথে নামবেন।

ওই সংবাদ সম্মেলনের পরপরই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকা থেকে পরিষদের তিন যুগ্ম আহবায়ক নূরুল হক নূর, ফারুক হাসান, মুহম্মদ রাশেদ খাঁনকে ডিবি পুলিশ ধরে নিয়ে যায় বলে অভিযোগ করেন আহ্বায়ক হাসান আল মামুন।

পরে গোয়েন্দা পুলিশের যুগ্ম কমিশনার আব্দুল বাতেন বলেন, কোটা সংস্কার আন্দোলনের সময় বিভিন্ন ‘সহিংসতার’ ঘটনায় যেসব তথ্য উপাত্ত পুলিশ পেয়েছে, সেগুলো যাচাই বাছাই করার জন্য ওই তিনজনকে তারা ‘ডেকে নিয়ে’ গিয়েছিলেন।

“ভিসির বাসায় যে হামলা হয়েছিল, এই ঘটনায় যেসব ভিডিও ফুটেজ পেয়েছি সেগুলো যাচাই বাছাই করার জন্য তদন্তের প্রয়োজনে তাদের ডেকে এনেছিলাম। তারা চলেও গেছে।”

ডিবি অফিস ঘুরে এসে দুপুরের পর বিশ্ববিদ্যালয়ের গ্রন্থাগারের সামনে আবার সংবাদ সম্মেলন করে ঘটনার বর্ণনা দেন আন্দোলনের নেতারা।  সেখানে জানানো হয়, বেলা ১টা ২৫ মিনিটে ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের তিন যুগ্ম আহ্বায়ককে ঢাকা মেডিকেলের জরুরি বিভাগের সামনে থেকে ‘ধরে নিয়ে যায়’ ডিবি পুলিশ।

যুগ্ম আহবায়ক নুরুল হক নূর বলেন, “আমরা মেডিকেলে ভর্তি শিক্ষার্থীদের দেখে যাওয়ার সময় জরুরি বিভাগের সামনে থেকে ৩/৪টি মোটর সাইকেল এবং দুটো কালো কাচওয়ালা মাইক্রোবাস সেখানে আসে। রিকশা থামিয়ে টানা-হেঁচড়া করে তারা আমাদের মাইক্রোবাসে তুলে ফেলে।”

নূর বলছেন, মাইক্রোবাসে তোলার পর প্রথমে তাদের হেলমেট পরিয়ে দেওয়া হয়। গুলিস্তান এলাকায় নিয়ে ‘গামছা দিয়ে চোখ বেঁধে’ ফেলা হয়। গাড়ি থেকে নামিয়ে চোখ খোলার পর তারা বুঝতে পারেন, তারা আছেন ডিবি কার্যালয়ে।

 “পুলিশ আমাদের বলেছে, কিছু ভিডিও ফুটেজ দেখানোর জন্য তারা আমাদের তুলে নিয়েছে। পরে তারা আমাদের কিছুই দেখায়নি। নাম জিজ্ঞেস করে, দরকার হলে পরে ডাকা হবে বলে ছেড়ে দিয়েছে।”

ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের আরেক যুগ্ম আহবায়ক মুহম্মদ রাশেদ খাঁন বলেন, “আমার বাবাকে পুলিশ গ্রেপ্তার করেছে। ঝিনাইদহ সদর থানায় আমার বাবাকে আটকে রাখা হয়েছে। আমার দিনমজুর বাবাকে থানায় আটকে রেখে বিশ্রী ভাষায় গালাগাল করা হচ্ছে। আমার শিবির সংশ্লিষ্টতা প্রমাণের জন্য তাকে চাপ দেওয়া হচ্ছে।”

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যাংকিং অ্যান্ড ইন্সুরেন্স বিভাগের এই শিক্ষার্থী বলেন, “আমার পদ-পদবি নেই, তাই বলে কি আমি ন্যায়ের পক্ষে কথা বলতে পারব না? আমার বাবার কি অপরাধ ছিল?”

এ বিষয়ে যোগাযোগ করা হলে ঝিনাইদহ সদর থানার ওসি এমদাদুল হক শেখ বলেন, “ইত্তেফাকে আজ একটা খবর এসেছে যে ঢাকার কোটা আন্দোলনের নেতা রাশেদ শিবিরের সক্রিয় কর্মী। এ বিষয়ে তার বাবা সবাই বিশ্বাসকে থানায় এনে জিজ্ঞাসাবাদ করে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।”

সরকারি চাকরিতে কোটার পরিমাণ ৫৬ শতাংশ থেকে ১০ শতাংশে নামিয়ে আনার দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষার্থী ও চাকরিপ্রত্যাশীদের সঙ্গে গত ৮ এপ্রিল রাতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে ব্যাপক সংঘর্ষ হয় পুলিশ ও ছাত্রলীগের।

রাতভর ওই সংঘর্ষের মধ্যে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের বাসভবনে হামলা চালিয়ে প্রায় সব কিছু ভাঙচুর করা হয়।  এসব ঘটনায় পাঁচটি মামলা করা হয়।

টানা আন্দোলনের মধ্যে ১১ এপ্রিল সারা দেশে উচ্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা ক্লাস-পরীক্ষা বর্জন করে রাস্তায় নামে। কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্দোলনকারীদের অবরোধে কার্যত অচল হয়ে যায় রাজধানীর রাজপথ।

সেদিন সন্ধ্যায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সংসদে এই আন্দোলন নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, কোটা নিয়ে যেহেতু এত কিছু, সেহেতু কোনো কোটাই আর রাখা হবে না।

পরদিন দ্রুত কোটা সংস্কারের গেজেট প্রকাশসহ কয়েকটি দাবি রেখে আন্দোলন স্থগিতের ঘোষণা দেয় বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ।

তার চার দিনের মাথায় সোমবার সকালে আবারও সংবাদ সম্মেলনে এসে দৈনিক ইত্তেফাকে ‘কোটা আন্দোলনের সেই চার নেতার একজন শিবিরের সক্রিয় কর্মী’ শিরোনামে প্রকাশিত সংবাদ প্রত্যাহারের দাবি জানান পরিষদের কেন্দ্রীয় নেতারা।

যুগ্ম আহ্বায়ক ফারুক বলেন, “আজ বিকাল ৫টার মধ্যে যদি ইত্তেফাক সংবাদ প্রত্যাহার না করে এবং পত্রিকাটির সম্পাদক, বার্তা সম্পাদক ও প্রতিবেদক যদি ভুলের জন্য ক্ষমা না চান, তাহলে আগামীকাল থেকে সারাদেশের সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ইত্তেফাক পত্রিকা বর্জন করা হবে।”

তাদের ওই ঘোষণার পর বিকাল সোয়া ৪টার দিকে ইত্তেফাকের অনলাইন সংস্করণে ওই প্রতিবেদনের জন্য দুঃখ প্রকাশ করে তা প্রত্যাহার করে নেওয়ার কথা জানানো হয়।

সেখানে বলা হয়, “প্রকাশিত সংবাদটি ইতোমধ্যে দৈনিক ইত্তেফাকের প্রিন্টের অনলাইন সংস্করণ থেকে প্রত্যাহার করা হয়েছে। এই সংবাদের কারণে কেউ ব্যক্তিগত ক্ষোভ বা দুঃখ পেয়ে থাকলে দৈনিক ইত্তেফাক কর্তৃপক্ষ সেইজন্য দুঃখ প্রকাশ করছে।”

যার বিরুদ্ধে ওই প্রতিবেদনে শিবির সংশ্লিষ্টতার অভিযোগ আনা হয়েছে, সেই রাশেদ খাঁন সংবাদ সম্মেলনে বলেন, “আমার নামে এবং কেন্দ্রীয় কমিটিতে যারা আছেন তাদের বিরুদ্ধে মিথ্যা অপপ্রচার চালানো হচ্ছে।”

তার হলে থাকা নিয়ে ইত্তেফাকের প্রতিবেদেনে ‘উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে’ ভুল তথ্য দেওয়া হয়েছে দাবি করে রাশেদ বলেন, “ওখানে অভিযোগ করা হয়েছে, উপাচার্যের বাসভবনে ভাংচুরের সাথে নাকি আমার সংশ্লিষ্টতা ছিল। কিন্তু সেখানে কারা ছিল, সে বিষয়ে আমি কিছুই জানি না।

“আমরা আন্দোলনকারীরা সব সময় বলে আসছি যে, উপাচার্য স্যারের বাসায় যে হামলা হয়েছে, আমরা তার বিচার চাই।”

আন্দোলনের আহ্বায়ক হাসান আল মামুন বলেন, “আমি হাজী মুহম্মদ মুহসীন হল ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি। ছোটবেলা থেকেই ছাত্রলীগের রাজনীতি করে আসছি। আমার বাবা ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধের সময় ছাত্রলীগের একটি ইউনিটের সভাপতি ছিলেন। আমার বাবা মুক্তিযোদ্ধা ছিলেন।

“সুতরাং যারা আমার বিরুদ্ধে এসব অভিযোগ আনছেন, তারা নেত্রকোনায় গিয়ে খোঁজ নিক, সেখানকার মুক্তিযোদ্ধারাই বলে দেবেন আমরা কোন আদর্শে বিশ্বাসী।”

শেয়ার করুন

আপনার মতামত দিন

সর্বশেষ খবর

  •   সকল জেলায় চার লেনের সড়ক হবে: পরিকল্পনামন্ত্রী
  •   বিপিএল মাতাতে সিলেটে ডি ভিলিয়ার্স
  •   সংরক্ষিত আসনে আ’লীগের ফরম কিনলেন যেসব তারকারা
  •   মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশিসহ ৮২ জন অবৈধ অভিবাসী আটক
  •   শাহপরাণ থেকে ইয়াবাসহ মাদক ব্যবসায়ী আটক
  •   'প্রবৃদ্ধি ১০ ভাগে নেয়ার লক্ষ্যে কাজ করছে সরকার'
  •   যুদ্ধাপরাধী পরিবারের সম্পদ বাজেয়াপ্তের কাজ চূড়ান্ত পর্যায়ে: আইনমন্ত্রী
  •   খালেদা জিয়ার জীবন এখন গভীর সংকটে: রিজভী
  •   সিলেটে সেই জঙ্গি মর্জিনার বোনসহ গ্রেফতার ৩
  •   ডিসেম্বরেই চলবে মেট্রোরেল
  •   আখালিয়া তপোবনে ব্যাডমিন্টন টুর্নামেন্ট সম্পন্ন
  •   সিলেটে বেড়েছে খুনোখুনী, জনমনে আতঙ্ক
  •   নতুন এমপিদের শপথের বৈধতা নিয়ে রিট খারিজ
  •   কুলাউড়ায় পিকআপের ধাক্কায় বৃদ্ধার মৃত্যু
  •   বালাগঞ্জে ঠাকুর অনকুল চন্দ্রের জন্মোৎসব পালন
  • সাম্প্রতিক জাতীয় খবর

  •   'প্রবৃদ্ধি ১০ ভাগে নেয়ার লক্ষ্যে কাজ করছে সরকার'
  •   যুদ্ধাপরাধী পরিবারের সম্পদ বাজেয়াপ্তের কাজ চূড়ান্ত পর্যায়ে: আইনমন্ত্রী
  •   ডিসেম্বরেই চলবে মেট্রোরেল
  •   নতুন এমপিদের শপথের বৈধতা নিয়ে রিট খারিজ
  •   স্যাটেলাইটে ধরা পড়ল সুন্দরবনের ৪০ একর বন উধাও!
  •   তাবলিগের সংকট নিরসনে দেওবন্দ যাচ্ছে বাংলাদেশের প্রতিনিধি দল
  •   টিআইবির প্রতিবেদন ‘পুরোপুরি প্রত্যাখ্যান’ সিইসির
  •   মুসলিম উম্মাহকে ঐক্যবদ্ধ থাকার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর
  •   জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে বৃহস্পতিবার অফিস করবেন প্রধানমন্ত্রী
  •   জাতিসংঘে বাংলাদেশি শান্তিরক্ষীদের প্রশংসা
  •   টিআইবির প্রতিবেদন রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত: তথ্যমন্ত্রী
  •   প্রেসক্লাবে সাংবাদিক আমানুল্লাহ কবীরের জানাজা অনুষ্ঠিত
  •   শেখ হাসিনাকে কম্বোডিয়ার প্রধানমন্ত্রীর শুভেচ্ছা
  •   ট্যাংকারের ধাক্কায় ট্রলারডুবি, নিখোঁজ ২০
  •   ভালোবেসে বিয়ে করেও প্রেমিক যুগলের আত্মহত্যা!