আজ রবিবার, ১৯ জানুয়ারী ২০২০ ইং

বীরঙ্গনা মাজেদা দ্রুত ফাঁসির রায় চান রাজাকার কায়সারের

সিলেটভিউ টুয়েন্টিফোর ডটকম, ২০২০-০১-১৪ ১৭:৫৬:৪৯

মাধবপুর (হবিগঞ্জ) প্রতিনিধি :: বীরঙ্গনা মাজেদার ৭১’এর দুঃসহ স্মৃতি নিয়ে নিরবে নিবৃত্তে গ্রামের একটি কুড়ে ঘরে দারিদ্রের সঙ্গে লড়াই করে যুদ্ধ শিশুকে নিয়ে কোনরকমে বেঁচে আছেন। যুদ্ধের সময় দুঃসহ যন্ত্রনার ক্ষত দিনে দিনে আরো গভীর হচ্ছে। অজানা আতংক এখনো তাকে তাঁড়িয়ে বেড়াচ্ছে। যুদ্ধ শিশু শামসুন্নাহারকে নিয়ে হবিগঞ্জের মাধবপুর উপজেলার আদাঐর ইউনিয়নের সুলতানপুর গ্রামে বসবাস করছেন।

একাত্তরের জগদীশপুর হাইস্কুল পাক মিলিটারী বাহিনীর নির্যাতনের কথা মনে করতেই তিনি নির্বাক হয়ে পড়েন। ওই সময় কুখ্যাত রাজাকার কমান্ডার কায়সারের নির্দেশে জগদীশপুর মিলিটারী ক্যাম্পে মাটির নিচে বাংকারে নিয়ে অমানুষিক নির্যাতন চলে মাজেদার উপর। নির্যাতনে মাটির বাংকারে মাজেদা অজ্ঞান হয়ে পড়ায় মরে গেছে ভেবে তাকে পাশের জগদীশপুর প্রাথমিক বিদ্যালয়ের বারান্দায় ফেলে যাওয়া হয়। ভোর বেলা মাজেদার জ্ঞান  ফিরে এলে বাবার বাড়ি বেলঘরে ফিরে যান তিনি। পরে তাকে বাবার বাড়ির লোকজন ছাতিয়াইন নিয়ে চিকিৎসা দেন।
 
মঙ্গলবার সকালে একাত্তরের বীরঙ্গনা মাজেদার বাড়িতে দেখা যায় তার যুদ্ধ শিশু শামসুন্নাহারকে নিয়ে কাঁথা সেলাই করছেন। বীরঙ্গনা মাজেদা বেগম বলে, তার চাচা আব্দুল মতিন মুক্তিযোদ্ধা হওয়ায় রাজাকার কমান্ডার কায়সারের নির্দেশে তাদের বেলঘর গ্রামে হানা দিয়ে তার চাচা আইয়ুব আলী, আতাত মিয়া, লুদন মিয়াকে জগদীশপুর হাইস্কুল মিলিটারী ক্যাম্পে ধরে নিয়ে যায়।

একই সাথে বেলঘর গ্রাম থেকে মাজেদাকেও পাক হানাদার বাহিনী ধরে নিয়ে জগদীশপুর হাইস্কুল মিলিটারী ক্যাম্পে বাংকারে বন্দি করে রাখে। মাটির নিচে বাংকারে পাক সৈন্যরা ৪/৫দিন তার উপর অমানবিক নির্যাতন চালায়।

মাজেদা বেগম জানান, সরকার তাকে বীরঙ্গনা হিসাবে মুক্তিযোদ্ধার ৮ শতক সরকারি জমি বরাদ্দ দিয়েছেন। কিন্তু জমিটি মাঝ মাঠে হওয়ায় ঘর বাড়ি করা যাচ্ছে না। ইচ্ছা ছিল তার যুদ্ধ শিশুর জন্য সরকারি জায়গায় ঘর তৈরি করে দিবে সরকার!

মঙ্গলবার সকালে একাত্তরের মানবতাবিরোধী রাজাকার কামন্ডার সৈয়দ মোঃ কায়সারের ফাঁসির রায় আপীল বিভাগে বহাল থাকায় সন্তোষ প্রকাশ করে বলেন, দ্রুত রায় কার্যকর করা হোক। এতে জাতি কলংকের অভিশাপ থেকে মুক্তি পাবে।  
 

সিলেটভিউ২৪.কম/ ১৪ জানুয়ারি ২০২০/শামিম /জুনেদ


শেয়ার করুন

আপনার মতামত দিন

সর্বশেষ খবর

  •   বড়লেখায় শিবির নেতা গ্রেফতার
  •   নগরীকে আধ্যাত্মিক ও পর্যটন নগরী হিসেবে সাজানো হচ্ছে: মেয়র আরিফ
  •   নগরীর গুরুত্বপূর্ণ চত্বরগুলোকে দৃষ্টিনন্দন করতে বিশেষ প্রকল্প!
  •   কানাইঘাটে কৃতি শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা প্রদান
  •   জেলা বার নেতৃবৃন্দকে ড. এনামুল হকের অভিনন্দন
  •   টিলাগড়ে কার দুর্ঘটনায় আহত রুবেল মারা গেছেন
  •   বাংলাদেশের শিক্ষাব্যবস্থা অতীতের চেয়ে কল্পনাতীত: সিলেটে ফরাসউদ্দিন
  •   দিরাইয়ে নানা আয়োজনে মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ডের সম্মেলন
  •   প্রেমের ফাঁদে ফেলে জগন্নাথপুরে কিশোরগঞ্জের ছাত্রীকে ধর্ষণ, ধর্ষক গ্রেফতার
  •   সিলেটে সঞ্চয় সপ্তাহ ২০২০-এর উদ্বোধন
  •   মাদ্রাসা ফাঁকি দিয়ে ক্রিকেট খেলতেন হাসান মাহমুদ
  •   জিয়াউর রহমানের জন্মদিনে জেলা বিএনপির সভা রবিবার
  •   সিরিয়ায় গোপনে ৭৫ ট্রাক সেনা-অস্ত্র পাঠাল যুক্তরাষ্ট্র
  •   স্কুলের মধ্যেই স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণের চেষ্টা পুলিশের!
  •   আম্বিয়া মেমোরিয়াল মেধাবৃত্তির পুরস্কার বিতরণ
  • সাম্প্রতিক হবিগঞ্জ খবর

  •   চুনারুঘাট ও মাধবপুর সীমান্ত দিয়ে আসছে ভারতীয় নিম্নমানের চা পাতা
  •   জর্ডানে উদ্ধার হওয়া চুনারুঘাটের খাদিজা দেশে আসছেন রবিবার
  •   একশ বছর আগের নদীগুলোও খুঁজে বের করে উদ্ধার করা হবে
  •   চুনারুঘাটে ৪ হাজার কেজি ভারতীয় চা পাতাসহ আটক দুই
  •   বিমান খাতে দূর্নীতি নির্মূল করতে কঠোর উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে: বিমান প্রতিমন্ত্রী
  •   হবিগঞ্জে ৮ বছরের শিশুকে ধর্ষণ, ধর্ষক আটক
  •   হবিগঞ্জে স্কুলছাত্র ইসমাইল হত্যার ঘটনায় মামলা
  •   পুলিশ সার্ভিস এসোসিয়েশনের যুগ্ম সম্পাদক হলেন হবিগঞ্জের নূরুল আমীন
  •   হবিগঞ্জে শুরু হলো মাসব্যাপী কৃষি শিল্প ও বাণিজ্য মেলা
  •   মাধবপুরে ফেনসিডিলসহ যুবক আটক
  •   রাজাকার কায়সারের চূড়ান্ত রায়ে খুশি হবিগঞ্জবাসী, দ্রুত কার্যকরের দাবি
  •   সাবেক প্রতিমন্ত্রী হবিগঞ্জের সৈয়দ কায়সারের ফাঁসির রায় বহাল
  •   হবিগঞ্জের যুদ্ধাপরাধী কায়সারের মৃত্যুদণ্ড আপিলেও বহাল
  •   হবিগঞ্জে ৮ টাকার ইনজেকশন ৬০ টাকা, ২২ হাজার টাকা জরিমানা
  •   যুদ্ধাপরাধী কায়সারের আপিলের রায় মঙ্গলবার, মাধবপুরে মুক্তিযোদ্ধাদের মানববন্ধন