আজ মঙ্গলবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০ ইং

নবীগঞ্জে দুশ্চিন্তার নাম ‌‘অতি বৃষ্টি’

সিলেটভিউ টুয়েন্টিফোর ডটকম, ২০২০-০৮-০৫ ১৫:২৪:০৩

নবীগঞ্জ সংবাদদাতা ::  অতি বৃষ্টি সাথে লড়ছে হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ উপজেলার চাষিরা। অতি বৃষ্টির সাথে যোগ হয়েছে করোনাভাইরাস। এসব দুর্ভোগ নিয়ে দুশ্চিন্তায় পড়েছে উপজেলার আমন চাষিরা।

উপজেলার মধ্যে অতি বৃষ্টি কবলে পড়ে আমনের ফলনের লক্ষ্যমাত্রা পূরণ না হওয়ার আশঙ্কা করছেন উপ সহকারী কৃষি কর্মকর্তারা।

জানা যায়, চলতি শ্রাবণের বৃষ্টি মাথায় নিয়ে আমন ধান চাষে ঝুঁকে পড়ার কথা ছিল চাষিদের। কিন্তু অতি বৃষ্টি ও করোনায় বেশ ঢিমে তালে চলছে আমন চাষ। অতি বৃষ্টি  কবলে পড়ে ক্ষতির মুখে পড়তে পারে উপজেলার আমন চাষ। উপজেলায় ১৩টি ইউনিয়নের মধ্যে
অতি বৃষ্টি কারণে ডুবে আছে কালিয়ারভাঙ্গা, দেবপাড়া, গজনাইপুর ও নবীগঞ্জ সদর ইউনিয়নের বেশির ভাগ আমন জমিগুলো।

উপজেলার ১নং বড় ভাকৈর পশ্চিম, বড় ভাকৈর পূর্ব, ইনাতগঞ্জ ও দীঘলবাক ইউনিয়নের  নদীপাড়ের নিম্নাঞ্চল অতি বৃষ্টির কারনে পানিতে তলিয়ে আছে আরো বেশ কয়েক হাজার হেক্টর জমি। গত মাসের ২৫ জুন থেকে অতি বৃষ্টি কারণে বন্যার আশংকা দেখা দেয়। এক মাস পার হওয়ার পরও বৃষ্টির পানি না নামার কারণে আমন চাষ নিয়ে আমন চাষিদের সাথে শঙ্কিত হয়ে আছে উপজেলার উপ সহকারী কৃষি কর্মকর্তারা।

উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়, হবিগঞ্জের মধ্যে নবীগঞ্জ উপজেলা একটি কৃষি প্রধান এলাকা। ধান,সবজি, মরিচ, আলু, সীমের জন্য নবীগঞ্জ কৃষি ক্ষেত্রে বরাবরই অবদান রাখছে। তবে এবার আমন চাষের জন্য  উপজেলায় সঙ্কট রয়েছে। তারপরেও উপজেলায় এবার আমন চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ১৩ হাজার হেক্টর।

আর গত বছর চাষের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ১২ হাজার লাখ ৬৮০ হেক্টর। চাল আকারে ফলন হয়েছে ১২ হাজার ৭৬০ মেট্রিক টন। গত বছর একটু কম পরিমাণ জমিতে আমন চাষ করে ফলন বেশি পাওয়া গেলেও এ বছর অতি বৃষ্টি পানির স্থায়িত্বের কারণে ফলন লক্ষ্যমাত্রা কম ধরা হয়েছে। কিন্তু তারপরও শঙ্কিত হয়ে আছে কৃষি বিভাগ। বৃষ্টির পানি জমিতে দির্ঘস্থায়ী হলে সময়মত আমন চাষ করতে না পারলে লক্ষ্যমাত্রা অর্জিত হওয়া নিয়ে চিন্তায় পড়তে পারেন উপ সহকারী কৃষি কর্মকর্তারা। এ বছর অতি বৃষ্টির পানির কারণে আমনের ক্ষেত ও বীজতলাসহ প্রায় ৬৭০ হেক্টর জমি ক্ষতি হয়ে আছে। বৃষ্টির পানি নেমে গেলে চাষের আওতায় চলে অসবে। আর পানি না নেমে গেলে ক্ষতির মুখে পড়বে আমন চাষিরা।

নবীগঞ্জের কৃষকেরা বৃষ্টির পানির স্থায়িত্বের কারণে এখনো পুরোদমে আমন চাষে নামতে পারেনি। দুই একটি উচুঁ স্থানে আমন চাষ হলেও অতি বৃষ্টির কারণে অর্ধেক উপজেলায় এখনো চাষ হয়নি। উপজেলায় আমনের ৩০ হেক্টর বীজতলা নষ্ট হয়ে যাওয়ার কারণে শংঙ্কায় পড়েছে নবীগঞ্জের আমন চাষীরা। উল্লেখিত এলাকার আমন চাষিরা বৃষ্টির পানি তাড়াতাড়ি সরে না গেলে আমন চাষ শুরু করতে পারবে কিনা এনিয়ে শঙ্কা বিরাজ করছে। উপজেলার উঁচু বা অতি বৃষ্টি  কবলে পড়েনি এসব এলাকা পানি উঠায় চাষিদের আমন চাষ নিয়ে চিন্তা বেড়ে গেছে।

নবীগঞ্জ উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা এ কে এম মাকসুদুল আলম জানান, নবীগঞ্জে পুরো উপজেলায় অতি বৃষ্টির কারনে বন্যার আশংকা দেখা দিয়েছে। অতি বৃষ্টির কারণে ক্ষতিগ্রস্ত জমি ও কৃষকের তলিকা তৈরী করা হচ্ছে। বৃষ্টির পানি নেমে গেলে আমন চাষের কোন ক্ষতি হবে না। চলতি বছর আমন চাষের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ১৩ হাজার হেক্টর। চাল আকারে ফলন ধরা হয়েছে ১৩ হাজার মেট্রিক টন।


সিলেটভিউ২৪ডটকম/০৫ আগস্ট ২০২০/এসবিডি/এসডি

শেয়ার করুন

আপনার মতামত দিন