আজ মঙ্গলবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮ ইং

শেখ রেহানার যাপিত জীবন

সিলেটভিউ টুয়েন্টিফোর ডটকম, ২০১৮-০৯-১৩ ১৩:২৫:৩১

সুজাত মনসুর :: বঙ্গবন্ধু পরিবারের কনিষ্ঠ মেয়ের নাম রেহানা। মায়ের ডাক নাম রেণুর প্রথম অক্ষর আর বড়বোন হাসিনার শেষের অক্ষর অক্ষুন্ন রেখে নাম। পারিবারিক পদবী যুক্ত হয়ে পরিপুর্ণ নাম শেখ রেহানা। অতি আদরের ছোট ভাই রাসেলের কাছে যিনি ছিলেন ‘দেনা’ আপা। রাসেলের দেনা আপা  কিংবা বাবা-মায়ের আদরের রেহানা বা মুন্নার জন্ম এমন ও বেড়ে ওঠা এমন এক সময়ে  যখন বঙ্গবন্ধু ধীরেধীরে হয়ে উঠছেন বাঙালি জাতির সকল আশা-ভরসার মুর্তপ্রতীক। বাংলা ও বাঙালির মুক্তির প্রতিকৃত। জেল-জুলুম-নির্যাতন যার নিত্যসঙ্গী। শেখ রেহানা যখন বুঝতে শিখেছেন, তখনই দেখেছেন বাবা শেখ মুজিব বাঙালি জাতির শোষণমুক্তির জন্য আন্দোলন-সংগ্রাম করতে গিয়ে মাসের পর মাস, বছরের পর বছর কারাগারে। কারাগারই যেন তার মুল বাড়ি। আর নিজ বাড়িতে তিনি যেন ক্ষণিকের অতিথি। ঈদ-পার্বনে প্রায়ই তিনি কারাগারে। যদিওবা কখনো তিনি বাড়িতে থাকার সুযোগ পেতেন তখন বঙ্গবন্ধু পরিবারে সে বছরের ঈদ হত সবচেয়ে সেরা ঈদ। শেখ রেহানা এক স্মৃতিচারনে লিখেছেন, “ছোটবেলায় দেখতাম, আব্বা প্রায়ই থাকতেন জেলখানায়। আমদের কাছে ঈদ ছিল তখন, যখন আব্বা জেলখানার বাইরে থাকতেন, মুক্ত থাকতেন। আব্বাও জেলের বাইরে, ঈদও এলো এমন হলে তো কথাই নেই। আমদের হতো ডাবল ঈদ।”

বঙ্গবন্ধুর এমনই কপাল তিনি কোন মেয়ের বিয়েতেই উপস্থিত থাকতে পারেননি। বড়মেয়ের বিয়ের সময় জেলে আর ছোটমেয়ের বিয়ের আগেই তো ঘাতকের হাতে জীবন দিতে হল। আর বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন নেসা রেণু নিজ হাতে বড়মেয়ে হাসুর বিয়ে দিতে পারলেও ছোট মেয়ের বিয়ে দিতে পারেননি ঘাতকের হাতে নিহত হবার কারনে। শেখ হাসিনার সন্তান জয়-পুতুল নানা-নানী-মামাদের আদর পেলেও, শেখ রেহানার সন্তান ববি, টিউলিপ, রূপন্তি তাদের আদর থেকে বঞ্চিত হয়েছে। পরিবারের বড় জামাতা ড. ওয়াজেদ মিয়া শ্বশুড়-শ্বাশুড়ির আদর-আপ্যায়ন পেলেও, ছোট জামাতা ড. শফিক সিদ্দিক তা থেকে বঞ্চিত হয়েছেন।

শেখ রেহানার বিয়ে সম্পন্ন হয় লন্ডনের কিলবার্নে বঙ্গবন্ধু পরিবারের সুখ দুঃখের সাথী, বঙ্গবন্ধুর ফুফাতো ভাই মোমিনুল হক খোকার বাড়িতে ১৯৭৭ সালের জুলাই মাসের শেষ সপ্তাহে ড. শফিক সিদ্দিক-এর সাথে। শফিক সিদ্দিক তখন বিলেতের সাউদাম্পটন ইউনিভার্সিটিতে উচ্চ শিক্ষারত ছিলেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকতায় থাকাকালীন তিনি সেখানে এসেছিলেন। শেখ রেহানাও বঙ্গবন্ধু স্বপরিবারে শহীদ হবার পর বড়বোন শেখ হাসিনার সাথে জার্মান থেকে দিল্লি চলে যান এবং সেখান থেকে পরে তাদের প্রিয় খোকা চাচার নিকট লন্ডনে এসে বসবাস শুরু করেন। শফিক সিদ্দিক-এর পরিবার ও শেখ রেহানাদের পরিবার ছিলেন পুর্ব পরিচিত এবং ১৯৭৪ সালেই পারিবারিকভাবে তাঁদের বিয়ের পাকা কথা হয়েছিল। সব ঠিকঠাক থাকলে শেখ রেহানা জার্মানি থেকে ফিরে আসার পর বিবাহের কাজটি সম্পন্ন হবার কথা ছিল। কিন্তু পনেরোই আগস্টের হত‍্যাকান্ডের পর দেশে যাওয়া  এবং বেঁচে থাকাই যেখানে অনিশ্চিত হয়ে যায়, সেখানে আবার বিয়ে?  তারপরও জীবন থেমে যায় না। জীবন নদীর মতো বহমান। কিন্তু একটি কথা বলতেই হয় বঙ্গবন্ধু পরিবারের সবচেয়ে দুঃখী সন্তানের নাম হলো ‘রেহানা’। ছোট ভাই রাসেল ছাডা সবার নিকট যে ছিলেন আদরের 'মুন্না'। বড়বোনের বিয়েত বাবা উপস্থিত না থাকতে পারলেও মা, ভাই, চাচা ও তিনি নিজেসহ আত্মীয় স্বজন উপস্থিত ছিলেন। ভাইদের বিয়েতে পিতা মুজিব উপস্থিত থেকে আশীর্বাদ করেছেন। কিন্তু শেখ রেহানার বিয়েতে একমাত্র জীবিত বোন টিকেটের টাকা যোগাড় করতে পারেননি বলে অনুপস্থিত ছিলেন। এ প্রসঙ্গে শফিক সিদ্দিক লিখেছেন, “৮৩ সালে তখন হাসিনা আপা আওয়ামী লীগের সভানেত্রী হিসেবে ঢাকায় অবস্থান করছেন। ঐ সময়ে আমি আমার পিএইচডি থিসিসের কাজে ঢাকা গিয়েছিলাম। একদিন হাসিনা আপার বাসায় উপস্থিত হয়ে দেখতে পেলাম, উনি হাশেম ভুইয়াঁ নামের একজন কর্মীর অসুস্থ মেয়েকে লন্ডন পাঠাবার ব্যবস্থা করছেন। তখন হাসিনা আপা বেশ দুঃখ করে আমাকে বললেন, ‘শফিক দেখ, আজকে আল্লাহর ইচ্ছায় আমি আমার একজন কর্মীর অসুস্থ মেয়েকে বিদেশ পাঠাতে সাহায্য করতে পারি। কিন্তু সেদিন আমার একমাত্র বোনের বিয়ের অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকতে দিল্লী থেকে লন্ডন যেতে পারিনি, কেবল টিকেটের টাকার অভাবে।”  এরচেয়ে বড় কষ্ট ও দুঃখের ঘটনা কারো জীবনে হতে পারে না।

এরপরও দুঃখ কষ্ট তাঁকে, তাদের দু‘বোনের পরিবারকে তাড়া করে ফিরেছে। এখনো তো বাবা মা ভাই হারানোর বেদনা তাঁদের তাড়া করে বেডায়। যদিও পারিবারিক, সামাজিক ও রাজনৈতিক জীবনে তারা অনেকটাই এখন সুখের পরশ পাচ্ছেন। তবে একটা বিষয়ে তাদের চরম শত্রুও স্বীকার করতে বাধ্য হবে, পারিবারিক শিক্ষা, বিশেষ করে মায়ের দেয়া শিক্ষা তাঁদেরকে ধৈর্য, সাহস, বিচক্ষণতা, অধ‍্যাবসায়, ত‍্যাগ, নির্লোভতা চলার পথকে সুগম করেছে। বিজয়ী করেছে। পুরোপুরি সুখী করতে না পারলেও স্বস্তি দিয়েছে। প্রেরণা যুগিয়েছে যুদ্ধজয়ের।

বিয়ের পর শফিক সিদ্দিক ও শেখ রেহানাকে নানামুখি সংকট মোকাবেলা করে অগ্রসর হতে হয়েছ। সে সময় আর্থিক কষ্টটাই ছিল প্রবল। বিয়ের পরপরই স্বামীর সাথে চলে আসেন সাউদাম্পটন ইউনিভার্সিটিতে। মাথা গোঁজার ঠাঁই করে নেন আরেক বাঙালি পরিবারের সাথে রুম ভাগাভাগি করে। আর্থিক অনটনের কারণে চাইলেই একক বাড়ি ভাড়া করে থাকার সামর্থ্য তাঁদের ছিল না। তাই শেখ রেহানাও বিভিন্ন জাযগায় চাকরির চেষ্টা করছিলেন। এমনকি বিশ্ববিদ্যালয়ের ক‍্যান্টিনেও কর্মখালি দেখে চেষ্টা করেছেন কিন্তু শেষ পর্যন্ত হয়নি। নববিবাহিতা স্ত্রীর চাকরি করার বিষয়টি মন থেকে না চাইলেও শফিক সিদ্দিক রাজী হয়েছিলেন দুটি কারণে। (এক) শেখ রেহানা প্রায়ই একা বাসায়  থাকতেন এবং সার্বক্ষণিক মা, বাবা, ভাইদের ছবি সামনে নিয়ে কান্নাকাটি করতেন। ফলে শফিক সিদ্দিকের সন্দেহ জেগেছিল, এভাবে একা থাকতে থাকতে শেখ রেহানার মানসিক সমস্যা যদি দেখা দেয়। সুতরাং কাজে থাকলে মানুষের সান্নিধ্যে ও ব‍্যস্ত থাকার কারণে পনেরোই আগস্টের ভয়াবহ স্মৃতি কিছুটা হলেও ভুলে থাকতে পারবেন। (দ্বিতীয়ত) কিছুটা হলেও আর্থিক সমস্যার সমাধান হবে, এই বিবেচনায় তিনি স্ত্রীর চাকরির ব‍্যাপারে সম্মত হন। কিন্তু তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের ক‍্যান্টিনের কাজের ধরণ ব‍্যাখ‍্যা করে স্ত্রীর অভিব‍্যক্তি জানতে চেয়েছ।

সিলেটভিউ২৪ডটকম/১৩সেপ্টম্বর২০১৮/ডেস্ক

শেয়ার করুন

আপনার মতামত দিন

সর্বশেষ খবর

  •   ‘তিনটা মাসের কষ্টের ফল পাবে আগামীর বাংলাদেশ’
  •   বিশ্বনাথে ওরুসের নামে অসামাজিক কর্মকান্ড বন্ধে স্মারকলিপি
  •   কুলাউড়ায় মেজর (অব.) নুরুল মান্নান চৌধুরীর মাতার মৃত্যুতে দোয়া মাহফিল
  •   শাবিতে ইংলিশ ফুটবল ফেস্টে চ্যাম্পিয়ন এফসি হট কেকস
  •   হবিগঞ্জে স্কুলছাত্রকে অপহরণ করে মুক্তিপণ দাবি, আটক দুই
  •   নীল আকাশে সাদা মেঘের ভেলা
  •   বালাগঞ্জে ক্রীড়া সংগঠক নওশাদ আলীকে বিদায় সংবর্ধনা প্রদান
  •   বালাগঞ্জের নলজুড় প্রাথমিক বিদ্যালয়ে মা সমাবেশ
  •   বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে, এ ধারা অব্যাহত থাকবে: বালাগঞ্জে জেলা প্রশাসক
  •   ৬ মাসে ৩ বিয়ে, ৩ সন্তান! বিতর্কে ফুটবলার
  •   ভারতের জয় ছাপিয়ে আলোচনায় পাকিস্তানি সুন্দরী
  •   কিডনি স্টোন বের করার অভিনব পথ আবিষ্কার রোগীর!
  •   ১৭টি প্রাসাদে কিমের বিলাসী জীবন
  •   যে শহরে যমজ শিশুর জন্ম ১০ গুণ বেশি!
  •   প্রেমিকার চুম্বনে প্রাণ রক্ষা প্রেমিকের!
  • সাম্প্রতিক মুক্তমত খবর

  •   ‘তিনটা মাসের কষ্টের ফল পাবে আগামীর বাংলাদেশ’
  •   নীল আকাশে সাদা মেঘের ভেলা
  •   'তোমাকে স্ত্রী হিসেবে পেয়ে আমি-ই ভাগ্যবান'
  •   নিঃশর্ত ভালোবাসায়ই আমার এই দ্বিতীয় জীবন: রশীদ আহমদ
  •   এই দিন দিন নয় আরও দিন আছে
  •   কামাল হোসেনই বিএনপির শেষ ভরসা
  •   মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক ডা. দেওয়ান নুরুল হোসেন চঞ্চলের মৃত্যুবার্ষিকী আজ
  •   কারবালার শিক্ষা
  •   অাবহাওয়ার হৃদয় বৃত্তান্ত
  •   তুমি চলিয়া গেলে দিয়া মোরে ফাঁকি...
  •   কঠিন সিদ্ধান্ত নিতে আমি পছন্দ করি: পরীমণি
  •   সিনেমা ভাঙলে মিলন আনন্দ দেয় বিচ্ছেদ কাঁদায়
  •   আসন্ন জাতীয় নির্বাচন: জোট ও ভোটের হালচাল
  •   বুক ভরা আশা নিয়ে ঘুমিয়ে থাকো শিশির ভেজা দূর্বাদলে
  •   বাঙালী নিয়ে রামমাধবের ঔদ্ধত্যের থ্রি ডি