আজ শুক্রবার, ২৪ মে ২০২৪ ইং

নিউইয়র্ক সিটির প্রতিনিধিত্বের সংগ্রামে বাঙালি এন মজুমদার

সিলেটভিউ টুয়েন্টিফোর ডটকম, ২০২১-০৩-০৩ ১৯:৫০:২১

বদরুজ্জামান রহেল, নিউইয়র্ক প্রতিনিধি

অর্থে, বিত্তে, সৌন্দর্য্যে, ঐতিহ্যে, নিউইয়র্ক শহর এখনও বিশ্বের শ্রেষ্ঠ, বৈচিত্রময় ও সুন্দরতম নগরী। নিউইয়র্ক শহরকে বলা হয় সারাবিশ্বের রাজধানী। প্রতি বছর জাতিসংঘের অধিবেশনে সারাবিশ্বের প্রতিনিধিগন যোগদান করেন, বিশ্বের তীর্থস্থান হিসাবে খ্যাত এই নগরীতে। স্ট্যাচু অব লিবার্টি, জাতিসংঘ ভবন, সেন্ট্রাল পার্কসহ হাজারো পার্ক, সুরম্য অট্টালিকা, বিলাসবহুল বাড়ী, দোকান, শপিংমল ও শপিং সেন্টার, স্পা, ব্যায়ামাগার, হোটেল, রেস্টুরেন্টসহ আবাল, বৃদ্ধ, বনিতা, জাতি, ধর্ম, বর্ণ  নির্বিশেষে এখানে রয়েছে বিলাসভ্রমন, আনন্দ উল্লাসের ও উদযাপনের ব্যবস্থা, সকলের জন্য। সকল পেশা ও বৃত্তির উৎকর্ষ সাধন ও উন্নয়নের ব্যবস্থা রয়েছে সবার জন্য। ফলে, সারাবিশ্বের আনন্দ ও ভ্রমনপ্রিয় মানুষের প্রাণের নগরী ও রোমান্টিক এই শহর। শহর পরিচালনায় মেয়র তার মন্ত্রীসভা বা কমিশনারবৃন্দ, পুলিশ বাহিনী, নগর পরিচালনা কমিশন, ৫৬টি কমিউনিটি বোর্ড, ৫১ জন কাউন্সিলরম্যান তথা শহর বিধানসভার সদস্য রয়েছেন। সিটি কাউন্সিল সদস্যগন জনগনের প্রত্যক্ষ ভোটে ৪ বছরের জন্য নির্বাচিত হন। কাউন্সিল মেম্বারগন ৬ ফিগারের স্যালারি, নিজ ডিষ্ট্রিক্ট এবং সিটি হলের সন্নিকটে ২টি অফিস এবং স্টাফ পেয়ে থাকেন। মিলিয়ন ডলারের ডিসক্রেশনারি ফান্ড এবং নগর পরিকল্পনা, কর আদায় এবং ব্যয়ে ভূমিকা রাখেন। এই শহরের বাজেট এবং কর যুক্তরাষ্ট্রের অনেক স্টেট এমনকি তৃতীয় বিশ্বের অনেক রাষ্ট্রের চেয়েও বড়।

আসছে ২২ জুন, এই শহরের ডিস্ট্রিক্ট ১৮ থেকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন বাংলাদেশী আমেরিকান আইনজীবি মোহাম্মদ এন মজুমদার। এন মজুমদার ১৯৮৯ সন থেকে পার্কচেষ্টার, ক্যাসলহিল, সাউন্ডভিউ এবং পার্শ্ববর্তী এলাকা নিয়ে গঠিত ডিস্ট্রিক্ট ১৮ তে বসবাস করে আসছেন। তিনি এ ডিস্ট্রিক্ট ১৮ থেকে সিটি কাউন্সিল মেম্বার পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন। সেই লক্ষে ইতোমধ্যে জনগণের দেওয়া অর্থ , চাঁদা এবং সরকারি অনুমোদন মিলিয়ে এন মজুমদার মোট ২০৮০০০.০০ (দুই লক্ষ আট হাজার) মার্কিন ডলার তহবিল সংগ্রহ করেছেন।  বিগত অক্টোবর মাস থেকেই নিয়োগ দিয়েছেন সেরা অ্যাটর্নি, কমপ্লায়েন্স পারসন, ক্যাম্পেইন ম্যানেজার, ট্রেজারার ও সাপোর্টিং স্টাফ । উল্লেখ্য, এন মজুমদার নিউ ইয়র্ক শহরে বর্ণবাদ ও সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের বিরূদ্ধে একটি বলিষ্ঠ কন্ঠস্বর হিসেবে সুদীর্ঘ ৩০ বৎসর জনগণের পাশে আছেন।

নির্বাচনী গাড়িবহর, ক্যাম্পেইন স্টাফ, ক্যাম্পেইন অফিস ও অফিস ম্যানেজারসহ একটি সুশৃঙ্খল কর্মী গ্রুপ সৃষ্টি করেছেন। এন মজুমদার বলেন, ‘আমার পরিকল্পনা হচ্ছে আমার নির্বাচনী এলাকার দুই লক্ষ ভোটারের কাছে আমার নির্বাচনী এজেন্ডা ও পরিকল্পনা  পৌঁছে দেওয়া’।

তিনি আরও বলেন, বাংলাদেশী আমেরিকানরা এই শহরের কর প্রদানকারী একটি শক্তিশালী অংশ। আমাদের অর্থনৈতিক, সামাজিক ও রাজনৈতিক হিস্যা আদায় এবং আমাদের প্রতিনিধিত্ব আদায়ের এখনই সময় ।
এন মজুমদারের সমর্থনে নিউইয়র্কের কমিউনিটি লিডারদের সভা

দুঃখজনক হলেও সত্য, যুক্তরাষ্ট্রের অর্থনীতিতে অবদান সৃষ্টিকারী এই নিউইয়র্ক শহরের স্টেটের বা ফেডারেল পর্যায়ের কোন স্থানেই বাঙালিদের প্রতিনিধিত্ব নেই। আমাদের প্রতিনিধিত্ব আদায়ের এই সংগ্রামে  যদি আমরা অংশগ্রহন ও জয়ী না হই, তাহলে এই শহরে আমাদের যত অর্জনই থাকুক না কেন, শহরের পলিসি নির্ধারণে আমরা অন্যের দারস্থ হয়ে থাকবো । অর্থাৎ আমাদের রাজনৈতিক অবস্থান অনেকটা উপজাতীয় বা গৌন সম্প্রদায়ের মতোই থেকে যাবে।

এন মজুমদার একজন অত্যন্ত যোগ্য ও  মেধাবী প্রার্থী । তিনি জীবনের বেশীর ভাগ সময়ই ব্রংক্সের পার্কচেস্টার এলাকায় সপরিবারে বসবাস করে আসছেন। তিনি ২২ বছর যাবৎ একটি মাঝারি আকারের ল’ ফার্ম ম্যানেজমেন্টের দায়িত্ব পালন করছেন, স্থানীয় প্লানিং বোর্ডের দুই বার অন্তর্বর্তীকালীন চেয়ারম্যান, ২০১২ সন থেকে একই বোর্ডের ল্যান্ড এন্ড জোনিং বোর্ডের চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করে আসছেন। এছাড়া তাঁর রয়েছে, কয়েকটি ছোট ব্যবসা ।

মজুমদার জানালেন, “ছোট ব্যবসা এবং ল’ ফার্মের ম্যানেজমেন্টের অর্জিত  জ্ঞান এবং অভিজ্ঞতা কে সিটি কাউন্সিলে কাজে লাগিয়ে আমি আমার এলাকায় অর্থনৈতিক সাম্যতা প্রতিষ্ঠা, জনগণের নিরাপত্তা, শিক্ষা ও কর্মসংস্থানের উন্নয়ন, এফোর্ডেবল হাউজিং এর মাধ্যমে গৃহহীনতা দূরীকরনে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রাখবো”।

তিনি আরও বলেন, “নিজের এবং ছেলেমেয়ের উচ্চতম শিক্ষা, অর্থনৈতিক অর্জন শেষে বাকী জীবন জনগণের সেবায় নিয়োজিত করতে চাই। আমি ব্যক্তিজীবনে  প্রতিষ্ঠিত, এখন সময় এসেছে, জনগণের কলাণে নিজেকে উৎসর্গ করার এবং এ জন্যই আমি সিটি কাউন্সিল নির্বাচনে প্রার্থী”।

উল্লেখ্য, এন মজুমদার ব্যক্তিগত জীবনে দুই সন্তানের জনক। কন্যা নাসরিন একজন অ্যাটর্নি এবং ছেলে রাশেদ মজুমদার সহকারী ডিস্ট্রিক্ট অ্যাটর্নি হিসেবে যোগ দিচ্ছেন ব্রংক্স ডিস্ট্রিক্ট অ্যাটর্নি টিমে, আগামী সেপ্টেম্বর মাস থেকে।

২২ জুন সিটি কাউন্সিল নির্বাচনে ভোট দিয়ে নিউইয়র্ক শহরে লাল সবুজের পতাকাকে সমুন্নত আর বাংলাদেশীদের নেতৃত্ব প্রতিষ্ঠার আহবান জানিয়েছেন এন মজুমদার।

সিলেটভিউ/পিডি

@

শেয়ার করুন

আপনার মতামত দিন

সাম্প্রতিক যুক্তরাষ্ট্র খবর

  •   নিউইয়র্ক পুলিশে প্রথম নারী বাংলাদেশি ফজিলা
  •   নিউইয়র্কে ইউএস বাংলা অনলাইন প্রেসক্লাবে মেহেদী কাবুল সংবর্ধিত
  •   কমিউনিটি নেতা শাহিনের খুনীদের শাস্তির দাবীতে আমেরিকাতে প্রতিবাদ সমাবেশ
  •   আমেরিকার মিশিগানে হচ্ছে প্রথম স্থায়ী শহিদ মিনার
  •   নিউইয়র্কে পিতার জীবন বাঁচাতে বাঙালি যুবকের কিডনি দান
  •   জালালাবাদ এসোসিয়েশন অব আমেরিকা’র ভারপ্রাপ্ত সেক্রেটারি লোকমান
  •   স্বাধীনতার সূবর্নজয়ন্তীতে মিশিগান স্টেট যুবলীগের আলোচনা সভা ও শ্রদ্ধা নিবেদন
  •   ২৫ মার্চ ‌‘গণহত্যা দিবস’ ঘোষণার দাবি মিশিগান স্টেট ছাত্রলীগের
  •   নিউইয়র্কে কাইযুম চৌধুরীর রোগ মুক্তি কামনায় দোয়া মাহফিল
  •   জুয়েল সাদতের "সাদা মার্জিন" বেরিয়েছে